গাজীপুরে গ্যাস বিস্ফোরণে বাবার পর মারা গেলেন ছেলে, চিকিৎসাধীন আরো ২ জন

0
53
728×90 Banner

গাজীপুর প্রতিনিধি: গাজীপুরের বোর্ড বাজারের মুক্তারবাড়ি এলাকায় ঘরে গ্যাস বিস্ফোরণে দগ্ধ পিতার পর ছেলে মো. মিনারুল ইসলাম (৩৫) মারা গেছেন। সকাল ১০টায় শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। মিনারুল ইসলাম জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দপ্তরের একজন কর্মকর্তা ছিলেন।
শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের আবাসিক সার্জন ডা. তরিকুল ইসলাম জানান, ফরমান আলীর শরীরের ৯৫ শতাংশ দগ্ধ ছিল। গত ১৪ আগস্ট বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় দগ্ধ তার ছেলে মিনারুল ইসলাম আশঙ্কাজনক অবস্থায় আইসিইউতে চিকিৎসাধীন ছিলেন। বৃহস্পতিবার সকালে তিনিও মারা গেছেন। দগ্ধ মিনারুলের বৃদ্ধা মা খাদিজা বেগম (৬৫) ও শফিকুল ইসলাম (৩৪) নামে গ্যাস মিস্ত্রির চিকিৎসা চলছে।
স্থানীয় বাসিন্দা ও পুলিশ জানায়, মিনারুল মহানগরীর বোর্ডবাজার মুক্তারবাড়ি এলাকার জমির উদ্দিন রোডে স্ত্রী, সন্তান ও বাবা-মাকে নিয়ে বসবাস করেন। রোববার বিকেলে তাদের বাড়ির রান্নার গ্যাস সিলিন্ডারের গ্যাস শেষ হয়ে যাওয়ায় স্থানীয় বাজার থেকে একটি নতুন সিলিন্ডার কিনে নিয়ে আসেন। সিলিন্ডারটি চুলার সঙ্গে লাগানোর পর গ্যাস জ্বলছিল না। পরে সিলিন্ডারের দোকান থেকে মিস্ত্রি এনে মেরামতের সময় সিলিন্ডারের গ্যাসপাইপ লিকেজ হয়ে যায়। এতে কিছু গ্যাস ঘরে ছড়িয়ে পড়ে। পরে মিস্ত্রি সিলিন্ডারটি মেরামত করেন।
সেদিন রাত সাড়ে ১০টার দিকে মিনারুলের মা চুলা জ্বালাতে গেলে ঘরে জমে থাকা গ্যাস থেকে আগুন জ্বলে বিকট শব্দে বিস্ফোরণ হয়। এতে রান্নাঘরে থাকা মা খাদিজা, পাশের কক্ষে থাকা মিনারুল, তার বাবা ফরমান আলী ও মিস্ত্রি শফিকুল ইসলাম দগ্ধ হন। এসময় তার স্ত্রী ও সন্তান পাশের অন্য একটি কক্ষে থাকায় তারা রক্ষা পান। বিস্ফোরণে ঘরের দরজা-জানালা ভেঙে চুরমার হয়ে যায়। পরে আশপাশের লোকজন তাদের উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করেন। এরপর তাদের শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দপ্তরের পরিচালক মো. আতাউর রহমান মিনারুলের চাকুরির বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
জিএমপির গাছা থানার ওসি ইব্রাহিম হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, গ্যাস বিস্ফারণে আহত চারজনের মধ্যে দুইজন মারা গেছেন। বাকি দুজন চিকিৎসাধীন আছেন।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here