জিয়াউর রহমান স্বাধীনতার ঘোষণা না দিলে বাংলাদেশের প্রেক্ষাপট ভিন্ন হতো…..আব্দুল্লাহ আল নোমান

0
18
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর ( সংবাদ বিজ্ঞপ্তি):আজ রবিবার সকালে জাতীয় প্রেসক্লাব জহুর হোসেন চৌধুরী হলে জিয়াউর রহমান সমাজকল্যাণ পরিষদ (জিসপ) এর উদ্যোগে স্বাধীনতার ঘোষক, বহুদলীয় গণতন্ত্রের প্রবক্তা, আধুনিক ও স্বনির্ভর বাংলাদেশের স্বপ্নদ্রষ্টা শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান এর ৪১তম শাহাদত বার্ষিকী উপলক্ষে দোয়া ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। (জিসপ) কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সভাপতি এম গিয়াস উদ্দিন খোকন এর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট মোঃ কামাল হোসেনের পরিচালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাবেক মন্ত্রী ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান জননেতা আবদুল্লাহ আল নোমান। তিনি বলেন, মেজর জেনারেল জিয়াউর রহমান সেদিন স্বাধীনতার ঘোষণা না দিলে বাংলাদেশের প্রেক্ষাপট ভিন্ন হতো। জিয়াউর রহমানের স্বাধীনতার ঘোষণার মধ্যদিয়ে এদেশের মুক্তিযুদ্ধ শুরু হয় এবং ৯ মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের মধ্যদিয়ে বাংলাদেশ স্বাধীনতার স্বাদ গ্রহণ করেন। কারো ৭ই মার্চের বক্তব্যের মাধ্যমে এদেশ স্বাধীনতা অর্জিত হয়নি। চট্টগ্রাম কালুরঘাট বেতার কেন্দ্র থেকে প্রথমে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান পাকিস্তানের বিরুদ্ধে রিবোর্ড বলে স্বাধীনতার ঘোষণা দেন। জাতি যখন পথহারা অন্ধকারে নিমজ্জিত ছিলেন ১৯৭১ সালে, তখন একবার জিয়াউর রহমান বাংলার আকাশে ধুমকেতুর মতো আবির্ভূত হন। দ্বিতীয়বার ১৯৭৫ সালের ৭ই নভেম্বর সিপাহী বিপ্লবের মাধ্যমে আবার পথহারা জাতিকে আলোর পথ দেখান। তিনি বহুদলীয় গণতন্ত্রের প্রতিষ্ঠাতা। আজকের আওয়ামী লীগ জিয়াউর রহমানের হাত ধরে এদেশের রাজনীতি করার সুযোগ পান।
প্রধান আলোচক ছিলেন সাবেক মন্ত্রী ও ভাইস চেয়ারম্যান জননেতা বরকত উল্লাহ বুলু। তিনি বলেন, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার যে উপাধি আজ আমরা ব্যবহার করি কোত্থেকে কিভাবে আসলো। ইত্তেফাকের একজন সিনিয়র সাংবাদিক নাজিম উদ্দিন মোস্তাক বিভিন্ন উপাধি দেখালে তার মধ্য থেকে দেশনেত্রী উপাধি শব্দটি তিনি পছন্দ করেন। তখন চট্টগ্রাম লালদিঘির এক জনসভা থেকে আব্দুল্লাহ আল নোমান বেগম খালেদা জিয়াকে দেশনেত্রী উপাধি ঘোষণা করেন। তখন থেকেই বেগম খালেদা জিয়ার নামের সাথে দেশনেত্রী শব্দটি আষ্টেপিষ্ঠে জড়িয়ে আছে। তিনি আরো বলেন, শহীদ রাষ্ট্রপতি তলাবিহীন রাষ্ট্রকে খাদ্যে স্বয়ং সম্পূর্ণ করেন। তিনিই সর্বপ্রথম বাংলাদেশের জনশক্তিকে মধ্যপ্রাচ্যসহ বিভিন্ন দেশে প্রেরণ করেন এবং পোশাক শিল্পকে রপ্তানীযোগ্য করার জন্য সর্বপ্রথম কাজ করেন। বাংলাদেশকে ইমার্জিং টাইগারে নিয়ে যেতে বিশেষ ভূমিকা পালন করেন।
বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি কাদের গনি চৌধুরী, জাতীয়তাবাদী মৎস্যজীবী দলের সদস্য সচিব আব্দুর রহিম। তাছাড়াও বক্তব্য রাখেন কৃষক দলের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক শাজাহান মিয়া সম্রাট, ওমর ফারুক পাটোয়ারী, অধ্যক্ষ সেলিম মিয়া, জাহাঙ্গীর আলম সনি, তাঁতী দলের যুগ্ম আহ্বায়ক ড. মনিরুজ্জামান মনির, জিসপ’র সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট মোঃ কামাল হোসেন, সহ-সভাপতি মোঃ আলী মন্ডল, মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, মঞ্জুর রহমান ভূইয়া, মোঃ হোসেন, মোহাম্মদ হোসেন, মজিবুর রহমান রতন, রেজাউল করিম, সালাউদ্দিন গাজী, এম এ হান্নান, কে এম রকিবুল ইসলাম রিপন, দিদার মনির, কাজী ফখরুল ইসলাম, মোঃ শাহাদাত হোসেন, মোঃ টিপু সুলতান, নাজমা সিকদার, নিলুফা ইয়াসমিন সহ প্রমুখ। দোয়া ও মোনাজাত পরিচালনা করে ক্বারী রফিকুল ইসলাম।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here