টঙ্গীতে জুট ব্যবসার নিয়ন্ত্রণকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের সংঘর্ষ নিহত-১,আহত-১০

0
635
728×90 Banner

মৃণাল চৌধুরী সৈকত: গাজীপুর মহানগরের টঙ্গী পশ্চিম থানা এলাকার কাঁঠাল দিয়ার বিভিন্ন মিল কল-কারখানার জুট ব্যবসার নিয়ন্ত্রণ ও আধিপত্ত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে আওয়ামীলীগ ও যুবলীগ সমর্থিত দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। সংঘর্ষে যুবলীগ সমর্থিত শিমুল চৌধুরী শুভ (২৭) নামে এক যুবক নিহত ও ৬ যুবক আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে পাভেল ও রুবেলের অবস্থা আশংকাজনক বলে জানা গেছে।
স্থানীয় বিভিন্ন তথ্যসূত্রে জানা যায়, ৫৩ নং ওয়ার্ড এর সাবেক কাউন্সিলর ও আওয়ামীলীগ নেতা মো. সেলিম মিয়া ও মহানগর যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক মো. সাইফুল ইসলামের মধ্যে গত কয়েক দিন যাবৎ স্থানীয় বিভিন্ন মিল-কলকারখানার জুট ও পরিত্যক্ত মালামাল এবং একটি পলিমার কারখানার ড্রাম উত্তোলনকে কেন্দ্র করে বিরোধ চলে আসছে। উক্ত বিরোধের জের ধরে গত বুধবার রাতে সাইফুল ইসলাম সমর্থিত চেরাগআলী ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি আফজালের নেতৃত্বে ট্রাকযোগে শিমুল চৌধুরী, পাভেল, রুবেলসহ ১৫/২০ জন যুবক কাঁঠালদিয়া ঈদগা মাঠ পৌছালে সেলিম মিয়ার ছোট ভাই মামুনের নেতৃত্বে মেহেদি, মাসুম, রাশেদ,অনিকসহ অর্ধশত যুবক মিলে তাদের উপর অর্তকিতে হামলা চালায়। ফলে উভয় গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের সৃষ্টি হয়। সংঘর্ষে সাইফুল ইসলাম সমর্থক শিমুল চৌধুরী, পাভেল, রুবেলকে ছোঁরাকাঘাত ও পিটিয়ে গুরত্বর আহত করে সেলিম মিয়ার সমর্থকরা। খবর পেয়ে টঙ্গী পশ্চিম থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে তাদের নিয়ন্ত্রণ করে এবং আহতদের উদ্ধার রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করেন। রাত দেড়টায় ঢাকার ট্রমা সেন্টারে চিকিৎসাধীন অবস্থায় লক্ষিপুর জেলার রামগতি-বিবির হাট (চর রমিজ উদ্দিন) গ্রামের বাসিন্দা জাহেদ চৌধুরী ওরফে গাওহার চৌধুরীর ছেলে শিমুল চৌধুরী শুভ মারা যায়। শিমুলের মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করে। ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। অপরদিকে পাভেল ও রুবেল আশংকাজনক অবস্থায় উত্তরার ক্রিসেন্ট হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। আহত অন্যান্যরা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছে।
একটি বিশেষ সূত্র জানায়, গত সিটি নির্বাচনে সাইফুল ইসলাম ও তার লোকজন স্থানীয় ৫৩ নং ওয়ার্ডের বর্তমান কাউন্সিলর মো. সোলেমান হায়দারের পক্ষে নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নিয়ে তাকে সমর্থন দেয়ায় আওয়ামীলীগ নেতা ও নির্বাচনে পরাজিত সাবেক কাউন্সিলর মো. সেলিম মিয়া ক্ষীপ্ত হয়। এদিকে সেলিম মিয়া কাউন্সিলর থাকা অবস্থায় উক্ত এলাকায় জুট ব্যবসাসহ একটি পলিমার কারখানা একক ভাবে নিয়ন্ত্রণ করতেন সেলিম মিয়া। এছাড়া মো. সোলেমান হায়দার নির্বাচনে কাউন্সিলর পদে বিজয়ী হওয়ার পর থেকে উক্ত এলাকার মিল-কলকারখানার জুট ও পরিত্যক্ত মালামালসহ একটি পলিমার কারখানা নিয়ন্ত্রনে নিতে সাইফুল ইসলাম সমর্থকরা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। দীর্ঘদিনের