জ্বালানি ও নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের অস্বাভাবিক ঊর্ধ্বগতির প্রতিবাদে মানববন্ধন

0
23
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর সংবাদ বিজ্ঞপ্তি : ‘একটা জাতির ধ্বংস অনিবার্য তখন হয়, যখন সে জাতির শিক্ষাকে ধ্বংস করা হয়। আপনারা জানেন সংসদে সংসদ সদস্যরা এ বিষয়ে বক্তব্য রেখেছেন। একটা বিশেষ গোষ্ঠীর পক্ষে প্রাইমারি থেকে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যন্ত বইগুলোকে কিভাবে পরির্বতন করা হয়েছে। যার মাধ্যমে আমি মনে করি জাতি ধ্বংসের দিকে পতিত হচ্ছে।
আপনার উন্নয়নের চাকায় গার্ডার পরে মানুষ মারা যায়। আপনার উন্নয়নের চাপায় তেল এখন ১৩৫ টাকা। উন্নয়নের চাপায় ডিম এখন ১৪ টাকা পিস। চেয়ে দেখেন আপনার জনগণ কি খায়। আমরা চাই না আমাদের দেশ শ্রীলঙ্কার দিকে যাক। আমরা চাই আমাদের দেশ ইউরোপ, আমেরিকার মতো হোক। আপনি আমাদের ভোটাধিকার, গণতন্ত্র, স্বাধীনতা, বাক স্বাধীনতা ফিরিয়ে দেন। গুম খুন বন্ধ করুন। আর এগুলো না করলে এখনকার যে পরিস্থিতি তার চেয়ে ভয়ঙ্কর পরিস্থিতি অপেক্ষা করছে।
আওয়ামী লীগ সরকার একটি বিনা ভোটের সরকার সরকারের জনগণের প্রতি কোন দায় দায়িত্ব নাই।
দেশ ভয়াবহ সংকটের দিকে ধাবিত হচ্ছে। দেশে যে বিদ্যুৎ-সংকট চলছে, তাতে জনমনে নাভিশ্বাস উঠেছে। ধারণা করা হচ্ছে, এ সংকট গভীর থেকে গভীরতর হবে। চলমান বিদ্যুৎ-সংকটের কারণে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে কৃষি উৎপাদন ব্যাহত হওয়ার সংবাদ আসছে বিভিন্ন গণমাধ্যমে। এর মধ্যে সার উৎপাদন কমানো হয়েছে। অচিরেই দেশে খাদ্যসংকট দেখা দিতে পারে। সরকারের বিভিন্ন মহল উদ্ভূত পরিস্থিতির জন্য আন্তর্জাতিক বাজার দামের ঊর্ধ্বমুখিতাকে দায়ী করছে। মূলত এ পরিস্থিতির জন্য সরকারের লোকজনের দুর্নীতি-লুটপাট, ভুল নীতি ও অব্যবস্থাপনা দায়ী।
এ সরকার একক রাম রাজত্ব কায়েম করেছে। তার প্রমাণ হাজারো। এ দেশ থেকে হাজার নয় লাখ লাখ কোটি টাকা পাচার হয়েছে এবং এ পাচারকারীরা কারা এটা সবাই জানে। ৫ বছর আগে প্রধানমন্ত্রীর একজন মন্ত্রী সংসদে দাঁড়িয়ে বলেছিলেন ব্যাংকিং সেক্টরে পুকুর নয় সাগর চুরি হয়েছে। সেই সাগর চোররা কারা এটাও সবাই জানে।
এসব ক্ষেত্রে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা নিষ্ক্রিয় থাকে। তাদের যেখানে সক্রিয় হওয়ার কথা, সেখানে নিষ্ক্রিয় থাকা, আর যেখানে নিষ্ক্রিয় থাকার কথা, সেখানে অতি সক্রিয় হওয়া আইনের শাসন কিংবা গণতন্ত্রের সহায়ক নয়।
নির্বাচনের সময় এগিয়ে আসছে। এমন অবস্থায় সুষ্ঠু রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিশ্চিত করার স্বার্থে বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোর কর্মসূচি ও সভা-সমাবেশ যেন কোনোভাবেই বাধাগ্রস্ত না হয়, তা নিশ্চিত করতে হবে। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ একটি রাজনৈতিক দল হিসেবে যে সুযোগ-সুবিধা পায়, বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোর তা পাওয়ার অধিকার রয়েছে। এটা সংবিধান স্বীকৃত অধিকার। কোনো সুনির্দিষ্ট অভিযোগ না থাকলে বিরোধীদলীয় নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে আর কোনো অহেতুক মামলা দায়ের ও গ্রেপ্তার নয়।
এই অবৈধভাবে ক্ষমতায় টিকে থাকা যায় তার গোপন ছক তৈরি করে ফেলেছে। তাই আমি মনে করি সরকার বিরোধী যে আন্দোলন হতে যাচ্ছে সেই আন্দোলনে আমাদের সকলকে অংশ্রগ্রহণ করা
এতে উপস্থিত ছিলেন দলের মহাসচিব মোশারফ হোসেন এবং কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব এবং প্রগতিশীল এর চেয়ারম্যান ফিরোজ মোঃ আলম লিটন উপস্থিত ছিলেন এবং বিভিন্ন রাজনিতক দলের নেতৃবৃন্দ।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here