গাফিলতিতে সাফারি পার্কে জিরাফের মৃত্যু

0
333
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক: গাজীপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কে মঙ্গলবার রাতে একটি জিরাফের মৃত্যুর মধ্য দিয়ে পুরুষ শূণ্য হলো পার্কের জিরাফের পরিবারটি। ওই পার্কে এ যাবত ৬টি জিরাফের মৃত্যুর মধ্য দিয়ে এ পরিণতি সৃষ্টি হয়েছে। এজন্য সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক মো. নিজাম উদ্দিনসহ কয়েকজনের কর্তব্য অবহেলাকেই দায়ি করেছেন পার্কের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. রফিকুল ইসলামসহ আরো কয়েক কর্মকর্তা।
পার্কের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. রফিকুল ইসলাম জানান, প্রায় দুইমাস ধরে ওই জিরাফটি পাতা জাতীয় খাবার খেলেও দানাদার খাবার বন্ধ করে দেয়। বিষয়টি পার্কের মেডিকেল বোর্ডের সদস্য বাংলাদেশ কৃষি বিশ্বিবদ্যালয়ের সার্জারি বিশেষজ্ঞ মো. রফিকুল আলম, ঢাকা চিড়িয়াখানার সাবেক কিউরেটরসহ কয়েকজন চিকিৎসকের নজরে দেয়া হয়। পরে তারা ওই জিরাফটির জন্য ব্যবস্থাপত্রসহ বিশেষ যতœ নেয়ার পরামর্শ প্রদান করেন। কিন্তু বুধবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে আফ্রিকান সাফারি বেস্টনীতে গিয়ে ওই জিরাফটির মৃত দেহ দেখতে পান কর্তব্যরত পার্ক কর্মকর্তা-কর্মচারিরা। পরে তার মৃতদেহের নমুনা সংগ্রহ করে মৃত্যুর প্রকৃত কারণ পরীক্ষার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয় এবং মৃতদেহটি পার্ক চত্বরে মাটি চাপা দেয়া হয়। এ যাবত বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্কে ছোট-বড় ৭টি জিরাফের মৃত্যুতে পার্কে কর্তব্যরত চিকিৎসক নিজাম উদ্দিনের গাফিলতিকে দায়ি করেন বর্তমান ভারপ্রাপ্ত পার্ক কর্মকর্তা মো. রফিকুল ইসলাম, বন্যপ্রাণি সুপারভাইজার মো. আনিসুর রহমান, সরোয়ার হোসেন খানসহ বিভিন্ন কর্মকর্তা।
তারা জানান, নিজাম উদ্দিন পার্কে রাত যাপন করেন না। তিনি থাকেন পার্ক থেকে প্রায় ১৫কিলোমিটার দূরে শেখ কামাল ওয়াইল্ড লাইফ সেন্টারের আবাসিক এলাকায়। তিনি দিনে দু-একবার পার্কে আসলেও দিনেই চলে যান। তিনি পার্কের প্রতিষ্ঠাকালীণ ভেটেরিনারী সার্জন (চিকিৎসক)। এমতাবস্থায় কয়েকমাস আগে ওই পার্কে হাতেম সাজ্জাত মো. জুলকার নাইন নামের ভেটেরিনারি অফিসার ওই পার্কে যোগ দেন। তিনি নিজাম উদ্দিনের কথা ছাড়া কোন সিদ্ধান্ত নেন না বলেও অভিযোগ রয়েছে। এ ব্যাপারে জুলকার নাইনকে একাধিকবার মোবাইল ফোন করলেও তিনি তা রিসিভ করেননি।
পার্ক কর্মকর্তা মো. রফিকুল ইসলাম জানান, বন্য প্রাণিরা যেহেতু কথা বলতে পারে না। তাই তাদের যতœ নিতে হয় খুব কাছে থেকে। কিন্তু উনি তা করেন না। এ ব্যাপারে পার্কের প্রকল্প পরিচালককেও অবগত করা হয়েছে।
আমার জানামতে ২০১৫সাল পর্যন্ত অফ্রিকা থেকে ১০টি জিরাফ এ পার্কে আনা হয়েছিল। তারা এ পার্কে শাবক জন্ম দেয় চারটি। চারটি বাচ্চার মধ্যে একটি বাচ্চা সাব-এডাল্ট অবস্থায় মারা যায়। এছাড়াও ২০১৮ সাল থেকে ২০১৯সাল পর্যন্ত কয়েক মাসের ব্যবধানে মোট ৬টি এডাল্ট
জিরাফ মারা গেছে। এদের মধ্যে কয়েকটি পুরুষ জিরাফও ছিল। গত মঙ্গলবার রাতে সর্বশেষ পুরুষ জিরাফটির মৃত্যুর পর পার্কে বর্তমানে ৭টি জিরাফ রয়েছে। যারা সবাই মাদি। তবে শুধু জিরাফ নয় তাদের অবহেলায় বিভিন্ন পশু-পাখি অকালে মারা গেছে।
পার্কের প্রকল্প পরিচালক মো. সামসুল আজম বলেন, তিনিও পার্কে বিভিন্ন সময় পরিদর্শন করতে গিয়ে নিজাম উদ্দিনকে পাননি। যা পরিদর্শণ বুকেও লেখা রয়েছে। অতিসত্বর পার্কে পুরুষ জিরাফ আমদানি করা হবে। তবে আশার কথা হলো পার্কের আরো দু-একটি জিরাফ গর্ভধারণ করেছে। তাদের থেকেও পুরুষ জিরাফ জন্ম নিতে পারে।
এ ব্যাপারে নিজাম উদ্দিন জানান, তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ সঠিক নয়। তিনি সব সময় পার্কে অবস্থান নিয়ে পশু-পাখিকে নিয়মিত চিকিসা সেবা দেন। তবে পার্কে তার বিরুদ্ধে কিছু কর্মকর্তা-কর্মচারি সর্বদা মিথ্যা অভিযোগ ও ষড়যন্ত্রের কাজে লিপ্ত রয়েছেন।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here