টঙ্গীতে টিএন্ডটি বাজার কমিটির সভাপতিকে লাঞ্চিত, এলাকায় উত্তেজনা

0
434
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক: টঙ্গীর টিএন্ডটি বাজারে একজন শ্রমিকের বেতন আত্বসাৎকে কেন্দ্র করে স্থানীয় কাউন্সিলরের সামনেই দু-গ্রুপের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে। কাউন্সিলরের সামনে সাদ্দাম নামে স্থানীয় এক সন্ত্রাসী টিএন্ডটি বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি নবীন হোসেন ও ব্যবসায়ী আল-আমীনকে মারধর করেছে। এখবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে নবীন হোসেনের সমর্থকরা একত্র হয়ে ঘটনার সাথে জড়িত সাদ্দাম ও বিপ্লবকে প্রায় ৪ ঘন্টা অবরুদ্ধ করে রাখে স্থানীয় লোকজন। খবর পেয়ে টঙ্গী থানা পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনেন এবং রাত প্রায় ২ টায় উভয়পক্ষকে সামনে রেখে স্থানীয় দুই কাউন্সিলরসহ স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতে বিষয়টি দ্রুত সমাধান দেয়ার শর্তে উভয়পক্ষকে শান্ত করা হয়েছে।
উপস্থিত স্থানীয় লোকজন জানায়, রিয়াজুল হাসান নামে এক দিনমুজুর স্থানীয় হান্নানের বাড়িতে কাজ করে। গত রোববার রাত ৯ টায় হান্নানকে টিএন্ডটি বাজারে পেয়ে ওই শ্রমিক কাজের মুজুরী পরিশোধের দাবী জানায়। এসময় বাড়িওয়ালা হান্নান ক্ষীপ্ত হয়ে ওই শ্রমিকে মুজুরী না দিয়ে উল্টো তাকে মারধর করে। এনিয়ে শ্রমিক রিয়াজুল ও বাড়িওয়ালা হান্নানের মধ্যে বাকবিতন্ডা সৃষ্টি হলে শ্রমিক রিয়াজুল স্থানীয় কাউন্সিলর সাদেক মিয়ার কাছে গিয়ে বিচার প্রাথী হয়। এদিকে হান্নান তার ছেলে ইভানকে বিষয়টি জানিয়ে দ্রুত লোকজন নিয়ে টিএন্ডটি বাজারে আসতে বলে। ইভান এখবর পেয়ে তার সহযোগী সাদ্দাম হোসেন মজুমদার, বিপ্লব মজুমদার, জীবনসহ ১৫২০ জন যুবককে সাথে নিয়ে কাউন্সিলর সাদেক মিয়ার অফিসে গিয়ে রিয়াজুলের উপর হামলা চালায় এবং বেদম মারধর করে গুরতর আহত করে। তাকে টঙ্গী সরকারী হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। এসময় সেখানে কাউন্সিলর সাদেক ও মাজহারুল ইসলাম দিপুসহ বাজার কমিটির সভাপতি নবীন সেখানে উপস্থিত ছিলেন। এসময় ঘটনার প্রতিবাদ করায় সাদ্দাম কাউন্সিলরের উপর দিয়ে নবীন ও আল-আমীনকে কিলঘুষি মেরে আহত করে। এখবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে এলাকার কয়েকশত লোক সাদ্দাম ও বিপ্লবকে আটক করে প্রায় ৪ ঘন্টা অবরোধ করে রাখে পরে পুলিশ সহায়তায় পরিস্থিতি শান্ত হয়। এঘটনায় এলাকায় উভয় পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে।
এব্যাপারে সাদ্দাম মজুমদারের পিতা মনির মজুমদারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, নবীনের সাথে রাসেলের কথাকাটাকাটি হলে উত্তরা থেকে সাদ্দাম এসে সেখালে অনেক লোকজন দেখে বিষয়টি জানতে চাইলে নবীনের সাথে সাদ্দামের হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে। পরে স্থানীয় দুই কাউন্সিলর ছাদেক ও দিপুর সহযোগীতায় স্থানীয় পুলিশ ও প্রতিমন্ত্রী মহোদয়ের হস্তক্ষেপে তা মিমাংশা করা হয়েছে।
এব্যাপারে কাউন্সিলর সাদেক হোসেনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, একটি তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে মনির মজুমদারে ছেলে সাদ্দাম ও বিপ্লব মজুমদার এলাকায় এসে দরিদ্র মানুষের উপর হামলা চালায় প্রতিবাদ করতে গিয়ে হট্রগোলের সৃষ্টি হয়। পরে আমরা প্রতিমন্ত্রী মহোদয়ের নির্দেশে তা মিমাংশা করে দিয়েছি।
টঙ্গী থানার অফির্সাস তদন্ত মো. জাহিদ হোসেন উপরোক্ত ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here