গ্রাহকদের টাকা নিয়ে উধাও সমিতি, গ্রেফতার ১

0
37
728×90 Banner

জাহাঙ্গীর আকন্দ : গাজীপুরের টঙ্গীতে গ্রাহকের আমানতের টাকা নিয়ে উধাও হওয়ার অভিযোগ উঠেছে একটি সমবায় সমিতির বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় মামলার পর একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।
টঙ্গীর দত্তপাড়া এলাকার ছায়া সঞ্চয় ও ঋণদান সমবায় সমিতি লিমিটেড নামের একটি প্রতিষ্ঠানে এ ঘটনা ঘটে। এতে গ্রাহকের আমানতের প্রায় ২ কোটি ৫০ লাখ টাকা নিয়ে উধাও হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।
এ ঘটনায় আমানত জমাকারীর একাংশের গ্রাহক মঙ্গলবার রাতে সমবায় সমিতির সাধারণ সম্পাদক আলমগির মোল্লাকে (৩৮) আটক করে পুলিশ দেয়। আলমগির মৃত তৈয়ব আলী মোল্লার ছেলে।
সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, প্রায় ৯ বছর আগে ওই এলাকায় একটি বাড়ির কক্ষ ভাড়া নিয়ে ছায়া সঞ্চয় ও ঋণদান সমবায় সমিতি লিমিটেড এলাকায় দরিদ্র জনগোষ্ঠীর মধ্যে ক্ষুদ্রঋণ দেওয়ার কার্যক্রম পরিচালনা শুরু করে। কয়েক বছরের মধ্যে মানুষের আস্থা অর্জন করে উচ্চ হারে সুদ দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে আমানত সংগ্রহ করে সমবায় সমিতিটি। এভাবে এলাকার মানুষের কাছ থেকে প্রায় ২ কোটি ৫০ টাকা নিয়ে সমবায় সমিতির সটকে পড়েন কর্তাব্যক্তিরা। সটকে পড়ার খবর দ্রুত এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে সমিতি কার্যালয়ের সামনে জড়ো হয়।
সমিতিটি স্থানীয় দোকান মালিক ও ব্যবসায়ীদের ক্ষুদ্র ঋণ দেয়া শুরু করেন। এভাবে প্রায় ২শ জনের কাছ থেকে প্রায় ২ কোটি ৫০ লাখ টাকার বেশি সংগ্রহ করে ফেলে সমবায় সমিতিটি। গত কয়েক বছর আগে সমিতিটি ক্ষুদ্রঋণ দেওয়া শুরু করলে স্থানীয়দের মাঝে বিশ্বাসযোগ্যতা পায় সমিতিটি।
রিনা বেগম বলেন, প্রায় ৫ বছর আগে ছায়া সঞ্চয় ও ঋণদান সমবায় সমিতি লিমিটেডে ১৪ লাখ টাকা আমানত হিসাবে জমা করি। প্রতি মাসে এক লাখে ২ হাজার টাকা লভ্যাংশ দেওয়ার কথা বলে আমানত সংগ্রহ করে। পরে তারা আমাকে তাদের একজন কর্মকর্তা হিসেবে চাকরি দেয়। আমার সারা জীবনের জমানো টাকা তাদের হাতে তুলে দিয়েছিলাম। গত জানুয়ারি মাস থেকে আমাকে কোনো লভ্যাংশ দেয়নি। মূল টাকা ফেরত চাইলে কালক্ষেপণ করতে থাকে। পরে ওই সমিতি থেকে চাকরি ছেড়ে দেই। গত মঙ্গলবার রাতে অফিসে এসে দেখি তালা ঝুলছে। টাকা না পেয়ে থানায় মামলা করেছি।
সমিতিতে আমানত জমাকারী অপর এক নারী নাছিমা আক্তার। ২৭ হাজার টাকা মাসিক লভ্যাংশে তের লাখ ষাট হাজার টাকা দিয়েছিলেন সমিতিতে। বুধবার দুপুরে সমিতির কার্যালয়ের সামনে এসে কেঁদে কেঁদে এসব কথা বলেন।
এমন একাধিক অভিযোগ নিয়ে বুধবার দুপুরে প্রতিষ্ঠানটির গ্রাহকেরা টঙ্গী পূর্ব থানায় জড়ো হন। ঘটনার পর থেকে সমিতির স্থানীয় কর্মকর্তারাও পলাতক রয়েছেন।
এ ব্যাপারে ছায়া সঞ্চয় ও ঋণদান সমবায় সমিতি লিমিটেডের সভাপতি ডা. খাইরুল বাসারের যোগাযোগের চেষ্টা করলে তার মোবাইল ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।
গাজীপুর জেলা সমবায় কর্মকর্তা মোহাম্মাদ সাদ্দাম হোসেন বলেন, সমবায় সমিতিটি আমাদের জেলা সমবায়ের রেজিস্ট্রেশনভুক্ত। বিষয়টি শুনেছি। তদন্ত করে সমবায় আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
টঙ্গী পূর্ব থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. জাবেদ মাসুদ বলেন, এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা হয়েছে। অভিযুক্তদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here