বিরোধের জের ধরে সাবেক কাউন্সিলর সেলিম মিয়ার লোকজন গত মঙ্গলবার সকালে সাইফুল ইসলাম সমর্থক ও ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের ড্রাইভারকে তার ট্রাকে ন্যাশনাল পলিমারে ড্রাম উঠানোকে কেন্দ্র করে মারধর করে। এঘটনায় সাইফুল ইসলাম সমর্থক ট্রাক শ্রমিকরা ক্ষিপ্ত হয়ে সংঘবদ্ধভাবে চেরাগালী এলাকায় ঢাকা ময়মনসিংহ মহাসড়ক অবরোধ করে এবং গত বুধবার সকালে চেরাগআলী সাত্তার মার্কেটে সেলিম মিয়ার এক সমর্থকের দোকান ভাংচুর করে এবং সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টায় আফজালের নেতৃত্বে সাইফুলের বাসায় যাওয়ার পথে সেলিমের ভাই মামুনের নেতৃত্বে এঘটনা ঘটায় বলে একাধিক সুত্র জানায়।
এব্যাপারে গাজীপুর জেলা ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি আফজাল হোসেন তার মুঠোফোনে জানান, আমরা বেশ কিছু শ্রমিক নিয়ে সাইফুলের বাসায় যাওয়ার সময় সাবেক কাউন্সিলর সেলিমের ভাই মামুনের নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী আমাদের উপর হামলা করে এবং মামুন আমাকে প্রথমে আঘাত করেছে। তারা জানতে চায় আমরা কোথায় যাচ্ছি ? সাইফুলের নাম বলায় তারা আমার সাথে থাকা লোকজনকে এলোপাথারী মারধর করেও ধাঁরালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে এবং এতে শিমুল মারা যায়। আরো কয়েকজন গুরত্বর আহত হয়।
এব্যাপারে অভিযুক্ত মহানগর স্বেচ্ছা সেবক লীগের সহ-সভাপতি ও সাবেক কাউন্সিল সেলিম মিয়ার ছোট ভাই মামুন জানান, আমাকে জড়িয়ে মিথ্যা অপ-প্রচার চালানো হচ্ছে। সাইফুল ইসলাম দীর্ঘদিন যাবৎ ন্যাশনাল পলিমার দখল করে খাচ্ছে। এলাকায় আরো তো নেতা আছে ? এটা সাইফুল ইসলামের একটা কৌশল। এঘটনা সাইফুল ও তার লোকজন ঘটিয়ে আমাদেরকে মামলা দিয়ে আমাদের এলাকা ছাড়া করে সে একক আধিপত্ত্য বিস্তারের চেষ্টা করছে। আমি ঘটনার সাথে জড়িত কি না তা এলাকায় এসে জেনে নিন।
এব্যাপারে সাবেক কাউন্সিলর ও আওয়ামীলীগ নেতা মো. সেলিম মিয়ার সাথে তার মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আমার সাথে কারো কোন বিরোধ নাই। আমি ঘটনার প্রায় আধাঘন্টা পর ঘটনাস্থলে পৌঁছেছি, আমার ভাই জড়িত আছে কি না তার কোন আলামত পাইনি। যারা আমার ভাইয়ের নাম বলছে তারা এটা ষড়যন্ত্র করছে। আপনারা এলাকায় এসে তথ্য সংগ্রহ করুন। এর বাইরে আমার বলার নাই।
এবিষয়ে জানতে চাইলে মহানগর যুবলীগের এক নম্বর যুগ্ম আহবায়ক সাইফুল ইসলাম জানান, ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের শ্রমিকসহ শিমুল চৌধুরী, পাভেল, রুবেলসহ ১৫/২০ জন আমার বাসায় আসার সময় সেলিম মিয়ার লোকজন তাদের উপর অর্তকিতে হামলা করে। এতে শিমুল চৌধুরী আহত হয়ে ঢাকার ট্রমা হাসপাতালে মারা যায়। এখানে জুট বা মালামাল সংক্রান্ত কোন ঘটনা ঘটেনি।
এব্যাপারে টঙ্গী পশ্চিম থানার অফিসার্স ইনচার্জ মো. এমদাদ এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, সাইফুল ও সেলিম গ্রুপের মধ্যে মারামারি হয়েছে। শিমুল নামে একজন মারা গেছে। লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়েছে। স্থানীয় আধিপত্ত্যকে কেন্দ্র করে কি না- নাকি অন্য কোন কারণে এ ঘটনা ঘটেছে তা তদন্ত করা হচ্ছে। ঘটনার সাথে জড়িতদের খোঁজে বের করে অবশ্যই আইনের আওতায় আনা হবে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here