প্রতিবন্ধীর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন

0
16
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর সংবাদ বিজ্ঞপ্তি :প্রতিবন্ধী ও প্যারালাইসিস রোগী মোঃ হুমায়ুন কবির খানকে মিথ্যা মামলা হতে অব্যাহতি প্রদান এবং শাহআলী থানার এসআই মাসুদ রানা ও ভারপ্রাপ্ত সাবেক কর্মকর্তা আবুল বাসার মুহাম্মদ আসাদুজ্জামান এর দুর্নীতির বিচারের দাবিতে ২৪ নভেম্বর বৃহস্পতিবার বিকাল ৩টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানবন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন তার আত্মীয়স্বজন ও মিরপুর এলাকার স্থানীয় বাসিন্দারা।
প্রতিবন্ধী ও প্যারালাইসিস রোগী মোঃ হুমায়ুন কবির খান দাবি করে বলেন, বিগত প্রায় ২৫ বছর যাবত অত্র এলাকায় বসবাস করিয়া আসিতেছি। অত্র এলাকায় বসবাসকালীন সময়ে আমি সমাজ ও রাষ্ট্রবিরোধী কোন কাজের সাথে জড়িত নহে। এছাড়াও অত্র এলাকায় আমার সুনাম রয়েছে। গত বারো বছরের মধ্যে পরপর দুই বার স্ট্রোক হওয়ার কারণে আমার বাম পাও বাম হাত অবশ হয়ে যায়। যার দরুন আমি কোন মতে ন্যাংরাতে ন্যাংরাতে হাটতে পারি। আমি একজন প্যারালাইসিস রোগী ছেলে-মেয়ে ও স্ত্রীকে নিয়ে মিরপুর-১ স্থিত ফুটপাতে লেস ফিতা ও ইমিটেশন মালামাল বিক্রি করে কোন রকম জীবিকা নির্বাহ করে আসিতে ছিলাম । কিন্তু অতীব দুঃখের সহিত আপনাকে জানাচ্ছি যে, গত প্রায় এক বছর পূর্বে শাহআলী থানার এসআই মাসুদ রানা বিপি নং- ৮২০২০৭৮০৪৫, আমার উক্ত ফুটপাতের দোকানে এসে আমার নিকট ৩,০০,০০০/- (তিন লক্ষ)টাকা উৎকোষ দাবী করে। ভয় পেয়ে আমি কষ্ট করে ধার দেনা করে এসআই মাসুদ রানাকে ৫০,০০০/- (পঞ্চাশ হাজার) টাকা দেই এবং পরবর্তীতে বাকী ২,৫০,০০০/-(দুই লক্ষ পঞ্চাশ হাজার) টাকা দিতে অস্বীকার করায় এসআই দেবাশীস আমাকে ফোন করে শাহআলী থানায় যেতে বলেন যাহার মোবাইল নম্বর-০১৭১২-৫৫৪৬৮৬৯(দেবাশীস)। আমি এসআই দেবাশীস ও এএসআই মিজান (সিভিলি টিম) এর কথায় সরল বিশ্বাসে শাহআলী থানায় যাই। আমি শাহআলী থানায় যাওয়ার পর সাবেক ওসি (এবিএম আসাদুজ্জামান) বলে ওকে লকাবে ডুকিয়ে দেও। আনুমানিক ১৫ই ডিসেম্বর-২০২১ইং তারিখে বিকাল ৫ টার দিকে মোবাইল নম্বর- ০১৭১৩-৩৭৩১৯২ এর মাধ্যমে বলে একে মাডার মামলার ৫,০০,০০০/-(পাঁচ লক্ষ) টাকার মাস্টার মাইন্ডে দিলাম। এবিএম আসাদুজ্জামান এর মোবাইল বয়েস রেকর্ড অনুসন্ধান করলে তার সত্যতা প্রমাণ পাওয়া যাবে। মামলাটি হয় ১২ ডিসেম্বর-২০২১ইং আর আমাকে গ্রেফতার করে ১৫ ডিসেম্বর-২০২১ইং। আমি অত্র মিথ্যা মামলায় ৯ মাস ১৫দিন জেল খাটি। পরবর্তীতে আমি হাইকোর্টের নির্দেশে জামিন পেয়ে বর্তমান বিভিন্ন জায়গায় পালিয়ে বেড়াইতেছি। এসআই দেবাশীস এর নিকট আমার ৬০২০ বাটন মোবাইলটি ফেরত দেয় নাই । অত্র মোবাইলটি আমাকে দিবে বলে বারবার কালক্ষেণ করছে। অথচ এই মামলার এসআই দেবাশীস আইও না।
তিনি অভিযোগ করে বলেন, এসআই দেবাশীস ও এএসআই মিজান বিভিন্ন ব্যক্তিকে মামলার ভয় দেখিয়ে, চাঁদাবাজি করে বেড়ায়। ভারপ্রাপ্ত সাবেক কর্মকর্তা আবুল বাসার মুহাম্মদ আসাদুজ্জামান বিপি নং-৭৭০৬১০৮০৭৫ এ রকম বহু লোকের নিকট থেকে মিথ্যা মামলা ভয় দেখিয়ে অবৈধভাবে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে নামে বেনামে বিপুল পরিমাণ সম্পদের মালিক বনেছেন। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো মিরপুর-১৩নং রাখাইন সিটিতে ফ্ল্যাট সহ বিভিন্ন আত্মীয়স্বজনের নামে অসংখ্য ফ্ল্যাটের মালিক। এমতাবস্থায় আইনের শাসন ও মানবিক দিক বিবেচনায় আমাকে মিথ্যা মামলা হতে অব্যাহতি প্রদানের দাবি করেন। এরই সাথে দুর্নীতিবাজ পুলিশ অফিসার এসআই মাসুদ রানা, এএসআই মিজান, ভারপ্রাপ্ত সাবেক কর্মকর্তা আবুল বাসার মুহাম্মদ আসাদুজ্জামান এসআই দেবাশীস গংদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেন।
তিনি আরো বলেন, আমার বিরুদ্ধে আর কোন মামলা নাই, আমি যদি অপহরণ হই, মিথ্যা মামলায় দেয় তার জন্য সাবেক ওসি এবিএম আসাদুজ্জামান বিপি নং-৭৭০৬১০৮০৭৫, এসআই মাসুদ রানা বিপি নং- ৮২০২০৭৮০৪৫, এসআই দেবাশীস ও এএসআই মিজান দায়ি থাকিবে। প্রতিবন্ধী ও প্যারালাইসিস রোগী মোঃ হুমায়ুন কবির খান মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, আইনমন্ত্রী, পুলিশের আইজিপি, দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) চেয়ারম্যান, জাতীয় মানাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান, সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় সচিব বরাবর সদয় অবগতি ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আবেদন করেছেন।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here