পূবাইলে সন্ধ্যা হলেই ভিড় বাড়ে শীতের পিঠার দোকানে

0
620
728×90 Banner

মোঃদেলোয়ার হোসেন,পূবাইল (গাজীপুর) প্রতিনিধি: চালের গুড়া, আটা-ময়দা দিয়ে তৈরী করা হয় পিঠা। গ্রাম অঞ্চলে সাধারণত নতুন ধান তোলার পর থেকে পিঠা তৈরীর আয়জন শুরু করে। শীতের ও পৌষ পার্বণের সময় বাংলার প্রতি ঘরে পিঠা তৈরী করা হয়। পিঠা সাধারণত মিষ্টি স্বাধের হয়ে থাকে। ঝাল, টক ও অন্য স্বাধের ও হয়ে থাকে। দুপুর গড়িয়ে বিকাল হতেই পূবাইলে বাড়তে থাকে শীতের প্রকোপ। সন্ধ্যা নামার সঙ্গে সঙ্গেই আবহাওয়া জানান দেয় শুরু হয়েছে শীত। এমন পরিবেশে শীতের পিঠা খাওয়া একটি মজার ব্যাপার। বাসায় পিঠা তৈরী করতে অনেকের সময় নেই তাই শীতের বিকাল কিংবা সন্ধ্যার পরিবেশে খোলা আকাশের নিচে দাড়িয়ে পিঠা খেতে অনেকে ভির জমাচ্ছে ভ্রাম্যমান পিঠার দোকানগুলোতে। পূবাইলে শীতের পিঠার চাহিদাকে কেন্দ্র করে অলি গলিতে গড়ে উঠেছে অসংখ্য পিঠার দোকান। শীত আসার সঙ্গে সঙ্গে অনেকে মৌসুমি পেশা হিসেবে পাড়া মহল্লায় অস্থায়ীভাবে পিঠা বিক্রি শুরু করেছেন। সরজমিনে ঘুরে দেখা যায় পূবাইলের হায়দরাবাদ, মাজুখান, মেঘডুবী, কলের বাজার, পূবাইল বাজার, মিরের বাজার, হারবাইদ এলাকায় গরম গরম ভাপা পিঠা ও চিতুই পিঠা নামছে মাটির চুলা থেকে। ক্রেতারা সারিবদ্ধ হয়ে পিঠা কিনে খাচ্ছেন কেউ নিয়ে যাচ্ছেন। এরই মধ্যে ভাপা ও চিতুই পিঠার কদর বেশী। প্রতিটি পিঠা বিক্রি হচ্ছে দশ থেকে বিশ টাকা। মিরের বাজার মেডিকেল গেইট এলাকার পিঠা বিক্রেতা আমেনা খাতুন বলেন, শীত শুরু হইলে আমাগো পিঠা বেচাকেনা বাড়ে তবে এখন সবকিছুরই দাম বাড়ছে এল্লাইগা আমাগো লাভ কম হয়। পিঠা খেতে আসা ক্রেতা হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসক হাদিউল ইসলাম রুবেল বলেন, বাসা বাড়িতে পিঠা তৈরী করতে ঝামেলা মনে হয় এজন্য আমি প্রায় দিনই ভ্রাম্যমাণ দোকান থেকে পিঠা কিনে খাই। নারায়নকুল এলাকার বাসিন্দা আক্তার হোসেন বলেন, আমাদের এলাকার পাশে পিঠা বিক্রি করা হয়। চিতই পিঠা, ডিম পিঠা বিভিন্ন রকম ভর্তা দিয়ে খেতে অনেক ভালো লাগে। নিজে খাই ও পরিবারের জন্য নিয়ে যাই।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here