টঙ্গীতে সন্ত্রাসী হামলায় যুবলীগ নেতা নিহত :সড়ক দুর্ঘটনা বলে চালিয়ে দেওয়ার চেষ্টা

0
31
728×90 Banner

অলিদুর রহমান অলি: গাজীপুর মহানগরের টঙ্গী ৫৪নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুল ইসলাম (৪৮) সন্ত্রাসীদের হামলায় নিহত হয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। গত রবিবার রাতে স্থানীয় আউচপাড়া সফিউদ্দিন রোডে ব্যবসায়ীক কাজে যাওয়ার পথে তিনি হামলার শিকার হন।
নিহত সাইফুলের স্বজনরা জানান, সাইফুল রবিবার রাত ৮টায় ব্যবসায়িক কাজে মোটরসাইকেল নিয়ে বের হন। তিনি রাত সোয়া ৮টায় সফিউদ্দিন একাডেমী রোডে বীর মুক্তিযোদ্ধা মাহফুজুর রহমানের বাড়ির সামনে পৌছালে কয়েকজন যুবক তার ওপর চড়াও হয়। সন্ত্রাসীদের হামলায় আহত সাইফুলকে উদ্ধার করে স্থানীয় একটি প্রাইভেট হাসপাতালে নেয়ার পর চিকিৎসকরা তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে টঙ্গী পশ্চিম থানার পুলিশ কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এসময় পুলিশ পাশের একটি বাড়ির সিসি টিভি ফুটেজ সংগ্রহ করে। তাতে দেখা যায়, দুই জন যুবক মোটরসাইকেল ঘুরিয়ে সাইফুলের কাছে যাচ্ছে। তৎক্ষনাৎ ঘটনাস্থলে কয়েকটি রিকশা আটকা পড়ে এবং লোকজন জড়ো হয়। ফুটেজে পথচারীদেরকে ভয়ে দ্রæত ঘটনাস্থল অতিক্রম করতেও দেখা গেছে।
স্থানীয়রা জানান, ওই মোটরসাইকেল আরোহী দুই যুবক টঙ্গী কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সদস্য। তাদের মধ্যে চালকের আসনে ছাত্রলীগ নেতা রাতুল ও পেছনের ছিটে ছাত্রলীগ নেতা তামীমকে স্থানীয়রা চিহ্নিত করেছেন। এব্যাপারে রাতুলের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তার মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। তবে ছাত্রলীগ নেতা তামীমের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘আমরা মোটরসাইকেল যোগে যাওয়ার পথে সাইফুল ভাইয়ের সাথে দুই জন যুবককে তর্ক করতে দেখি। পরে আমরা মোটরসাইকেল ঘুরিয়ে চলে যাই।’ সাইফুলের সাথে তর্কে লিপ্ত যুবকদের তিনি চিনেননি বলেও দাবি করেন। ঘটনাস্থলের পাশের দোকান মালিক বিল্লাল হোসেন বলেন, সাইফুল জোরে মোটরসাইকেলের হর্ণ বাজালে একযুবক প্রতিবাদ করেন। এ নিয়ে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে সাইফুল ওই যুবককে থাপ্পর মারেন। এর প্রতিশোধ নিতে ওই যুবক ও তার সহযোগীরা সাইফুলকে মারধর করে। সাইফুলের প্রতিবেশী বন্ধু মো. জালাল বলেন, সাইফুলকে ঘটনাস্থলে আহত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে পরিচিত একজন তাকে ফোনে বিষয়টি জানান। তিনি সাইফুলদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের এক কর্মচারীকে সাথে নিয়ে দ্রæত ঘটনাস্থলে ছুটে যান। সেখানে গিয়ে তাকে অচেতন অবস্থায় পান এবং তার নাক দিয়ে রক্ত ও মুখ দিয়ে লালা বের হতে দেখেন। এসময় ঘটনাস্থলে দাঁড়ানো একটি রিকশায় উঠিয়ে তাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় স্থানীয় ঢাকা ইম্পেরিয়াল হাসপাতালে নিয়ে যান। হাসপাতালের আইসিইউতে স্থানান্তরের পরক্ষনেই তিনি মারা যান। হাসপাতালে নেয়ার সময় ওই রিকশাচালক তাদেরকে জানান, তাকে (সাইফুলকে) অজ্ঞাত যুবকরা মারধর করে ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে গেছে।
এব্যাপারে লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন প্রস্তুতকারী টঙ্গী পশ্চিম থানার এসআই শুভ মন্ডল বলেন, নিহত সাইফুলের শরীরে আঘাতের কোনো চিহ্নিত পাওয়া যায়নি। যে রক্তের কথা বলা হচ্ছে সেটি সাইফুলের মুখ দিয়ে বের হওয়া পানের পিক বলে তিনি দাবী করেন। তবে গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদে মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক মেডিসিন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডাক্তার মোঃ শাফি মোহাইমেন বলেন, নিহতের ময়না তদন্তকালে শরীরে আঘাতের চিহ্ন ও বুকের নিচে জমাটবদ্ধ রক্ত পাওয়া গেছে।
নিহতের চাচাতো ভাই হাজী বাবলু বলেন, পুলিশ ইম্পেরিয়াল হাসপাতাল থেকে আমাদেরকে বের করে দিয়ে ঘটনাটি সড়ক দুর্ঘটনা বলে চালিয়ে দিতে উদ্দেশ্যমূলকভাবে ডাক্তারি সনদ নিয়েছে।
নিহত সাইফুল ইসলামের বড় ভাই মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, ঘটনার প্রকৃত রহস্য উদঘাটনের জন্য আমরা আইনশৃংখলা বাহিনীর কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি। লাশ দাফন কাফন শেষে আত্মীয় স্বজনের সাথে পরামর্শ করে থানায় অভিযোগ দেব।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here