টঙ্গীতে সড়ক দখল করে অবৈধ ব্যবসা

0
24
728×90 Banner

জাহাঙ্গীর আকন্দ : গাজীপুরের টঙ্গীতে সড়ক দখল করে অবৈধ ব্যবসা। মিলগেট এলাকার নামাবাজার চেরাগআলী সংযোগ সড়কের দুই পাশের চিত্র এটি। ঝুট ও তুলার ডাস্ট এর কারনে ছাত্রছাত্রী ও পথাচারীদের চলাচলে বিঘ্ন ঘটছে।
এসব অবৈধ স্থাপনা সরানোর কোন উদ্যোগ নিচ্ছেনা গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন।
সরেজমিনে দেখা যায়, লামাবাজার চেরাগ আলী সংযোগ সড়কে দুই পাশে প্রায় একশত অবৈধ ভাবে গড়ে উঠেছে তুলার ও ঝুটের গুদাম। কেউ কেউ টিন দিয়ে ঘর বানিয়ে আবার কেউ কেউ মেঝে পাকা করে চতুরদিকে টিন দিয়ে ঘর করে তুলা ও ঝুটের ব্যবসা করছে। সড়কে শতাধিক ব্যবসায়ী তাদের জিনিপত্র রাস্তার উপরে রাখার কারনে চলাচলে প্রতিবন্ধকতা তৈরি হচ্ছে। অনেকে নাক মুখ চেপে চলাচলা করতে দেখা গেছে যাতে তুলা ও ঝুটের ডাস্ট নাক মুখ দিয়ে না ঢুকে।
জানা যায়, দেড় থেকে দুই মাস আগে সড়কে পাশে অবৈধভাবে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলার জন্য পুলিশ ওই ব্যবসায়ীদের গুদামের তালা চাবি নিয়ে গেছে। পুলিশের সঙ্গে কথা বলে ব্যবসায়ীরা তালার চাবি এনে পুনরায় ব্যবসা শুরু করে। সড়কে অবৈধভাবে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছেন আবুল কালাম আবু, তাজুল ইসলাম, হাকিম আলী, নূর হোসেন, দুলাল উপরে সিএমসি দুলাল, সালাউদ্দিন বাবু, ও আনোয়ারসহ অনেকে।
পথচারী রুহুল আমিন বলেন, তার বাড়ি চেরাগআলী এলাকায়। তিনি টঙ্গী বাজার একটি দোকানে বিক্রয় প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করেন। প্রতিদিন সে এই রাস্তা দিয়ে যাতায়ত করনে। রাস্তার দুই পাশে তুলা ও ঝুটের গুদাম রয়েছে। রাস্তার উপর কাজ করার সময় তুলা ও ঝুটের কণা নাকে মুখে আসে। এ করনে অনেক সমস্য হয়। তাই সড়কে নাক মুখ চেপে চলাচল করতে হয়।
তুলা ব্যবসায়ী তাজুল ইসলাম বলেন, অনেক বছর ধরে এখানে ব্যবসা করে আসছি। কেউ কিছু বলেনি। গত দুইমাস আগে পুলিশ গুদামের তালার চাবি নিয়ে গেছে যাতে ব্যবসা করতে না পারা যায়। রাস্তার কাজ শুরু হলে গুদাম সরিয়ে নিয়ে যাবে এমন আশ্বাসের ভিত্তিতে পুলিশের কাজ থেকে চাবি এনে আবার ব্যবসা শুরু করা হয়। রাস্তার কাজ ধরলে গুদাম সরিয়ে নেওয়া হবে।
আর এক ব্যবসায়ী আবু কালাম আবু বলেন, সড়কের পাশে প্রায় একশত ঘর আছে। সবাই ঘর তোলে কোন কোন ব্যবসা করছে। সবাই ঘর তোলার পর সে তার ঘরটি করেছেন। বাতিলকৃত সুতার ব্যবসা করার জন্য ঘরটি করা হয়েছে।
গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ৫৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবুল হাসেম বলেন, আমি জানিনা যে ঘর করেছে। ওই সময় ওমরায় ছিলাম। তারা আমার কাছে আসছিলো। এসময় তাদের সাথে কথা হয়েছে ড্রেন করার পর যদি খালি জায়গা থাকে তারপর ঘর উঠাইতে। উমরায় যাওয়ার পরে তার ঘর উঠাইয়া ফেলেছে। এব্যাপারে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।
টঙ্গী পশ্চিম থানার ওসি শাহ্ আলম বলেন, থানা থেকে কোন অনুমতি দেওয়া হয়না। তালা মেরে দেওয়া হয়েছিলো। কাউন্সিলরের সাথে কথা বলে সিটি কর্পোরেশনের মাধ্যমে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here