ড্রেনের কাজ করতে গিয়ে নিউ অলিম্পিয়া ট্রেক্সঃ মিলের বিদ্যুৎ লাইন বিস্ফোরণ

0
268
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক: টঙ্গীর মিলগেইট এলাকায় ড্রেনের কাজ করার সময় শ্রমিক মালিকানায় পরিচালিত নিউ অলিম্পিয়া টেক্সটাইলস মিলে সংযুক্ত বিদ্যুতের তার বিস্ফোরণের পর অকেজো তার মাঠির নীচ থেকে উত্তোলন করে বিক্রির অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় এক নেতার বিরুদ্ধে।
স্থানীয় নেতারা মাটির নীচ দিয়ে নিউ অলিম্পিয়া টেক্সটাইলস মিলে সংযুক্ত ও সম্প্রতি বিস্ফোরিত বিদ্যুৎ লাইনের তার উত্তোলন করে বিক্রি করেছেন বলে অত্র এলাকায় জোর কানাঘুষা চলছে। ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে স্থানীয় থানা পুলিশকে ব্যাবহার করে স্থানীয় বিভিন্ন নেতাকর্মীদের মাঝে ভাগ-ভাটোয়ারা করা হয়েছে যৎ সামান্য টাকা। স্থানীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে অনেকে আবার বন্টনের অংশীদার হতে না পেরে ক্ষোভ প্রকাশ করে চলেছে বিভিন্ন মহলে।
বিভিন্ন তথ্যানুসন্ধানে জানা যায়, বেশ কয়েক যুগ আগে টঙ্গীর শহীদ সুন্দর আলী সড়কের দক্ষিন পাশে স্থাপিত ঢাকা ইলেকট্রিক সাপ্লাই কোম্পানীর (ডেসকো) সাব-ষ্টেশন থেকে তৎকালীন সরকারের আমলে বিটিএমসি কর্তৃক পরিচালিত অলিম্পিয়া টেক্সটাইল মিলে মাটির নীচ দিয়ে এসটি বিদ্যুৎ লাইন সংযোগ দেয়া হয়েছিলো। ওই মিলটি গত নব্বই দশকে আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর শ্রম-মালিকানায় হস্তান্তরিত হয়। ফলে মিলটির নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় “নিউ অলিম্পিয়া ট্রেক্সটাইল মিলস লিঃ”।
এমতাবস্থায় গত ১৫/১৬ দিন পূর্বে সড়কের পাশে ড্রেনের কাজ করতে গিয়ে মাটি খননের সময় মিলের বিদ্যুতের লাইনটিতে বিস্ফোরণ ঘটে। ঘটনার পর থেকে ৪/৫ দিন ওই মিলটির বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন থাকে। পরে ডেসকো কর্তৃপক্ষ নতুন লাইনের মাধ্যমে মিলে বিদ্যুৎ সংযোগ প্রদান করেন। ডেসকোর কর্তৃপক্ষ জানান, বিদ্যুতের এই লাইনটি এসটি লাইন হিসেবে পরিচালিত হয়ে আসছে এবং ব্যক্তি মালিকানায় রয়েছে। ওই বিষয়ে আমাদের কিছু করার নেই।
অপরদিকে রাতের আধারে বিস্ফোরিত ও অকেজো বিদ্যুৎ লাইনটির পরিত্যক্ত মূল্যবান তামাযুক্ত তার উত্তোলনের জন্য কলাবাগান বস্তি এলাকার বাসিন্দা বিএনপি সমর্থক বাবু মিয়াসহ কয়েকজনকে দায়িত্ব নেন। পরে বাবু তার সহযোগীদের নিয়ে ৪/৫ দিনের মধ্যে রাতের অন্ধকারে মাটির নীচের বিদ্যুৎ লাইনটির তার উঠিয়ে অলিম্পিয়া টেক্সটাইল মিলের ভিতরে একটি গোডাউনে সংরক্ষন করেন এবং সময় সুযোগ বুঝে কর্তৃপক্ষকে না জানিয়ে সেই তামার তার গোপনে বিক্রি করেন। ঘটনাটি স্থানীয় লোকজনের মাঝে জানাজানি হয়ে পড়লে বিষয়টি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করা হয়। ওই এলাকায় নেতা কর্মীরা (একাংশ) টাকা না পেয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন এবং ঘটনার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জোড় দাবী জানান।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক নেতা জানান, আমরা ১৫ হাজার টাকা পেয়েছি। টাকাটা নেতার কাছে জমা রয়েছে। বিষয়টি জানতে যুবলীগ নেতা দেলোয়ার হোসেনের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিদ্যুতের তার গোপনে উত্তোলন ও বিক্রয়ের বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, এবিষয়ে আমি কিছু জানি না বলেই মুঠোফোনের লাইনটি বিচ্ছিন্ন করে দেন।
কাউন্সিলর মো.আবুল হাসেমের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, ড্রেনের কাজ করার সময় মাঠির নীচে থাকা বিদ্যুতের তার বিস্ফোরিত হয়। পরিত্যক্ত তার উঠিয়ে ড্রেনের জায়গাটি খালি করে দেয়া হয়েছে। এগুলো সরিয়ে না দিলে ড্রেনের কাজ বন্ধ হয়ে যায়। এগুলো বিক্রি করা হয়েছে কি না জানা নেই তবে ক্ষতিগ্রস্থ তাদের ক্ষতিপূরণ চেয়ে থানায় সাধারণ ডায়রি প্রজেক্ট পরিচালক বরাবর আবেদন করা হয়েছে।
টঙ্গী পশ্চিম থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. এমদাদুল হক বলেন, বিদ্যুতের তার বিক্রয় বা টাকা বন্টনের বিষয়টি আমার জানা নেই, তবে মাঝে মাঝে আমি ওখানে যাই।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here