গাজীপুরে খানাখন্দে তীব্র জানজট ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে

0
42
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক : ঘূর্ণিঝড় সিত্রাংয়ের প্রভাবে প্রবল বৃষ্টিপাত হওয়ায় ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের গাজীপুরের বিভিন্ন অংশে বড় বড় গর্তের কারণে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে।এর ফলে বুধবার তীব্র যানজট দেখা গেছে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে।এতে মারাতœক ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে যাত্রী ও চালকদের। বি আর টি এর উদ্যোগে খানাখন্দগুলো ইট ও বালু দিয়ে সাময়িক সংস্কার করা হলেও ভারী যানবাহন চলাচল করায় আগের অবস্থা ফিরে এসেছে। এতে প্রায়ই বিকল হয়ে পড়ছে যানবাহন। একই কারনে গাজীপুর ও ময়মনসিংহগামী পরিবহনগুলো উত্তরার আজমপুর থেকে মিলগেট পর্যন্ত যানজটে পড়ছে।
সরেজমিনে দেখা গেছে, সড়কের বিভিন্ন পয়েন্টে খানাখন্দে পড়ে বিকল হয়ে পড়েছে বেশকিছু ভারি যানবাহন। এসব যানবাহন সরিয়ে নিতে সময় লাগায় আরও দীর্ঘ হয় জ্যামে পড়া গাড়ির সারি।
যানজটের কারণে সবচেয়ে বেশি ভোগান্তিতে পড়েন অফিসগামীরা। বৃষ্টির কারণে গণপরিবহন সংকটে যাত্রীদের ঘণ্টার পর ঘণ্টা সড়কে দাঁড়িয়ে থাকতেও দেখা গেছে। অনেকেই আবার হেঁটেই রওনা হন গন্তব্যে। তবে কাদা ও ভাঙাচোরা সড়কে হেঁটে যেতেও বিড়ম্বনা পোহাতে হয়েছে তাদের। সবমিলিয়ে সারাদিনই দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে যাত্রী, পরিবহন চালক ও পথচারীদের।
পরিবহনচালক শহিদুল হক জানান, চেরাগআলি থেকে স্টেশনরোড আসতেই তার দুই ঘণ্টা সময় লেগেছে। অথচ এইটুকু পথ পার হতে সময় লাগার কথা মাত্র ১০ মিনিট।
ক্ষোভ প্রকাশ করে পথচারী শরিফ হোসেন বলেন, ‘একদিন-দুদিন না, গত ১০ বছর ধরে এ মহাসড়কে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। এ ভোগান্তি কি শেষ হবে না কোনদিন?
গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের (জিএমপি) ট্রাফিক বিভাগ বলছে, স্থায়ী সংস্কার করা না হলে এ সমস্যা থেকে বের হওয়ার পথ নেই।জরুরী প্রয়োজনে এ মহাসড়কে চলাচলকারীদের বিকল্প পথ ব্যবহারের পরামর্শ দিয়েছে জিএমপি।
গাজীপুর মহানগর পুলিশের উপকমিশনার (ট্রাফিক বিভাগ) আলমগীর হোসেন বলেন, ‘মিলগেট এলাকায় উড়াল সেতুর জন্য মাটি খুঁড়ে গর্ত করা হয়েছে। গর্তের পাড়ের মাটি ভেঙে পড়ায় মহাসড়কের ওই অংশে ঢাকামুখী এক লেনে গাড়ি চলাচল করতেই সমস্যা হচ্ছে। এখানেই মূলত যানজট হচ্ছে।
তিনি আরও বলেন, দুপুরে ঢাকায় সড়ক ভবনে সড়ক সচিবের নেতৃত্বে একটি বৈঠক হবে। সেখানে বিআরটির প্রকৌশলী, কর্মকর্তা, ডিএমপি ও জিএমপির ট্রাফিক বিভাগের কর্মকর্তারা উপস্থিত থাকবেন।
যানজটের বিষয়ে জানতে বিআরটি প্রকল্পের পরিচালক (সেতু) মো. মহিরুল ইসলাম খানের মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here