পাঁচবিবিতে ইরি-বোরো চাষে ব্যস্ত কৃষক কৃষানীরা

0
202
728×90 Banner

পাঁচবিবি (জয়পুরহাট) প্রতিনিধিঃ কৃষকের স্বপ্ন হচ্ছে তার রোপণ করা ফসলের ভালো ফলন ঘরে তোলা। আর সেই সবুজ স্বপ্নকে জমির বুকে রোপণ করতে ব্যস্ত সময় পার করছেন জয়পুরহাটের পাঁচবিবির কৃষকরা। জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার কৃষকরা আমন ধান ঘরে তোলার পর ধানের কাঙ্খিত মূল্য পাননি। জমি চাষ, শ্রমিক মজুরী, কীট নাশক সার বাবদ খরচ আর উৎপাদিত আমন ধানের বাজার মূল্যের কারনে কৃষকরা এক প্রকার ক্ষতির মধ্যে পড়ে যায়। আমন ধানের সেই ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে বর্তমানে ইরি-বোরো চাষের নতুন স্বপ্ন নিয়ে মাঠে নেমেছেন।
আমন ধান কাটা-মাড়াই শেষে ইরি-বোরোর আবাদ নিয়ে ব্যস্ত চাষীরা। আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় শীতে এবার বীজতলার তেমন কোনো ক্ষতি হয়নি। উপজেলার প্রতিটি মাঠে মাঠে চলছে এখন শুধু ইরি-বোরো ধান রোপণের মহোৎসব। কাক ডাকা ভোর থেকে শুরু করে সন্ধ্যা পর্যন্ত মাঠের কাঁদা-পানিতে ভিজে ধানের চারা রোপণের কার্যক্রম চালাচ্ছেন কৃষকরা। বর্তমানে পাঁচবিবি মাঠগুলো এখন কৃষকদের পদভারে মুখরিত হয়ে উঠেছে।
উপজেলার বহরমপুর গ্রামের কৃষক মাসুদ হোসেন বলেন, আমাদের এলাকায় অন্যান্য বারের তুলনায় এবার আবহাওয়া ভালো থাকায় আমাদের এলাকায় বীজতলাগুলো কোল্ড ইঞ্জুরিতে আক্রান্ত— হয়নি। এ জন্য বোরো চারা অনেকটাই সহজলভ্য হয়েছে। প্রাকৃতিক কোন দূর্যোগ না ঘটলে ইরি-বোরো ভালো ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে।
বাগজানা গ্রামের কৃষক সাখাওয়াত হোসেন বলেন, আমন ধানের দাম না থাকায় বিক্রি করতে পারি নি। তারপরও ইরি-বোরো চাষ করতে হচ্ছে, যদি আমন ধানের ক্ষতি পুষিয়ে উঠতে পারি।
চলতি ইরি-বোরো মৌসুমে পাঁচবিবি উপজেলায় ১৯ হাজার ২৫ হেক্টর জমিতে বোরো চারা রোপনের লক্ষ্য মাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। তবে এ লক্ষ্য মাত্র ২০ হাজার হেক্টর জমিতে ছাড়িয়ে যেতে পারে বলে তাদের ধারনা। কোনো প্রকার প্রাকৃতিক দূর্যোগ হানা না দেওয়ায় এবং বোরো চাষের পরিবেশ অনুকূলে থাকায় এবার বোরো চাষের বাম্পার ফলনের সম্ভবনা রয়েছে বলে মনে করছেন উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা ।
এ জন্য বোরো মৌসুমে সেচ কার্যক্রম যথাযথ রাখতে বিদ্যুৎ বিভাগও রয়েছে তৎপর। সংশ্লিষ্ট বিদ্যুৎ অফিস সূত্রে জানা, উপজেলার ৮টি ইউনিয়নে ৪৯৫ টি গভীর নলকুপ ও বিদ্যুৎ চালিত মোটর রয়েছে। যেগুলো কেবলমাত্র বোরো চাষে সেচ কাজে ব্যবহৃত হয়। জয়পুরহাট পল্লী বিদ্যূত সমিতির পাঁচবিবি জোনাল অফিসের এজিএম আলমগীর কবির জানান, উপজেলায় বিদ্যূতের চাহিদা ১০ মেগাওয়াট থাকলে আমাদের রয়েছে পর্যাপ্ত বিদ্যূত, ফলে ইরি-বোরো সেচ কাজে কোন সমস্যা হবে না।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ আশরাফুল আলম বলেন, ইরি-বোরো চাষে বাম্পার ফলনের আশা করছে কৃষি বিভাগ।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here