গণফোরামের নির্বাচিত প্রার্থীদের শপথ নিয়ে প্রশ্ন এড়িয়ে গেলেন ড. কামাল

0
225
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক: গণফোরামের নির্বাচিত দুইজন প্রার্থী শপথ নিতে চান। এমনকি ড. কামালের আপত্তি সত্ত্বেও তারা শপথ নেবেন বলে মত প্রকাশ করেছেন। এমন প্রেক্ষাপটে নিজের দলের নির্বাচিত দুজন সংসদ সদস্য হিসেবে শপথ নেওয়া না নেওয়া নিয়ে প্রশ্ন এড়িয়ে গেলেন গণফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেন।
কামাল হোসেন সিঙ্গাপুর থাকাকালে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জয়ী তার দলের দুই নেতা সুলতান মো: মনসুর আহমেদ ও মোকাব্বির খান শপথ নেবেন বলে ঘোষণা দেন। সম্প্রতি ঐক্যফ্রন্টের ঐক্য নিয়ে উচ্চস্বরে কথা বললেও দলের নেতারা সংসদ সদস্য হিসেবে শপথ নেবেন কি না, এমন প্রশ্ন করা হলে জবাব এড়িয়ে যান গণফোরাম সভাপতি। তিনি বলেন, ‘এটা এখানে বলার ইস্যু নয়। এ বিষয়ে আমরা সংবাদ সম্মেলন করে বিস্তারিত বলব। এই মুহূর্তে আমরা জাতীয় ঐক্যকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেওয়ার কথা বলছি।’
নির্বাচিতদের শপথ গ্রহণ প্রসঙ্গে ড. কামালের প্রশ্ন এড়িয়ে যাওয়া নিয়ে বিএনপিতে ক্ষোভ তৈরি হয়েছে। নেতারা বলছেন, তিনি হয়তো এরই মধ্যে নির্বাচিতদের শপথের পক্ষে অবস্থান নিয়েছেন!
এ প্রসঙ্গে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, যদি ড. কামাল শপথের পক্ষে সিদ্ধান্ত নিয়েই নেন তবে তা ড. কামালের জন্য শুভকর হবে না। তিনি জাতীয় ঐক্য নিয়ে যা যা করেছেন তাতে বিএনপিকে চরম বিপর্যস্ত অবস্থায় পড়তে হয়েছে। এসবের মাশুল তাকে কড়ায়-গণ্ডায় দিতে হবে। তিনি প্রথমে আমাদেরকে আশ্বস্ত করেছিলেন কেউ শপথ নেবে না। অথচ তার দলের নির্বাচিত প্রার্থীরা শপথ নেয়ার ঘোষণা দিলেন। এখন ড. কামাল নিজেই শপথের বিষয়ে প্রশ্ন করলে সেগুলো এড়িয়ে যাচ্ছেন। এসবের মানে কী? এগুলোর জবাব দিতে হবে তাকে। তিনি যে গভীর জলের মাছ সেটা ধীরে ধীরে স্পষ্ট হয়ে যাচ্ছে।
এমন প্রেক্ষাপটে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, বিএনপি-ড. কামালের মধ্যে যে সংকট তৈরি হয়েছে তাতে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের টিকে থাকা অনিশ্চিত।এ বিষয়ে রাজনৈতিক বিশ্লেষক সুভাষ সিংহ রায় বলেন, ড. কামালের অবস্থান নিয়ে ঐক্যফ্রন্টের মধ্যে শুরু থেকে নানা গুঞ্জন ছিলো। যা ক্রমেই স্পষ্ট হচ্ছে। ড. কামাল এবং গণফোরামের নির্বাচিত প্রার্থীদের শপথ নেয়ার সিদ্ধান্তে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হলো বিএনপি। কেননা, ঐক্যফ্রন্ট না থাকলে গণফোরামের কিছু আসে যায় না। কিন্তু বিএনপি জোটের বাইরে গিয়েও তাদের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে পারবে না। কারণ এটা ছিলো বিএনপির জন্য একটি ফাঁসির মঞ্চ।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here