টঙ্গীতে বিএনপির দু’পক্ষের সংঘষর, আহত ২

0
83
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক :গাজীপুরের টঙ্গীতে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে গাজীপুর সিটির ৫৫ নং ওয়ার্ড থেকে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীকে জেতাতে আ’লীগ-বিএনপির (একাংশ) সমঝোতা বৈঠককে কেন্দ্র করে বিএনপির দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে ২ জন আহত হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকেলে স্থানীয় কো-অপারেটিভ সোসাইটি মার্কেটে এ ঘটনা ঘটে। এ খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়।
আহতরা হলেন, টঙ্গী থানা মৎস্যজীবি দলের সাবেক সভাপতি আমির হোসেন ও টঙ্গী পশ্চিম থানা যুবদলের যুগ্ম আহবায়ক আব্দুর রহমান বাবু।
আহত আমির হোসেন জানান, বুধবার বিকেলে মিলগেট এলাকায় ৫৫নং ওয়ার্ড থেকে গাজীপুর-২ আসনের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেলকে জেতাতে আ’লীগ-বিএনপির (একাংশ) বৈঠক হয়। বৈঠকে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী ও ৫৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও টঙ্গী পশ্চিম থানা বিএনপির আহবায়ক সদস্য (বহিস্কৃত) আবুল হাসেমের অনুসারিরা উপস্থিত ছিলেন। এ নিয়ে বৃহস্পতিবার বিকেল ৪টার দিকে সে কো-অপারেটিভ সোসাইটি মার্কেটে বাবুর সাথে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে বাবুসহ ২-৩জন তাকে এলোপাতাড়ি কিল-ঘুষি মারতে থাকে এবং তার পড়নের কোট ছিড়ে ফেলে। নিজেকে বাচাঁতে সে পাশের আলাল মোল্লার দোকেনে গিয়ে আশ্রয় নিলে সেখানে গিয়েও তাকে মারতে উদ্যত হয়।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ২০২৩ সালে অনুষ্ঠিত গাজীপুর সিটি নির্বাচনে টঙ্গীর ৫৫ নম্বর ওয়ার্ডে কাউন্সিলর নির্বাচিত হন গাজীপুর মহানগর বিএনপির সাবেক সদস্য (বহি:স্কৃত) আবুল হাসেম। জনশ্রুতি আছে, আবুল হাসেম আওয়ামীলীগের সাথে লিঁয়াজো করে কাউন্সিলর হয়েছেন। বর্তমানে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী জাহিদ আহসান রাসেলের পক্ষে কাজ করে প্রতিদান দেয়ার জন্য বুধবার বিকেলে মিলগেট এলাকায় নৌকা প্রতীকের নেতৃবৃন্ধের সাথে বিএনপির কাউন্সিলর আবুল হাসেমপন্থীদের একটি গোপন বৈঠক হয়। বৈঠকে জাহিদ আহসান রাসেলের চাচা গাজীপুর মহানগর আওয়ামীলীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান মতিসহ সিনিয়র আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্ধ ও বিএনপির কাউন্সিলর আবুল হাসেমের নেতৃত্বে বিএনপির একটি পক্ষ ৫৫নম্বর ওয়ার্ডে নৌকার পক্ষে কাজ করার সিদ্ধান্ত নেয়। বৈঠকের একটি উপস্থিতি তালিকা পাওয়া গেছে। তালিকায় আওয়ামীলীগ ও বিএনপি উভয় পক্ষের ২৭জন করে মোট ৫৪ জনের নাম লেখা হয়েছে। এ বিষয়ে বিএনপির দুই পক্ষের মধ্যে মতবিরোধ ও উত্তেজনা দেখা দেয়। এ নিয়ে কাউন্সিলর আবুল হাসেমের ঘনিষ্ঠ লোক আব্দুর রহমান বাবুর সাথে আমিরের কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে দুই জনের মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধে। এতে দুই জনই আহত হয়। স্থানীয় লোকজন থামিয়ে দিলে সংঘর্ষ বড় আকার ধারণ করেনি।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক আওয়ামী লীগ নেতা জানান, বৈঠকে আমি উপস্থিত ছিলাম। কাউন্সিলরের নির্বাচনে ও তার মামলা মোকাদ্দমার বিষয়ে আওয়ামীল নেতারা সহযোগিতা করেছে। এখন প্রতিদান হিসেবে সংসদ নির্বাচনে সহযোগিতা চেয়েছেন।
ওই বৈঠক ও মারামারির সময় উপস্থিত থাকা স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতা আব্দুল হান্নান জানান, বৈঠকের বিষয় নিয়ে কথা কাটাকাটি ও হাতাহাতি হয়েছে।
টঙ্গী পশ্চিম থানা যুবদলের যুগ্ম আহবায়ক আব্দুর রহমান বাবু বলেন, বৈঠকের বিষয় নিয়ে কথা কাটাকাটির সময় ভ্যান গাড়ির উপর পড়ে নাকে আঘাত পেয়েছি।
৫৫নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও বিএনপির বহিস্কৃত সাবেক নেতা আবুল হাসেম মুঠোফোনে জানান, একজন বিশেষ ব্যক্তির ফোনে আমি বৈঠকে গিয়েছিলাম। গিয়ে দেখি ভোটের সভা চলছে। আমার কাছেও তারা ভোট চেয়েছে। সেখানে কোন সমঝোতা হয়নি। আমির হোসেন একটু ভিন্ন রকম লোক। সে যুবদল নেতা বাবুর নাক ফাটিয়ে দিয়েছে। দুই জনই আহত হয়েছেন।
এ বিষয়ে বৈঠকে উপস্থিত টঙ্গী থানা আওয়ামী লীগের সাবেক সহসভাপতি মনির আহম্মেদ বলেন, বৈঠকটা গোপনীয় ছিল না। প্রকাশ্যেই হয়েছে। হাসেম কাউন্সিলরকে বিজয়ী করতে আমরা সহযোগিতা করেছি। এখন তিনি আমাদেরকে সহযোগিতা করছেন। এটা গোপন কোন বিষয় নয়।
এ বিষয়ে টঙ্গী পশ্চিম থানার অফিসার ইনচার্জ সাখাওয়াত হোসেন যুগান্তরকে বলেন, বৈঠকে বিষয়ে আমি কিছু জানিনা।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here