ঝুট ব্যবসা বন্ধ: শ্রীপুরে বিপাকে পড়েছে অধিকাংশ পোশাক কারখানা

0
268
728×90 Banner

শ্রীপুর (গাজীপুর)প্রতিনিধি: গাজীপুরের শ্রীপুরে বিভিন্ন পোশাক কারখানায় পরিত্যক্ত ওয়েষ্টিজ (ঝুট) ব্যবসা নিয়ে সরকার দলীয় ২ গ্রুপের কোন্দলের কারণে অধিকাংশ কারখানায় গোডাউনে জমা পড়ে রয়েছে শত শত টন মালামাল। এতে করে বেশীর ভাগ কারখানায় অগ্নিকান্ডের মত বড় ধরনের দূর্ঘটনার আশঙ্কা রয়েছে।
সোমবার সরেজমিনে কয়েকটি কারখানার কর্তপক্ষের সাথে কথা বলে জানা যায়, উপজেলার প্রায় ২ শতাধিক কারখানার ওয়েষ্টিজ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর থেকে বিক্রি করতে পারছে না। বেশির ভাগ কারখানার পূর্বের এমপি এড.রহমত আলীর অনুসারীরা ওয়েষ্টিজ ব্যবসা নিয়ন্ত্রন করতেন। বর্তমান আওয়ামীলীগের নব নির্বাচিত এমপি মুহাম্মদ ইকবাল হোসেন (সবুজ) নির্বাচিত হওয়ার পর তাঁর অনুসারীরা শ্রীপুরের বিভিন্ন ওয়েষ্টিজ কারখানা থেকে বাহির করতে বাঁধা দিচ্ছে। এ নিয়ে কিছু দিন ধরে তাদেরই মধ্যে কয়েক দফা সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।
সংর্ঘষের ঘটনায় শ্রীপুর থানায় এমসি বাজার এলাকার আকলীমা চিড়া মিলের ব্যবস্থাপক বাদী হয়ে একটি মামলা করেছেন। ক্ষমতার পালা বদলের কারণে কারখানার ওয়েষ্টিজ ব্যবসা বন্ধ হয়ে রয়েছে। এদিকে বেশ কতগুলোর কারখানার গোডাউনের জায়গা পরিপূর্ণ হয়ে গেছে। এখন তারা কারখানার চার পাশে ওয়েষ্টিজ বস্তার বস্তা রেখে দিয়েছেন। পরিত্যক্ত অবস্থায় ওয়েষ্টিজ ফেলে রাখায় কোঁয়াশায় ভিজে ধুলো বালিতে পড়ে ব্যবহারের অনুপোযোগী হয়ে পড়ছে। এগুলো বিক্রি করতে না পারলে কারখানা গুলো বেশ বড় ধরনের আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হয়ে পড়বে।
উপজেলার টেপিরবাড়ি গ্রামে অবস্থিত ভিয়েলাটেক্স ইউনিট-২ নামে একটি সুতা তৈরি কারখানার ব্যবস্থাপক এসএম সারোয়ার জাহান বলেন, আমাদের কারখানার গোডাউনে মাত্র কয়েক টন ওয়েষ্টিজ রাখার ধারণ ক্ষমতা রয়েছে। কিন্তু বর্তমানে ১২০ টন ওয়েষ্টিজ মালামাল জমে রয়েছে। ইনসাফ এন্টার প্রাইজ নামে একটি প্রতিষ্ঠানের মালিক আনোয়ার হোসেনের মাধ্যমে ওয়েষ্টিজ বিক্রি করে থাকি। তবে তাঁরা প্রায় ১ মাস ধরে ওয়েষ্টিজ নিতে পারছেন না অভ্যান্তরীন কোন্দলের কারণে। তিনি আরো বলেন, যারা আমাদের সাথে ব্যবসায়ী চুক্তির করেছিলেন তাঁরা পূর্বের সাংসদ এড.রহমত আলীর অনুসারী। তবে নব-নির্বাচিত এমপি মহোদয়ের অনুসারীরা তাদের ঝুট নিতে বাঁধা দিচ্ছেন।
একই মত প্রকাশ করে মুলাইদ এলাকার ইউনিগেলারী সাইকেল ইন্ড্রাস্ট্রিজ কারখানার ব্যবস্থাপক (হিসাব বিভাগ) আনিছুর রহমান খান বলেন, নির্বাচনের আগ থেকে কোন ওয়েষ্টিজ বাহির করতে পারছি না। আমাদের কোম্পানীর সাথে চুক্তিকৃত প্রতিষ্ঠান ওয়েষ্টিজ বাহির করতে গেলেই সংর্ঘের সৃষ্টির আশঙ্কা রয়েছে। মুলাইদ রঙ্গিলার এলাকার আনোয়ারা নীট কম্পজিট কারখানার ব্যবস্থাপক (প্রশাসন ও মানবসম্পদ) দোলয়ার হোসেন ভূঁইয়াসহ বিভিন্ন কারখানার ব্যবস্থাপকরা জানান নির্বাচনের পর থেকে এখন পর্যন্ত শতশত টন ওয়েষ্টিজ কারখানায় স্তুপ পরে রয়েছে,ঝুকিতে রয়েছে কারখানাা।
শ্রীপুর ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের স্টেশন অফিসার আল-আমিন বলেন, টেক্সটাইল স্পিনিংসহ বিভিন্ন পোশাক কারখানার যত ওয়েষ্টিজ কম রাখা যাবে কারখানা ততই নিরাপদ থাকবে। এই পর্যন্ত শ্রীপুরে যত গুলো কারখানায় আগুন লেগেছে বেশীর ভাগই ওয়েষ্টিজ থেকে হয়েছে। সামন্য একটু ভুলের জন্য পুরো কারখানা পুড়ে ছাই হয়ে যেতে পারে। তিনি আরো বলেন, ওয়েষ্টিজ থাকলে সেই আগুন নেভাতে অনেক সময় লাগে। কারখানার চার পাশে ওয়েষ্টিজ থাকা মানে কারখানা অগ্নিকান্ডের ঝুঁকিতে থাকে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here