গাজীপুরে ব্যাটারী চালিত লাইসেন্স ছাড়া অটো রিক্সা বন্ধে অভিযান

0
587
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক: গাজীপুরে চলাচলকারী ব্যাটারী চালিত লাইসেন্স ছাড়া অটো রিক্সা বন্ধ করতে অভিযান শুরু করেছে গাজীপুর ট্রাফিক পুলিশ। সরকারি নিষেধাজ্ঞার প্রেক্ষিতে গাজীপুর মেট্রোপলিটন ট্রাফিক ডিসি নির্দেশে সকাল থেকে গাজীপুরের ঢাকা- ময়মনসিংহ মহাসড়কে অভিযান চালায় পুলিশ। এসময় পুলিশ অটো রিক্সা আটক করে চালকদের ব্যাটারী ও রিক্সা থানায় নিয়ে গেছে। পুলিশের পক্ষ থেকে বার বার নিষেধ করার পরও রিক্সা গ্যারেজ মালিকরা কর্ণপাত না করায় সরকারি আদেশ বাস্তবায়ন করতে পুলিশ কঠোর অবস্থান গ্রহন করেছে বলে অভিযানের নেতৃত্বদানকারী টঙ্গী দক্ষিণ ট্রাফিক জোনের প্রশাসনিক কর্মকর্তা ট্রাফিক ইনস্পেক্টর সিরাজুল ইসলাম জানান।
জানা গেছে, সরকার মহাসড়কে অটো রিক্সা চলাচলের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করার পরও মালিক ও চালকরা তা মানছেনা। পুলিশের পক্ষ থেকে বার বার নিষেধ করার পরও রিক্সা চালকরা মহাসড়কে চলাচল করছে। এসব ব্যাটারী চালিত অটো রিক্সার লাইসেন্স নেই বলে জানা গেছে। সরকারি আদেশ বাস্তবায়ন ও লাইসেন্স বিহীন অটো রিক্সা বন্ধ করতে টঙ্গী দক্ষিণ ট্রাফিক জোনের প্রশাসনিক কর্মকর্তা ট্রাফিক ইনস্পেক্টর সিরাজুল ইসলাম নেতৃত্বে আব্দুল্লাহপুর থেকে চৌরাস্তার আশপাশ এলাকায় ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে অভিযান চালায় পুলিশ। অভিযানে অটো রিক্সা আটক করে চালকদের রিক্সার ব্যাটারী খোলে থানায় নিয়ে গেছে পুলিশ। অভিযানের খবর ছড়িয়ে পড়লে গাজীপুর চৌরাস্তা, সাইনবোর্ড, বোডবাজার, বড়বাড়ি, গাজীপুরা, টঙ্গী ষ্টেশন রোডসহ মহাসড়কে চলাচল কারী সকল অটো রিক্সা উধাও হয়ে পড়ে।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, গাজীপুরে এলাকায় দেড় শতাধিক গ্যারেজের কমপক্ষে ৭/৮ হাজার অটো রিক্সা চলচল করছে। এসব রিক্সা গ্যারেজ গুলোতে অবৈধ বিদ্যুৎ লাইন সংযোগ দিয়ে ব্যাটারী চার্জ করা হচ্ছে। প্রতিটি রিক্সার ব্যাটারী চার্জ করতে দৈনিক বিদুুৎ খচর হচ্ছে ৬ ইউনিট। প্রতি ইউনিট ১১ টাকা ২৫ পয়সা হিসেবে থানা এলাকায় অটো রিক্সার গ্যারেজ গুলোতেই প্রতিদিন ৫ লক্ষাধিক টাকার বিদ্যুৎ ব্যবহার হচ্ছে।
