গাজীপুরে সন্তান নিয়ে জেল থেকে বেরিয়ে স্বামীর বাড়িতে মিলল না ঠাঁই!

0
75
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক : গাজীপুরের শ্রীপুরে জেল থেকে বেরিয়ে দুই সন্তান নিয়ে বিচারের দাবিতে খোলা আকাশের নিচে ঘুরে বেড়াচ্ছেন এক অসহায় নারী। সাজানো মামলায় এক বছরের কন্যাসন্তান নিয়ে দুই মাস জেলে থাকার পর জেল থেকে বেরিয়ে বাড়ি ফিরে দেখেন ঘরে স্বামীর সদ্য বিয়ে করা দ্বিতীয় স্ত্রী।
আর তার নিজের ঘরে ঢুকতেই দেয়নি তার স্বামীর দ্বিতীয় স্ত্রী। জেল থেকে বের হয়ে ১৩ দিন অতিবাহিত হলেও দেখা মেলেনি স্বামীর।
টেলিফোনে স্বামী সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, আমি বিয়ে করে ফেলেছি, তুমি তোমার রাস্তা দেখ। এই বলে স্বামী ফোন কেটে দেন। অবুঝ দুই সন্তান কোলে নিয়ে বারবার বাড়ির পাশে গিয়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা বসে থাকলেও স্বামীর দেখা পাচ্ছেন না নাসরিন।
দুই সন্তান নিয়ে নিজ গৃহে ফেরার দাবিতে ৩১ জুলাই শ্রীপুর থানায় অভিযোগ করেন নাসরিন। অভিযোগের পর পুরো দুদিন অতিবাহিত করে থানার গেটে।
নাসরিন জানান, প্রথম দিন তদন্তের দায়িত্বে থাকা পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, তুমি চলে যাও আমি সময়মতো তদন্ত করতে যাব। নাসরিন পুলিশের কাছে আকুতি করে বলেছিলেন স্যার এই দুই সন্তান নিয়ে কোথাও যাওয়ার জায়গা নেই আমার। এর পর থেকে দুদিন দুই সন্তান নিয়ে থানার গেটে সময় কেটেছে নাসরিনের।
নাসরিনের বাবার বাড়ি বাগেরহাট জেলা সদরের অর্জুন বহর গ্রামে। শ্রীপুর পৌর এলাকার বহেরার চালা শিল্পাঞ্চল এলাকায় টেইলারিং দোকানের মালিক ছিলেন নাসরিন। ৫ বছর আগে ঘরের মালিকের মাধ্যমে নাসরিনের বিয়ে হয় শ্রীপুর উপজেলার গোসিংগা ইউনিয়নের পেলাইদ গ্রামের আব্দুল মান্নানের ছেলে কবির হোসেনের সঙ্গে।
বিয়ের এক বছর পরেই তাদের ঘরে জন্ম নেয় প্রথম কন্যাসন্তান কানিজ ফাতেমা। বিয়ের চার বছর পর জন্ম নেয় দ্বিতীয় কন্যাসন্তান মরিয়ম।
জনৈক এক প্রভাবশালী ব্যক্তি ও তার স্বামীর সাজানো মামলায় গত তিন বছরে দুই সন্তান সঙ্গে নিয়ে নাসরিন জেল খেটেছেন তিন বার। এক বছর বয়সি কন্যাসন্তান মরিয়মকে নিয়ে প্রায় দুই মাস জেলে থাকার পর গত ২০ জুলাই জেল থেকে বেরিয়ে আসেন নাসরিন।
নাসরিন জানান, তার স্বামী ও সতীনের ষড়যন্ত্রের কারণে গৃহহীন হয়ে বর্তমানে দুই সন্তান নিয়ে খোলা আকাশের নিচে মানবেতর জীবনযাপন করছেন তিনি। শ্বশুরবাড়িতেও ঠাঁই হচ্ছে না তার।
নাসরিন আরও জানান, গত জানুয়ারি মাসে তার স্বামীর অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে দুই সন্তানকে নিয়ে ঘরের দরজা বন্ধ করে আগুন দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছিলেন তিনি।সূত্র: যুগান্তর

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here