দুই পক্ষের স্বার্থে গুগলকে চুক্তির প্রস্তাব বাংলাদেশের

0
43
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক : ইন্টারনেটভিত্তিক সেবা ও পণ্যে বিশেষায়িত বহুজাতিক প্রতিষ্ঠান গুগলের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয়ে চুক্তি করতে চায় বাংলাদেশ। বৃহস্পতিবার দুপুরে বিশ্বখ্যাত এই মার্কিন প্রতিষ্ঠানটির দক্ষিণ এশীয় অঞ্চলের কর্মকর্তাদের সঙ্গে এক ভার্চুয়াল বৈঠকে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) পক্ষ থেকে এমন প্রস্তাব দেওয়া হয়। প্রায় ২ ঘণ্টা ব্যাপ্তির এ বৈঠকে বাংলাদেশে গুগলের অফিস স্থাপন, ইউটিউবের বিতর্কিত কোনো কনটেন্ট অপসারণ, গুগলের কমিউনিটি স্ট্যান্ডার্ড গাইডলাইনসহ আরও নানা বিষয়ে আলোচনা হয়।
কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরার ‘অল দ্য প্রাইম মিনিস্টার’স মেন’ শীর্ষক প্রতিবেদনটি ইউটিউব থেকে অপসারণের বিষয়েও বৈঠকে আলোচনা হয়েছে। জানা গেছে, শিগগিরই প্রতিবেদনটি সরিয়ে নেওয়া হবে বলে বৈঠককালে বিটিআরসিকে আশ্বস্ত করেছেন গুগলের কর্মকর্তারা। গুগলের দক্ষিণ এশীয় অঞ্চলের দুজন কর্মকর্তার সঙ্গে চলা এ বৈঠকে বাংলাদেশের পক্ষে নেতৃত্ব দেন বিটিআরসি চেয়ারম্যান শ্যাম সুন্দর সিকদার।
বিটিআরসির কর্মকর্তারা বলছেন, গুগলের সঙ্গে বৈঠকে বেশ কিছু অমীমাংসিত ইস্যুতে ইতিবাচক অগ্রগতি হয়েছে। গুগল কর্তৃপক্ষ প্রতি তিন মাস অন্তর বিটিআরসির সঙ্গে বৈঠক করতে সম্মত হয়েছে। এ ছাড়া কাজের ক্ষেত্রে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক আরও জোরদার করতে রাজি হয়েছে গুগল কর্তৃপক্ষ। এটা দ্বিপক্ষীয় স্বার্থের বিষয়ে অগ্রগতি হিসেবে দেখছেন বিটিআরসির কর্মকর্তারা।
বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের চেয়ারম্যান শ্যাম সুন্দর সিকদার বলেন, ‘বাংলাদেশে গুগলের একটি অফিস খোলার জন্য আমরা প্রস্তাব দিয়েছি তাদের। তারা জানিয়েছেন, আপাতত অফিস স্থাপনের পরিকল্পনা নেই। এটা করার ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানটির নীতিনির্ধারণী পর্যায় থেকে সিদ্ধান্ত আসবে। কর্মকর্তারা সেই পর্যায়ে প্রস্তাবটি তুলে ধরবেন বলে প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেন।
বিটিআরসি চেয়ারম্যান আরও বলেন, বাংলাদেশের পক্ষ থেকে একটি দ্বিপক্ষীয় চুক্তি করার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। প্রত্যুত্তরে তারা বলেছেন, গুগল কোনো দেশের সঙ্গে চুক্তি করে না। সাধারণত একটি দেশের সরকারের সঙ্গে আরেকটি দেশের সরকার পর্যায়ে (জিটুজি) চুক্তি করতে হয়। শ্যাম সুন্দর সিকদার বলেন, এর পর দ্বিপক্ষীয় কাজের স্বার্থে আমরা একটি এমওইউ (সমঝোতা স্মারক) করার প্রস্তাব দিয়েছি। এ বিষয়ে তারা ইতিবাচক মত প্রকাশ করেছেন; সমঝোতায় আসতে চেয়েছেন। এ ছাড়া প্রতি তিন মাস অন্তর বিটিআরসির সঙ্গে মিটিং করতেও রাজি হয়েছেন। এমন সম্মতি এর আগে গুগলের পক্ষ থেকে পাওয়া যায়নি, যোগ করেন বিটিআরসি চেয়ারম্যান।
সূত্রমতে, বাংলাদেশের পক্ষ থেকে গুগলকে বিটিআরসি বলেছে, ইউটিউব থেকে কিছু কনটেন্ট রিমুভ করতে। গুগলের প্রতিনিধিরা জানিয়েছেন, আদালতের আদেশ ছাড়া গুগল ইউটিউব থেকে কোনো কনটেন্ট রিমুভ করে না। তখন বাংলাদেশের পক্ষ থেকে বলা হয়, সব কনটেন্টের বিষয়ে আদালতে মামলা হয় না। লোক জানাজানি বা মানহানির কথা ভেবে অনেক সময় ক্ষতিগ্রস্ত পক্ষ মামলা করতে চায় না। তখন আদালতের আদেশ পাওয়া যায় না। আবার আদালতে মামলা হলে সেই আদেশ পেতেও অনেক ক্ষেত্রে সময়ক্ষেপণ হয়।
আলোচনায় বিটিআরসির পক্ষ থেকে আরও বলা হয়, গুগলের কমিউনিটি স্ট্যান্ডার্ড গাইডলাইন বাংলাদেশের আর্থসামাজিক প্রেক্ষাপটের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ নয়। এ নিয়ে কাজ করার সুযোগ রয়েছে উভয় পক্ষের। এর পরিপ্রেক্ষিতে গুগলের কর্মকর্তারা জানান, বিষয়টি তাদের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের। তারা সেই পর্যায়ে বিষয়টি তুলে ধরবেন।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

five × three =