‘কোভিড-১৯ কমপ্লিকেশনস ইনক্লুডিং ব্ল্যাক ফাঙ্গাস’ শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত

0
25
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর ( সংবাদ বিজ্ঞপ্তি ) :রবিবার ১৩ জুন সকাল ১১টায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ)’র এ ব্লক অডিটোরিয়ামে ‘কোভিড-১৯ কমপ্লিকেশনস ইনক্লুডিং ব্ল্যাক ফাঙ্গাস’ শীর্ষক উপলক্ষে সেন্ট্রাল সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে।
গুরুত্বপূর্ণ এই সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মোঃ শারফুদ্দিন আহমেদ। সেমিনারে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সম্মানিত উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ডা. একেএম মোশাররফ হোসেন। প্যানেল এক্সপার্ট হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অত্র বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মানিত কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আতিকুর রহমান, নিউরোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. আবু নাসের রিজভী, ফিজিক্যাল মেডিসিন এন্ড রিহ্যাবিলিটেশন বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. মোঃ তছলিম উদ্দিন, যুক্তরাজ্যের ইস্ট কেন্ট হসপিটালস ইউনিভার্সিটির নিউরো-রিহ্যাবিলিটেশন মেডিসিন বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ সাকেল। কী নোট স্পিকার হিসেবে বৈজ্ঞানিক প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন মনোরোগ বিদ্যা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ শামসুল আহসান, ইন্টারনাল মেডিসিন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. মোঃ ফজলে রাব্বি চৌধুরী, কার্ডিওলজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. রায়হান মাসুম মন্ডল। সভায় সভাপতিত্ব করেন অটোল্যারিংগোলজি হেড এন্ড নেক সার্জারি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. মোঃ বেলায়েত হোসেন সিদ্দিকী। মডারেটর এর দায়িত্ব পালন করেন নিউরোলজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. মোঃ শহীদুল্লাহ। গুরুত্বপূর্ণ এই সেমিনারে অত্র বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মানিত উপ-উপাচার্য (গবেষণা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মোঃ জাহিদ হোসেন, ডেন্টাল অনুষদের ডীন অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আলী আসগর মোড়ল, সার্জারি অনুষদের ডীন অধ্যাপক ডা. ছয়েফ উদ্দিন আহমেদ, নার্সিং অনুষদের ডীন অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ হোসেন, রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ডা. এবিএম আব্দুল হান্নান, প্রক্টর অধ্যাপক ডা. মোঃ হাবিবুর রহমান দুলাল প্রমুখসহ সম্মানিত শিক্ষক, চিকিৎসক, রেসিডেন্ট শিক্ষার্থীবৃন্দ স্বাস্থ্যবিধি মেনে উপস্থিত ছিলেন।
অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এই সেমিনারে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের বিভিন্ন জটিলতাসমূহ নির্ণয় ও রোগীদের জীবন বাঁচাতে উত্তরণের উপায়সমূহের উপর বিশদভাবে আলোচনা করা হয়।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মোঃ শারফুদ্দিন আহমেদ বলেন, করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের ফলোআপ চিকিৎসার আওতায় থাকা উচিত। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে পোস্ট কোভিড ফলোআপ ক্লিনিক চালু রয়েছে। সেখানে তারা কোভিড ১৯ এ আক্রান্ত পরবর্তী জটিলতাসমূহের চিকিৎসাসেবা নিতে পারেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে করোনা ভাইরাস নিয়ে গবেষণা কার্যক্রম চলমান রয়েছে। আশা করি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রচেষ্টায় অচিরেই ভ্যাকসিনের স্বল্পতার সমস্যার সমাধান হবে। বাংলাদেশের করোনা ভাইরাস অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে থাকলেও এ নিয়ে আত্মতুষ্টির সুযোগ নাই। ভ্যাকসিন গ্রহণ, পরিস্কার মাস্ক পরাসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার বিকল্প নাই। ভারতের ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট প্রতিরোধে লকডাউনের সাথে সাথে যারা ভারত থেকে বাংলাদেশে আসছে তাদের অবশ্যই কোয়ারেন্টাইনে রাখতে হবে। মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মোঃ শারফুদ্দিন আহমেদ বলেন, করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের নানা ধরণের জটিলতা দেখা যায়। বিশেষ করে যাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম, ডায়াবেটিস, হৃদরোগ, ক্যান্সারসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত এমন রোগীরা করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হলে তাদের জটিলতাও বেশি দেখা যাচ্ছে। কারো স্মৃতি শক্তি লোপ পায়, দৃষ্টি শক্তি হ্রাস পায়, কখনও নাক দিয়ে রক্ত পড়ে, দুই একজনের হলেও বর্তমানে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের সংক্রমণও পরিলক্ষিত হচ্ছে। এসকল বিষয়ে জনসচেতনতা তৈরি যেমন জরুরি তেমন নানা জটিলতায় ভোগা রোগীদের যথাযথ চিকিৎসা সেবা প্রদান নিশ্চিত করতে চিকিৎসকদের পারস্পরিক জ্ঞানের আদান-প্রদান, অভিজ্ঞতা বিনিময়, নিরন্তর গবেষণা ও পারস্পরিক সহযোগিতার বিকল্প নাই। তাই এই ধরণের সেমিনার- সিম্পোজিয়াম যত বেশি হবে সেটাই দেশ ও বিশ্ববাসীর জন্য মঙ্গলজনক।
সেমিনারে আরো জানানো হয়, বিশ্বব্যাপী মহামারী সৃষ্টিকারী করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের নানা জটিলতা দেখা যাচ্ছে। এরমধ্যে রয়েছে নিউমোনিয়াসহ শ্বাসতন্ত্রের নানা জটিলতা, পালমোনারি এম্বলিজম, শরীর বা স্বাস্থ্য ভেঙ্গে যাওয়ার সাথে মানসিক অবসাদ, অনিয়ন্ত্রিত রক্তচাপ, ডায়রিয়া, তীব্র মাত্রার মানসিক সমস্যা, ডায়াবেটিস জনিত সমস্যা, হার্ট এ্যাটাকসহ হৃদরোগ জনিত সমস্যা, কিডনী ফেলিউর, ব্রেন স্ট্রোকজনিত নানা জটিলতা, ব্ল্যাক ফাঙ্গাসসহ বিভিন্ন ধরণের ফাঙ্গাসের সংক্রমণজনিত জটিলতা ইত্যাদি। এছাড়া বিশ্বব্যাপী অনেক অজানা জটিলতাসমূহও ধরা পড়ছে। এ অবস্থায় রোগীদের জীবন বাঁচাতে দ্রুততার সাথে যথাযথ চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করা জরুরি। সেমিনারে এই বিষয়ে বিস্তারিত আলোকপাত করা হয়।
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়কে এ¤ু^লেন্স হস্তান্তর করলো এসিআই মটরস
এদিকে আজ রবিবার ১৩ জুন ২০২১ইং তারিখে দুপুর ১টা ৩০ মিনিটে এসিআই মটরস এর পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়কে চীনের ফোটন এ¤ু^লেন্স হস্তান্তর করে। এসিআই মটরস্ এর পক্ষ থেকে ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী ড. ফা হ আনসারী এবং নির্বাহী পরিচালক জনাব সুব্রত রঞ্জন দাস এম্বুলেন্সটি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মোঃ শারফুদ্দিন আহমেদ এর কাছে হস্তান্তর করেন। এই উপলক্ষে অত্র বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ ডা. মিল্টন হলে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। মহতী এই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগের মাননীয় সচিব জনাব মোঃ আলী নূর। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মোঃ শারফুদ্দিন আহমেদ। এ সময় অত্র বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মানিত উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. মুহাম্মদ রফিকুল আলম, উপ-উপাচার্য (গবেষণা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মোঃ জাহিদ হোসেন, উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ডা. একেএম মোশাররফ হোসেন, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আতিকুর রহমান, রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ডা. এবিএম আব্দুল হান্নান, প্রক্টর অধ্যাপক ডা. মোঃ হাবিবুর রহমান দুলাল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
দ্বিতীয় ডোজের ভ্যাকসিন নিলেন ১৬৫ জন
এদিকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের কনভেনশন সেন্টারে আজ রবিবার ১৩ জুন ২০২১ইং তারিখে চলমান লকডাউনের মাঝেও মোট ১৬৫ জন কোভিড ১৯ এর দ্বিতীয় ডোজের টিকা নিয়েছেন। গত ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত প্রথম ডোজের টিকা নিয়েছেন ৫৪ হাজার ৫ শত ৬৪ জন এবং আজ রবিবার ১৩ জুন ২০২১ইং পর্যন্ত দ্বিতীয় ডোজের টিকা নিয়েছেন ৪৫ হাজার ৮ শত ২৯ জন। এদিকে বেতার ভবনের পিসিআর ল্যাবে রবিবার ১৩ জুন ২০২১ইং পর্যন্ত ১ লক্ষ ৫০ হাজার ২ শত ২৮ জনের কোভিড-১৯ টেস্ট করা হয়েছে। বেতার ভবনের ফিভার ক্লিনিকে আজ রবিবার ১৩ জুন ২০২১ইং পর্যন্ত ১ লক্ষ ১ শত ৬ জন রোগী চিকিৎসাসেবা নিয়েছেন। অন্যদিকে করোনা ইউনিটে আজ রবিবার ১৩ জুন সকাল ৮টা পর্যন্ত ৯ হাজার ২ শত ৩ জন রোগী সেবা নিয়েছেন। ভর্তি হয়েছেন ৫ হাজার ৯৪ জন। সুস্থ হয়ে বাসায় ফিরেছেন ৪ হাজার ৩ শত ১২ জন। বর্তমানে ভর্তি আছেন ৮৪ জন রোগী এবং আইসিইউতে ভর্তি আছেন ১২ জন রোগী। গত ২৪ ঘণ্টায় ভর্তি হয়েছেন ১১ জন।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

two × three =