শহরের মধ্যে দিয়ে ফুলস্পিডে ছুটে চলেছে ব্যাটারী চালিত অটো রিক্সা। দুরন্ত গতিতে ছুটে চলা এই রিক্সার গতি নিয়ন্ত্রণে কোন ব্যবস্থা না থাকায় দুর্ঘটনায় প্রাণ হারাচ্ছে যাত্রীরা। আহত হওয়ার ঘটনা ঘটছে প্রায়ই। গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের রিক্সা কে যানজটের অন্যতম কারণ হিসেবে ধরা হয়ে থাকে। এছাড়াও দুর্ঘটনা, যত্রতত্র পার্কিং, অতিরিক্ত ভাড়া হাঁকানোসহ রয়েছে নানা ধরণের বিড়ম্বনা। এসব বিড়ম্বনার সাথে বর্তমানে যোগ হয়েছে ব্যাটারি চালিত অটোরিক্সা। শহরের অলিগলিতে এসব রিক্সার কারণে আগের চেয়েও বেড়েছে দুর্ঘটনা ও যানজট। সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে ব্যাটারি চালিত অটো রিক্সার পরিমাণ। আর এ কারণে বিদুৎতের অপচয় ও ঘটছে বলে মনে করছে সুশীল সমাজ। প্রতিদিনই শহরে এবং শহরের বাইরে যেসব দুর্ঘটনার খবর পাওয়া যায় তার অধিকাংশ কারণ হিসেবে চিহ্নিত করা হচ্ছে অটোরিক্সাকে। দিন দিন এর পরিমাণ বৃদ্ধি, অদক্ষ ও অপ্রাপ্ত বয়স্ক চালক এবং অসাবধাণতা এরকম দূর্ঘটনা ঘটছে বলে বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন।
জানা যায়, গাজীপুরে সিটি এলাকায় রিক্সার লাইসেন্স প্রদান বন্ধ হয়েছে প্রায় ৩ বছর। লাইসেন্সবিহীন রিক্সার দৌরাত্ম্যও ব্যাপকহারে বৃদ্ধি পেয়েছে বর্তমানে। এসব বৈধ-অবৈধ রিক্সার সাথে যোগ হয়েছে ব্যাটারি চালিত রিক্সা। আর এসব রিক্সা চালাচ্ছেন কিছু মৌসুমী রিক্সা চালক। আর এসব রিক্সা চালকেরা যাত্রীদের গন্তব্যস্থান না চিনলেও হাঁকিয়ে নিচ্ছেন অধিক ভাড়া। রাতদিন রিক্সার দখলেই থাকছে নগরীর সড়কগুলোর অধিকাংশ স্থান। দিনভর তীব্র যানজটে নাকাল থাকছে নগরবাসী। এতে নষ্ট হচ্ছে কর্মঘণ্টা ও পুড়ছে লাখ লাখ টাকার জ্বালানি। সড়কগুলোতে ধারণ ক্ষমতার চেয়ে কয়েকগুণ বেশি রিক্সা চলাচল করায় রিক্সার নগরীতে পরিণত হয়েছে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন।
রির্চাজেবল ইলেকট্রিক ব্যাটারি মোটর চালিত এই রিকশাগুলো চলছে প্রশাসনের নাকের ডগা দিয়ে। কিছু রিকশা মোটর বা ব্যাটারি গুলো ঢেকে রাখে যাতে দেখা না যায়। সাধারণ রিক্সার সাথে বাজার থেকে কেনা ইউপিএস এর ব্যাটারি এবং ছোট মটর সংযোগকারী এসব রিক্সার আধিপত্য এখন নগরজুড়ে। এর ফলে পায়ের সাহায্যে প্যাডেল দ্বারা রিক্সা চালানো কষ্ট বিধায় রিক্সা চালকগণ ব্যবহার করতে উৎসাহিত হচ্ছে এবং দ্রæতগামী বিধায় যাত্রীগণও আরোহনে সাচ্ছন্দ মনে করছে। এর ধারাবাহিকতায় বর্তমানে এধরনের রিক্সার হার দিনদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে।
