টঙ্গী ট্রাফিক বক্সে ভূতের আছড়!

0
372
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক: টঙ্গী ট্রাফিক জোনে লাইসেন্স বিহীন ব্যাটারি চালিত অটো রিক্সা ও ইজিবাইক আটক বা ব্যাটারি ও সিট জব্দ করার নামে চলছে কতিপয় পুলিশ সদস্যদের গোপনে ব্যাটারি বিক্রির মহােৎসবের ধান্ধা। এতে করে সাধারণ দরিদ্র রিক্সা অটোচালকরা তাদের আটককৃত ব্যাটারি না পেয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে।
জানা যায়, সম্প্রতি গাজীপুর মহানগর মেট্রো পলিটন পুলিশের কমিশনার এবং সিটি কর্পোরেশনের মেয়রের নির্দেশে টঙ্গী জোনের সহকারী পুলিশ সুপার থোয়াই অং প্রু মারমার নেতৃত্বে মহাসড়কে যানজট নিরসনে মহানগরের বিভিন্ন গুরত্বপূর্ণ স্থানে অভিযান চালিয়ে ট্রাফিক পুলিশের কর্মকর্তারা লাইসেন্স বিহীন ব্যাটারি চালিত অটো রিক্সা ও ইজিবাইক আটক বা ব্যাটারি ও সিট জব্দ করার পর সাময়িক সাঁজা স্বরুপ রেকার বিল আদায় পূর্বক ছেড়ে দেয়। এদিকে ট্রাফিক পুলিশে কর্মরত কনষ্টেবল রবিউলসহ কতিপয় ট্রাফিক সদস্যরা আটককৃত ব্যাটারি চালিত অটো রিক্সা ও ইজি বাইকের ব্যাটারির সঠিক তালিকা প্রণয়ত না করে গোপনে রিক্সা মালিকদের সাথে লিয়াজোঁ করে গোপনে বিক্রি করে দেয়। এ যেন টঙ্গী ট্রাফিক বক্সে ভূতের আঁচড়।
টঙ্গীর বনমালা এলাকার রিক্সা গ্যারেজ মালিক খোরশেদ আলম জানান, গত ২০ জানুয়ারী টঙ্গী ট্রাফিক জোনের সহকারী পুলিশ সুপার থোয়াই অং প্রু মারমার নেতৃতে আমার গ্যারেজের ৩টি রিক্সা আটক করে ৩ টি ব্যাটারি খূলে নেওয়া হয়। পরবর্তীতে উপরোক্ত কর্মকর্তাকে মুচলেকা দিয়ে ব্যাটারি গুলেঅ আনতে গিয়ে ২ টি ব্যাটারি খুঁজে পাই। ১ টি ব্যাটারি আজো ফেরৎ পাইনি। রবিউল নামে এক ট্রাফিক সদস্য আমার কাছে ৫শ টাকা দাবী করে। টাকা দিলে ব্যাটারি ফেরৎ দেয়া হবে। পরবর্তীতে টাকা নিয়ে ব্যাটারি আনতে গেলে রবিউল জানায় ব্যাটারি আমাদের এখানে নেই।
টঙ্গীর দত্তপাড়া এলাকার বাসিন্দা রিক্সা চালক হাসেম মিয়া জানায়, আমার একটি রিক্সা । গত ৬/৭ দিন পূর্বে বনমালা রোডের মাথা থেকে রিক্সাটির ৪ টি ব্যাটারি খুলে নিয়েছে ট্রাফিকের এক অফিসার। ব্যাটারি গুলো আনতে গেলে রবিউল নামে একজন ট্রাফিক আমার কাছে এক হাজার টাকা দাবী করেন। টাকা না দেয়ায় ব্যাটারি গুলো দেয়নি। পরে টঙ্গী ট্রাফিক জোনের সহকারী পুলিশ সুপার থোয়াই অং প্রু মারমার বরাবরে আবেদন করেও ব্যাটারি গুলো পাইনি। আমি গরিব মানুষ বউ ছেলে মেয়ে নিয়ে গত কয়েক দিন যাবৎ খুব কষ্টে আছি। অপরদিকে ট্রাফিক বক্সের একজন কনষ্টেবল (নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক) জানায়, কন: রবিউলের কারণে এখানে চাকুরি করা অসম্ভব, ব্যাটারি চালিত অটো রিক্সা ও ইজিবাইকের ব্যাটারি আটক করে আনার পর সেগুলোর সঠিক তালিকা না করে গোপনে রিক্সা মালিক ও চালকদের কাছ থেকে টাকা নিয়ে বিক্রি করে দেয়। এনিয়ে অফিসে খুব ঝামেলা হচ্ছে। রবিউল নিজে অন্যায় করে অন্যের উপর উপর তার দোষ চাপিয়ে দেয়। তার বিরুদ্ধের এধরণের একাধিক অভিযোগ রয়েছে বলেও তিনি দাবী করেন।
এব্যাপারে কন: রবিউলের কাছে জানতে চাইলে তিনি পাল্টা প্রশ্ন করে বলেন, আমাদের কাছেও অভিযোগ আছে আপনারা গোপনে থানা থেকে ব্যাটারি নিয়ে বাইরে বিক্রি করে থাকেন। আপনি থানায় আসুন পরে কথা বলবো।
এব্যাপারে টঙ্গী ট্রাফিক জোনের সহকারী পুলিশ সুপার থোয়াই অং প্রু মারমার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি কন: রবিউলের বিরুদ্ধে উঠা অভিযোগ সঠিক নয়, তিনি বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, আমার অফিসে ব্যাটারি চালিত অটো রিক্সা ও ইজিবাইকের ব্যাটারি আটক করে আনার পর তা চুরি যাওয়া বা বিক্রি করার কোন সুযোগ নেই। ততাপিও যদি কেউ এধরণের কার্যক্রমের সাথে জড়িত প্রমাণ পাওয়া যায় তবে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here