পোশাক কারখানায় পুনঃনির্ধারিত ন্যুনতম মজুরি কার্যকরের দাবিতে টঙ্গীর বিসিক শিল্পনগরীতে ভাংচুর

0
260
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক: সরকার কর্তৃক পুনঃনির্ধারিত ন্যুনতম আট হাজার টাকা মজুরি কার্যকরের দাবিতে পোশাক শ্রমিকদের বিক্ষোভ মঙ্গলবার আবারও শুরু হয়েছে রাজধানী ও টঙ্গীতে।
বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে কয়েকশ গার্মেন্টস শ্রমিক টঙ্গীর বিসিক শিল্পনগরী, সাতাইশ, জয়বাংলা রোড় ও মিরপুর কালশি এলাকায় রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ করে। এ সময় সড়কে যানবাহন চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয়।
গত কয়েকদিন ধরেই বাংলাদেশে গার্মেন্টস শ্রমিকরা মজুরি বৃদ্ধির দাবীতে বিক্ষোভ করছে।মঙ্গলবার টঙ্গীর বিসিক শিল্পনগরীর তুসুকা জিন্স এন্ড পলু, ত্রিভুলী, আলাউদ্দিন এন্ড সন্স ( প্রা:) লি:, সুমি এ্যাপারেলস ( প্রা:) লি:, দিশারী এ্যাপারেলস ( প্রা:) লি: এ ভাংচুর হয়। রাতে টঙ্গীর বিসিক শিল্পনগরীর বিভিন্ন পোশাক কারখানার মালিক,পুলিশ প্রশাসন ও স্থানীয় ব্যক্তিদের উপস্থিতিতে এক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।
রবিবার ও সোমবার রাজধানীতে প্রবেশের মুখে বিমানবন্দর সড়ক কয়েক ঘণ্টার জন্যে অবরোধ করে রাখে পোশাক শ্রমিকরা। এসময় একটি বাসে অগ্নিসংযোগের ঘটনাও ঘটে।


পোশাক শ্রমিকরা বলছেন, নতুন বেতন স্কেল হওয়া সত্বেও তাদের অধিকাংশের বেতন তেমন বাড়েনি।
গত সেপ্টেম্বর মাসে বাংলাদেশে গার্মেন্টস শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি বাড়িয়ে আট হাজার টাকা নির্ধারণ করেছে সরকার।
গার্মেন্টস মালিক ও শ্রমিকদের সঙ্গে মজুরি বোর্ডের সভায় ন্যূনতম মজুরি আট হাজার টাকা নির্ধারণের সিদ্ধান্ত হয়।
শ্রমিক প্রতিনিধিরা ন্যূনতম মজুরি ১২ হাজার টাকা করার দাবি জানাচ্ছিলেন।
অন্যদিকে মালিকপক্ষ ৭ হাজারের বেশি দিতে রাজী হচ্ছিলেন না।
শেষ পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপে মালিকরা নূন্যতম মজুরি ৮০০০ টাকা নির্ধারণে রাজি হয়।
চলতি বছরের জানুয়ারি মাস থেকে নতুন মজুরী কার্যকরের কথা থাকলেও মালিকপক্ষ সেটি বাস্তবায়নে গড়িমসি করছে বলে শ্রমিকদের অভিযোগ।
নতুন মজুরি নির্ধারণের আগে বাংলাদেশে বর্তমানে গার্মেন্টস শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি ছিল ৫ হাজার ৩শ টাকা।
এটি নির্ধারণ করা হয় ২০১৩ সালে। তখন সরকারের তরফ থেকে জানানো হয়েছিল, প্রতি পাঁচ বছর পর পর শ্রমিকদের মজুরি নতুন করে নির্ধারণ করা হয়।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

1 × 4 =