গাজীপুরে পাঁচ বছরের শিশুকে ধর্ষণের পর হত্যা

0
337
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক: বেড়েই চলেছে ধর্ষণ। এ থেকে বাদ পড়ছে না কেউ। ধর্ষকরা শুধু ধর্ষণ করেই ক্ষান্ত হচ্ছে না। ধর্ষণের পর তাদেরকে নির্মমভাবে হত্যা করা হচ্ছে। এ থেকে রেহাই পাচ্ছে না ছোট্ট নিষ্পাপ শিশুও। ধর্ষণ এরপর অমানুষিকভাবে হত্যা করা হয় শিশুদের ।
গাজীপুরে মা-বাবা ছিল কর্মস্থলে। বড় বোন ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী তান্নিকে জানিয়ে দুপুরের আগে রবিবার রাস্তার ওপারের নানার বাসায় গোসল করতে গিয়ে নিখোঁজ হয় পাঁচ বছরের শিশু তাহি। বিকেলে তার লাশ পাওয়া যায় বাসা থেকে ২০০ গজ দূরে একটি ঝোপের ভেতর। পুলিশের ধারণা, ইট দিয়ে মাথা থেঁতলে হত্যার আগে শিশুটিতে ধর্ষণ করা হয়। পৈচাশিক এ ঘটনা ঘটেছে গাজীপুর মহানগরীর ছয়দানা মালেকের বাড়ি এলাকার শরীফপুরে। নিহত তাফান্নুম তাহি ওই এলাকার হুমায়ুন কবীরের মেয়ে এবং স্থানীয় মাতৃছায়া আইডিয়াল স্কুলের নার্সারির শিক্ষার্থী ছিল।
সকাল সাড়ে ১১টার দিকে বড় বোন তান্নির কাছে বলে বাসা থেকে বের হয় তাহি। তাহিদের বাসা থেকে তাঁর বাসার দূরত্ব ৫০ গজেরও কম। দীর্ঘ সময় পরও তাহি বাসায় না ফেরায় দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে তান্নি ছোট বোনকে খুঁজতে আসে। কিন্তু বাসার কোথাও তাহিকে পাওয়া যায়নি। এমনকি কেউ তাকে বাসায় প্রবেশ করতেও দেখেনি। শুরু হয় খোঁজাখুঁজি। দুপুর দেড়টার দিকে তার সন্ধান চেয়ে মাইকিং করা হয়। একপর্যায়ে বিকেল ৫টার দিকে বাসা থেকে ২০০ গজ দূরে একটি নির্জন ঝোপের ভেতর তাহির রক্তাক্ত লাশ পাওয়া যায়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ আসে। শিশুটির বাবা হুমায়ুন কবীর জানান, তাঁদের মূল বাড়ি বরিশালের মুলাদীতে। ১৫ বছর আগে শরীফপুরে জমি কিনে বাড়ি করে এখানেই বাস করছেন। তাঁদের কারো সঙ্গে শত্রুতা নেই। কারা এমন পৈচাশিক কাজ করেছে জানা নেই। এ ঘটনায় জড়িতদের দ্রুত গ্রেপ্তার ও ফাঁসি দাবি করেন তিনি।
গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের গাছা থানার এসআই কবীর হোসেন জানান, শিশুটির মাথায় ইট দিয়ে প্রচণ্ড জোরে আঘাত করা হয়। আঘাতের কারণে মগজ বের হয়ে গেছে। বিকেল ৫টার দিকে লাশ উদ্ধার করে গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়। হত্যার আগে শিশুটিকে ধর্ষণ করা হয়েছে—এমন আলামত মিলেছে। ঘটনা প্রকাশ হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা থেকেই শিশুটিকে হত্যা করা হয়ে থাকতে পারে।
এ ঘটনায় নিহতের মামা আসাদুজ্জামান রাসেল বাদী হয়ে অজ্ঞাতপরিচয় আসামির বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। পুলিশ জড়িতকে ধরতে অভিযান শুরু করেছে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here