নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৪৫, ফায়ার সার্ভিসের ৯ জন

0
45
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক: সীতাকুণ্ডের বেসরকারি বি এম কনটেইনার ডিপোতে বিস্ফোরণ ও আগুনে ৪৫ জন নিহতের তথ্য জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মমিনুর রহমান। রবিবার (৫ জুন) বিকালে হাসপাতালে দগ্ধ ও আহতদের দেখতে আসেন তিনি। পরে তিনি গণমাধ্যম কর্মীদের এ তথ্য জানান।
তিনি বলেন, সীতাকুণ্ডের বিএম কনটেইনার ডিপোতে বিস্ফোরণে এখন পর্যন্ত ৪৫ জন নিহত ও ১৬৩ জন আহত হয়েছেন। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিহতদের পরিবারকে ৫০ হাজার ও আহতদের ২৫ হাজার করে অর্থ সহায়তা দেওয়া হবে। এছাড়া শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে নিহতদের পরিবারকে দুই লাখ করে টাকা দেওয়া হবে বলে জানান তিনি।
এ সময় ডিপোর ক্ষতিকারক রাসায়নিক পদার্থ সাগরে মেশার আশঙ্কা নেই বলে জানান জেলা প্রশাসক। তিনি বলেন, বঙ্গোপসাগরে কেমিক্যাল ছড়িয়ে পড়ার সংবাদ সত্য নয়। পরিবেশ অধিদফতরের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে আছেন, তারা সার্ভে করছেন। যে খাল দিয়ে পানি সাগরে যায় সেটি বন্ধ করে দিয়েছেন তারা।
এর আগে, নিহতদের মধ্যে ১৭ জনের লাশ শনাক্তের তথ্য জানিয়েছেন পিবিআই পুলিশ পরিদর্শক মো. মনির হোসেন।
তিনি বলেন, ‘প্রযুক্তির সহায়তায় লাশগুলোর পরিচয় শনাক্ত করার চেষ্টা করছি। আঙুলের ছাপের মাধ্যমে পরিচয় শনাক্তের চেষ্টা চলছে। ইতোমধ্যে ১৭ জনের পরিচয় শনাক্ত হয়েছে। যাদের আঙুলের ছাপ নেওয়া সম্ভব হচ্ছে না তাদের ডিএনএ পরীক্ষার মাধ্যমে শনাক্ত করা হবে।’
নিহতদের মধ্যে শনাক্ত হওয়া ১৭ জনের মধ্যে ১৫ জনের নাম পাওয়া গেছে। তারা হলেন, মোমিনুল হক, মহিউদ্দিন, হাবিবুর রহমান, রবিউল আলম, তোফায়েল ইসলাম, ফারুক জমাদ্দার, আফজাল হোসেন, মো. সুমন, মো. ইব্রাহিম, হারুন উর রশিদ, মো. নয়ন, শাহাদাত হোসেন, শাকিল তরফদার, শাহাদাত উল্লাহ জমাদার ও ফায়ার সার্ভিস কর্মী মনিরুজ্জামান।
এদিকে ঘটনার তদন্তে জেলা প্রশাসন এবং ফায়ার সার্ভিসের পক্ষ থেকে দুটি পৃথক কমিটি গঠন করা হয়েছে। এছাড়া প্রশাসনের পক্ষ থেকে কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে। উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা মো. আলমগীর জানান, কন্ট্রোল রুমের মাধ্যমে হতাহতদের তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে।
ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ডিপোতে আমদানি-রফতানির বিভিন্ন মালামালবাহী কনটেইনার ছিল। ডিপোর কনটেইনারে রাসায়নিক ছিল, বিকট শব্দে বিস্ফোরণ ঘটে। দ্রুত চারদিকে আগুন ছড়িয়ে পড়ায় হতাহত হয়েছে বেশি। আহতদের উদ্ধার করে চমেক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
এর আগে, শনিবার (৪ জুন) দিবাগত রাত সাড়ে ১০টায় বিস্ফোরণে কেঁপে ওঠে পুরো ডিপো এলাকা। পরে ভয়াবহ আগুন ছড়িয়ে পড়ে। ডিপোতে আমদানি-রফতানির বিভিন্ন মালামালবাহী কনটেইনার ছিল। ডিপোর কনটেইনারে রাসায়নিক ছিল, বিকট শব্দে সেগুলোতেও বিস্ফোরণ ঘটে। দ্রুত চারদিকে আগুন ছড়িয়ে পড়ায় হতাহত হয়েছে বেশি। আহতদের উদ্ধার করে চমেক হাসপাতাল ও বিভিন্ন হাসপাতালে পাঠানো হয়। খবর পেয়ে আগুন নেভাতে যাওয়া ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিটের সদস্যরা পরবর্তী সময়ে অন্য কনটেইনারের বিস্ফোরণে গুরুতর আহত হন। এদের মধ্যে এখন পর্যন্ত আট জনের মৃত্যু হয়। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত সন্ধ্যা পৌনে ৭টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আসেনি। আগুন নিয়ন্ত্রণে সেনা সদস্যরা যোগ দিয়েছেন। ফায়ার সার্ভিসের ২৯টির বেশি ইউনিট কাজ করছে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here