বঙ্গবন্ধু সাফারী পার্কের অজ্ঞাত মৃতদেহের পরিচয় উদ্ঘাটন: জড়িতদের গ্রেফতার

0
71
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক: গাজীপুরের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারী পার্কের অজ্ঞাত মৃতদেহের পরিচয় উদ্ঘাটন ও ক্লুলেস হত্যাকান্ডের সাথে জড়িতদের গ্রেফতার করেছে র‌্যাব।
গত ৩০ মার্চ ২০২১ তারিখ রোজ সোমবার গাজীপুরের শ্রীপুরের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারী পার্কের দক্ষিণ-পূর্বদিকে ০৪নং গেটের পাশে একটি অজ্ঞাত যুবকের মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। ইতিমধ্যে বর্ণিত ঘটনায় শ্রীপুর থানায় একটি মামলা রুজু হয়। যার মামলা নং ৯২ তারিখ ৩১/০৩/২০২১ ধারা ৩০২/২০১/৩৪, দঃ বিঃ।
র‌্যাব নিহত যুবকের পরিচয় সনাক্ত করার জন্য র‌্যাবে নব সংযোজিত Onsite Identification and Verification System (OIVS) এর মাধ্যমে মৃতদেহের পরিচয় নিশ্চিত করে। সনাক্তকৃত ব্যক্তির নাম কবির হাসান (২২), পিতা- জাবিউল ইসলাম, মাতা-কহিনুর বেগম, গ্রামঃ নয়াপাড়া, পোঃ শঠিবাড়ী, থানাঃ মিঠাপুকুর, জেলাঃ রংপুর।
র‌্যাব -১, স্পেশালাইজড কোম্পানী, গাজীপুর এই চাঞ্চল্যকর হত্যাকান্ডের ছায়া তদন্ত শুরু ও গোয়েন্দা নজরদারী বৃদ্ধি করে। এরই ধারাবাহিকায় গত ০১ এপ্রিল ২০২১ ইং তারিখে র‌্যাব-১, স্পেশালাইজড কোম্পানী, গাজীপুর এর একটি দক্ষ আভিযানিক দল ডিএমপির পল্লবীর বিভিন্ন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে (১) মাসুদুর রহমান (৩৭), পিতা-মোঃ রুস্তম আলী, মাতা-মোসাঃ রাহিমা খাতুন, সাং-গালিমপুর, থানা-কোটচাঁদপুর, জেলা-ঝিনাইদহ, (২) মোঃ আব্দুল হালিম (৩৬). পিতা- মোঃ আব্দুল হাকিম, মাতা- আছিয়া বেগম, সাং- জালালপুর, থানা- কোটচাঁদপুর, জেলা- ঝিনাইদহ এবং (৩) মোঃ লালটু মিয়া (৪১), পিতা- মোঃ আনোয়ার হোসেন, মাতা-কদভানু, সাং- চৌগাছা, থানা- চৌগাছা, জেলা- যশোর’দের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতরা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে কবির হোসেন (২২) হত্যাকান্ডের সাথে সরাসরি সম্পৃক্ততার স্বীকারোক্তি দেয়। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ ও বিভিন্ন তথ্য যাচাই বাছাই করে র‌্যাবের আভিযানিক দল আরো জানতে পারে, গত ২৫ মার্চ ২০২১ তারিখ ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে নারায়নগঞ্জ জেলার সোনারগাঁ উপজেলার বৈদ্যের বাজার ইউনিয়নের খংসারদি সেতুর নিচে অজ্ঞাত এক যুবকের মৃতদেহ পাওয়া যায়; সেই হত্যাকান্ডের সাথে উক্ত চক্রটি জড়িত রয়েছে বলে তারা স্বীকারোক্তি দেয়। র‌্যাব উক্ত অজ্ঞাত যুবকের পরিচয় উদঘাটন করে যথা মোঃ সাগর হোসেন (২৫), পিতা-আব্দুর রশিদ, সাং-নন্দইল হাটখোলা, থানা-পাচবিবি, জেলা-জয়পুরহাট। এই চক্রটি মানবপাচার, চাকুরী, প্রতারণা ও সুদের ব্যবসাসহ নানা রকম অবৈধ কার্যক্রমের সাথে জড়িত।
গ্রেফতারকৃতদের দখল হইতে হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত প্রাইভেটকার, ০২ টি গামছা, ০৫ টি মোবাইল ফোন, ০২ টি ল্যাপটপ, ০১ টি ডেক্সটপ, নগদ ১১,২৩০/- টাকা, বিভিন্ন ধরনের ভিজিটিং কার্ড, ১৫ টি বায়োডাটা, ফাকা স্ট্যাম্প ও প্রতারণার কাজে ব্যবহৃত বিভিন্ন ধরনের সিল এবং অফিস আইডি কার্ড উদ্ধার করা হয়। উপরোক্ত বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

five × 1 =