চিরঞ্জীব মুজিব

0
88
728×90 Banner

আবদুল মান্নান

১৯২০ সনের ১৭ই মার্চ টুংগী পাড়ায় জন্ম নেওয়া
খোকা থেকে শেখ মুজিবুর রহমান,
১৯৫৪ সনে যুক্তফ্রন্ট সরকারের মন্ত্রী হয়ে
পেয়েছেন বিশ্ব নেতার সম্মান।
১৯৬৬ সনে শেখ মুজিব পূর্ব বাংলার পক্ষে
দেশের মঙ্গলের জন্য করেন ছয় দফা ঘোষণা,
বাঙ্গালীর মুক্তির সনদ নামে যাহা
ইতিহাসে আছে তার বর্ণনা।
১৯৬৮ সনে ৩রা জানুয়ারী তাঁকে করা হয় আসামী
রাষ্ট্র বিরোধী নামে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার,
মৃত্যুর ভয় দেখিয়ে পাকিস্তানী শাষক দমাতে পারেনি তাঁকে
৬৯’র ২২ শে ফেব্রæয়ারী জনতার চাপে মামলা করে প্রত্যাহার।
৩৫ জন আসামীর মধ্যে এক নম্বর আসামী হয়েও
দমে যাননি অকুতোভয় দেশপ্রেমিক শেখ মুজিব,
সাহসী ভ‚মিকায় এগিয়েছেন নক্ষত্র গতিতে
টেনে ছিঁড়তে অত্যাচারী শাসকের জীব।
৫ই ডি্েসম্বর ১৯৬৯ সনে বঙ্গবন্ধুর কন্ঠে উচ্চারিত হয়
পূর্ব বাংলার পরিবর্তে নতুন নামে একটি দেশ,
সবুজ শ্যামলে শস্যে ভরা হিন্দু মুসলিমের বাস
বিশ্ব মানচিত্রে পরিচত সোনার বাংলাদেশ।
বীর সেনা লৌহমানব সাতকোটি বাঙ্গালির দিকপাল
তেজি মহানায়ক প্রেমের এক বিশাল সিন্ধু,
ডাকসু ভিপি তোফায়েল আহমেদ রেসকোর্স ময়দানে
২৩শে ফেব্রæয়ারী১৯৬৯ সনে তাঁকে উপাধি দেন বঙ্গবন্ধু।
বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের বলিয়ান কান্ডারি
বিশ্বনেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান,
৭ই মাচের ভাষণে জানিয়ে দেন বিশ্ববাসিকে
বাংলাদেশকে করতে স¦াধীন তেজিয়া জীবন দান।
১৯৭১ সনে ২৫ শে মার্চ রাত বারোটার পরে
২৬ শে মার্চ তিনি ঘোষণা দেন দেশের স্বাধীনতা,
পাকবাহিনী বন্দি করে নিয়ে যায় তাঁকে
পূর্ব বাংলায় চালাতে জুলুম,ধর্ষণ আর গনোহত্যা।
বঙ্গ বন্ধুকে গ্রেফতার করে অন্তরিণ রাখা হয়
পাকিস্তানের করাচির কারাগারে,
মুক্তিকামি মানুষ তখন যুদ্ধ করে
অদেশের স্বাধীনতা আর সার্ব ভৌম উদ্ধারে।
১০ই এপ্রিল ১৯৭১ সনে মুজিবনগর সরকারের প্রথম রাষ্ট্রপ্রতি
গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান,
নয় মাস যুদ্ধে পরাজিত তিরা নব্ববই হাজার পাকবাহিনী করে সারেন্ডার
স্বাধীনতার ঝান্ডায় পূর্ব বাংলার ঘরে ঘরে শান্তি বিরাজমান।
১০ই জানুয়ারী ১৯৭২ সনে মেখ মুজিবুর রহমানের
দেশের মাটিতে প্রেসিডেন্ট হিসেবে স্বদেশ প্রত্যাবর্তন,
ধন্যবাদ জানান ইন্দিরা গান্ধীসহ বন্ধু প্রতীম রাষ্ট্র প্রধানদের
যারা বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য দিয়েছেন পূর্ণ সমর্থন।
ঘরের শত্রæ বিভীষণ চিনতে পারলেননা
বিজয়ী বীর জাতির জনক,
কিছুদিনের মধ্যেই বুঝতে পারলেন তিনি
কারা করতে চায় দেশটাকে নরক।
চারপাশে তাঁর আনাগোনা শত মুখোশধারী
খন্দকার মোস্তাকের মতো হিং¯্র পশুর দল,
যাকেই করে বিশ্বাস সে-ই করে বিশ্বাস ঘাতকতা
ক্রমে ক্রমে হারায় নেতা স্বীয় মনোবল।
সদ্য স্বাধীন দেশের শৃঙ্খলা ফেরাতে তিনি
বরখাস্ত করেন তিন সামরিক অফিসার,
তারাই প্রতিশোধ নিতে হিং¯্র কাল হয়ে
বঙ্গ বন্ধুর জীবনকে করেন ছারখার।
মেলায় হাত করতে দখল বাংলার ক্ষমতা, খন্দকার মোস্তাক বুঝতে দেননি কাউকে
কতো জঘন্যতম হিং¯্র আর নীচ তার বংশ,
জাতির জনকের মন ভুলাতে তিনি একদিন
রান্না করে খাওয়ান সুস্বাদু হসের মাংস।
এমন আদর পেয়ে বিশ্বাস করেন সবাইকে যিনি
তিনি কি কখনও হতে পারেন শত্রæর চালে বন্দী?
খন্দকার মোস্তাক আর স্বাধীনতা বিরোধীরা
সর্বদা শেখ মুজিবকে সরাতে করে নানা ফন্দি।
মোস্তাকসহ কিছু মার্কিন পন্থি আওয়ামী লীগ নেতা
চৌদ্দশত সৈনিকের সমর্থনে বিশ ত্রিশ জন মেজর মধ্য রাতে
ধনমন্ডির বত্রিশ নম্বর বাড়িতে চালায় চরম বর্বরতা।
১৯৭৫ সনের ১৫ আগস্ট খুনিরা গুলি ছুঁড়ে হত্যা করে
জাতির জনক বঙ্গ বন্ধুসহ আত্মীয় স্বজন মিলে সতের জনকে,
দশ বছরের শিশু রাসেলও সেদিন রক্ষা পায়নি
কান্নাকাটি করেও ঘাতকের নির্মম বুলেট থেকে।
বঙ্গ বন্ধু হত্যাকান্ড প্রাক্তন সৌভিয়েত ইউনিয়ন আর
মার্কিন যুক্তরাষ্টের মতো পরাশক্তি বিশ্ব রাজনীতির শিকার,
১৫ আগস্টে আজ ব্যথায় জর্জরিত আমরা মুজিব ভক্ত
বাংলাদেশের কোটি কোটি পরিবার।

কবি: আবদুল মান্নান,প্রধান শিক্ষক ,রাজানগর সৈয়দপুর ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয় সিরাজদীখান, মুন্সীগঞ্জ।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here