অটোরিক্সা চালানো নিষেধ এমন প্রশ্নের জবাবে অটোরিক্সার মালিক নীরব বলেন, টঙ্গী থানা অটোরিকশা চালক মালিক সমিতি সাপ্তায়ে ২০টাকা, ছয়মাসে তিনশত টাকা দিলে একটা টোকেন দেয় আর ঐ টোকেন থাকলে গাজীপুরে আর কেউ জ্বামেলা করে না। তিনি আরো বলেন, একটি অটো রিক্সা মাসে খরচ কত জানেন, গেরেজ ভাড়া ও ব্যাটারী চার্জ মাসে তিন হাজার টাকা করে দিতে হয় টঙ্গী পাগার গেরেজ মালিক মুসলেমকে। না দিলে ব্যাটারি চার্জতো দূরের কথা গাড়ি চালানো অসম্বব হয়ে যায়। আমি নিজে একজন গাড়ির মালিক এই গাড়িটি সমিতি থেকে কিস্তি থেকে টাকা তুলে চেড়াগআলি মদিনা অটো কারখানা থেকে কিনেছি। এই গাড়ি থেকে আমার মাসে আয় আছে ৩০ হাজার টাকা। এই টাকা দিয়ে ঘর ভাড়া খাবার খরচ ও ছেলে মেয়েদের লেখাপড়া খরচ চালাই এবং সাপ্তাহে কিস্তি দেই ৩ হাজার টাকা।
গাজীপুরা এক রিক্সা চালক আনোয়ার বলেন, আমরা গরিব মানুষ দিনে যে কয় টাকা কামাই করি ২ বেলা কোন রকম খায়তে পারি লাইসেন্স করবো কেমনে। আগে অটো চালায়তাম পুলিশের জ্বামেলা করে প্রতিদিন টাকা দেওয়া লাগে তাই ওটা চালানো বাদ দিছি। তিনি আরো বলেন, বর্তমানে নরমাল রিক্সা চালাই এটা টাকা দেওয়া লাগে কম তাই কষ্ট হলেও এটা চালাই।
টঙ্গী সফিউদ্দিন বনমালা রোড এলাকার এক পথচারী বাবু বলেন, রিক্সা চরতে ভালোই লাগে তবে মাঝে মাঝে ভাড়া বেশী চাইলে মিজাজ খারাব হয়ে যায়। আর বর্তমানে অটোরিক্সা গুলোতে ৪৮ ভোল্টের ব্যাটারি ব্যবহার করে এই ব্যাটারি গুলো চার্জে অনেক বিদ্যুৎ প্রয়োজন হয় । এমনিতে দেশে বিদ্যুৎ সংকট । একটা রিক্সা চার্জে মাসে খরচ ৮০০-১৫০০ টাকা আমাদের মতে। দেশে এই রকম যানবাহনের কোনো দরকার নাই আমি মনে করি। কিন্তু যথাযত কর্তৃপক্ষের কি কোনো খেয়াল আছে এই ব্যাপারটাতে ?
গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের লাইসেন্স শাখার রাজস্ব কর্মকর্তা এমরান সরকার বলেন, এসব রিক্সা নিষেদ্ধ করা হয়েছে । মালিক সমিতির পক্ষ থেকে একটি রিট করা হয় । বর্তমানে তিন চার বছর যাবৎ ব্যাটারি চালিত রিক্সার লাইসেন্স সিটি কর্পোরেশনে দেওয়া হচ্ছে না । যদি সরকার অনুমতি দেয় তাহলে সিটি কর্পোরেশন মেয়র অনুমতি দিলে আমাদের লাইসেন্স শাখার পক্ষ থেকে লাইসেন্স দেয়া হবে।
গাজীপুর মেট্রোপলিটন ট্রাফিক পুলিশের টঙ্গী দক্ষিণ ট্রাফিক জোনের প্রশাসনিক কর্মকর্তা ট্রাফিক ইনস্পেক্টর সিরাজুল ইসলাম বলেন, গত তিন মাস যাবত ভিবিন্ন সময় টঙ্গীব্রীজ থেকে গাজীপুর চৌরাস্ত পর্যন্ত মহাসড়কে ধীর গতিতে চলে এমন অটোরিক্সা, ইজিবাইক, থ্রী হুইলার গাড়ি গুলো বন্ধ করার নিমিত্তে ওয়ার্নিং স্বরুপ বিভিন্ন সময় মাইকিন করে সকলকে অবগত করেছি। এবং এই মাইকিং ও অভিযান অব্যাহত আছে। যে সকল গাড়ি নিষেধ অমান্য করে মহাসড়কে চলছে তার মধ্য থেকে আমরা অটোরিক্সা ও ইজিবাইক মিলিয়ে ৬৪টি আটক করেছিলাম পরবর্তীতে অসহায় ও গরিব মানুষের কথা চিন্তা করে শেষ সুযোগ হিসেবে কোন প্রকার আর্থিক ক্ষতি না করে যার যার গাড়ি মূসলেখা নিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here