বঙ্গবন্ধু ও দোলনচাঁপা

0
514
728×90 Banner

— কামরুল ইসলাম

আম্রকাননের শত সহস্র বাগিচার ফুল
দোলনচাঁপার সুবাস নিতে জেগেছিল
বৃক্ষরাজি আর পাখিরা কিচিরমিচির ধ্বনিতে বৈদ্যনাথতলাকে মুখরিত করেছিল
একজন প্রধানমন্ত্রী, বাংলার তাজ
সাত কোটি বাঙালির দোলনচাঁপা দর্শনে।
শপথের পরতে পরতে কিভাবে জেগে উঠে বাংলাদেশ বঙ্গবন্ধুর কথনে।

বঙ্গবন্ধুর প্রেরণাকে স্রোতের বিপরীতে
প্রবাহিত করার স্বীকৃত নাম দোলনচাঁপা
বর্ষার গোধূলিতে তেজোদীপ্ত হয়ে
ইতিহাসের বহুবর্ষ ধরে যার বাঁচা।

কেউ বলে জনকের ছায়া মানব
কেউ বলে বঙ্গবন্ধুর ছায়ামূর্তি
দোলনচাঁপা কর্মগুনে স্বাক্ষর রেখে গেল
ইতিহাসের ডায়রিতে তাজ‌উদ্দিনের মহাকীর্তি।

বঙ্গবন্ধুর ভালোবাসার মহাকাব্যিক রূপ
দোলনচাঁপায় অনুলিপি হয়েছিল-
দেখেছিল বাঙালি, জেনেছিল বিশ্ব
বঙ্গবন্ধুর আগে বাংলাদেশকে ভালোবাসা যায় না বঙ্গবন্ধুকে ভালোবাসা ছাড়া বাংলাদেশ হয় না।

বঙ্গবন্ধুর সাতাইশ বছরের একনিষ্ঠ কর্মী
তাজউদ্দিন আহমেদ যার নাম
লিলিকে লেখা লিপিকায়
দোলনচাঁপা যার ছদ্মনাম

বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার বার্তায়
অব্যক্ত দায়িত্বের মহামায়ায়
যে প্রিয়জন রেখে চলে যায়
প্রশ্ন ছিল স্বাধীনতা ছাড়া সংসার
তাকে কি মানায়?

দোলনচাঁপার একটি চিরকুটে ইতিহাস পেয়েছিল লিলি- আমি চলে গেলাম!
যাবার সময় কিছু বলে আসতে পারেনি!
মাফ করে দিও!
আবার কবে দেখা হবে জানি না
মুক্তির পর-তুমি ছেলে মেয়ে নিয়ে
সাত কোটি বাঙালির সাথে মিশে যেও।

একটি পতাকা একটি দেশ
প্রতিচ্ছবিতে একটি মানচিত্র
কৃতিত্বের দাবিতে দোলনচাঁপা –
স্বরবর্ণ আর ব্যঞ্জনবর্ণে ইতিহাসকে দিল
আমি শুধু ধাত্রীর কর্তব্য পালন করেছি মাত্র!

পাখির কলরব বিহীন একটি ভোরে
যে ভোরে সূর্যটাও ম্রিয়মান হয়ে আছে
বিশ্বাসের বিষাক্ত রশ্মি দিয়ে দেখল
ক্ষত-বিক্ষত রক্তাক্ত পতাকা নুয়ে আছে
ভেজা মানচিত্রের বিহ্বল বাংলাদেশে!
নিজের অফিসে বাঁধাই করা
কুড়িয়ে পাওয়া বঙ্গবন্ধুর ছবিটাতে বুলেটের চিহ্ন!

দীর্ঘশ্বাসের মহাধ্বনিতে প্রকম্পিত বাংলাদেশ
মহাকাশে বিলাপে দোলনচাঁপার শেষ আয়োজন
মুজিব ভাই জেনে গেলেন না –
কে ছিল আপনার বন্ধু ?
কে ছিল আপনার শত্রু?

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

14 − ten =