বাড়ি ছেড়ে যাওয়া সাতজনই নতুন জঙ্গি সংগঠনের সদস্য: র‍্যাব

0
20
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক : জঙ্গিবাদে জড়িয়ে পড়া দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে বাড়ি ছেড়ে যাওয়া চারজনসহ মোট সাতজনকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব। সংস্থাটি বলছে, তারা ‘জামাতুল আনসার ফিল হিন্দাল শারক্বীয়া’ নামে একটি নতুন জঙ্গি সংগঠনের সদস্য।
কুমিল্লা থেকে আট তরুণ নিখোঁজের পরপরই এ নিয়ে ছায়া তদন্তে নামে র‌্যাব। তদন্তের অংশ হিসেবে বিভিন্ন স্থানে তল্লাশি চালায় তারা। সেই ধারাবাহিকতায় শহরের একটি আবাসিক হোটেলে অভিযান চালান সংস্থার সদস্যরা। গত (২৪ আগস্ট) কুমিল্লা সদরের একটি হোটেলের সিসি ক্যামেরায় দেখা মেলে নিখোঁজ তরুণদের। সঙ্গে থাকা ব্যাগ দেখে র‌্যাবের ধারণা হয় বাড়ি ছাড়ার প্রস্তুতি নিয়েই বের হন তরুণরা। ওইদিনই বিকেলে চাঁদপুর রেলগেট এলাকায় দেখা যায় তাদের।
সম্প্রতি দেশের কয়েকটি জেলা থেকে নিখোঁজ হয় কয়েকজন তরুণ। পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় সাধারণ ডায়েরি করার পর বিষয়টি সামনে আসে। সন্দেহ করা হয় জঙ্গিবাদে উদ্বুদ্ধ হয়েই তারা ঘর ছেড়েছে। এরপর শুরু হয় তদন্ত।
এরই ধারাবাহিকতায় গতকাল বুধবার (০৫ অক্টোবর) রাতেও নারায়ণগঞ্জ, মুন্সিগঞ্জ ও ময়মনসিংহের বিভিন্ন এলাকা থেকে এ সাতজনকে ধরা হয়। সংস্থাটি বলছে, র‍্যাব সদর দফতরের গোয়েন্দা শাখা ও র‍্যাব-১১-এর অভিযানে তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে।
বৃহস্পতিবার (০৬ অক্টোবর) দুপুরে রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‍্যাবের মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে র‍্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন এসব তথ্য তুলে ধরেন।
তারা হলেন: হোসাইন আহম্মদ (৩৩), মো. নেছার উদ্দিন ওরফে উমায়ের (৩৪), বনি আমিন (২৭), ইমতিয়াজ আহমেদ ওরফে রিফাত (১৯), মো. হাসিবুল ইসলাম (২০), রোমান শিকদার (২৪), মো. সাবিত (১৯)। এর মধ্যে ইমতিয়াজ ও হাসিবুলের বাড়ি কুমিল্লায়। হোসাইন, নেছার, বনি ও সাবিতের বাড়ি পটুয়াখালীতে। রোমানের বাড়ি গোপালগঞ্জে।
র‌্যাবের এ কর্মকর্তা বলেন, গ্রেফতার ব্যক্তিদের কাছ থেকে নতুন জঙ্গি সংগঠনটির কর্মপদ্ধতি, প্রচারপত্র, বিস্ফোরক তৈরির নির্দেশিকা, উগ্রবাদী বই, ভিডিওসহ ট্যাব উদ্ধার করা হয়েছে।
তিনি আরও বলেন, হোসাইন পটুয়াখালীর একটি মাদ্রাসায় শিক্ষকতা করেন। তার কথামতো, নিষিদ্ধঘোষিত বিভিন্ন জঙ্গি সংগঠন থেকে কতিপয় সদস্যদের একীভূত করে ২০১৭ সালে নতুন জঙ্গি সংগঠনটির কার্যক্রম শুরু হয়। এই দলে জেএমবি, আনসার আল ইসলাম ও হুজির বিভিন্ন পর্যায়ের সদস্য রয়েছেন। ২০১৯ সালে সংগঠনটির নামকরণ করা হয় ‘জামাতুল আনসার ফিল হিন্দাল শারক্বীয়া’। হোসাইন সংগঠনের সদস্য সংগ্রহ ও তত্ত্বাবধানের দায়িত্বে ছিলেন। তিনি বিভিন্ন তাত্ত্বিক জ্ঞান ও প্রশিক্ষণ দিয়ে সদস্যদের সশস্ত্র হামলার বিষয়ে প্রস্তুত করে তুলতেন।
নেছার ভোলায় একটি সরকারি প্রতিষ্ঠানে বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ছিলেন। তিনি ২০১৯ সালের আগে উগ্রবাদী কার্যক্রমে যুক্ত হন। তিনি হিজরত করা সদস্যদের প্রশিক্ষক ও তত্ত্বাবধায়কের দায়িত্বে ছিলেন। তিনিও বিভিন্ন তাত্ত্বিক জ্ঞান ও প্রশিক্ষণ দিয়ে সদস্যদের সশস্ত্র হামলার বিষয়ে প্রস্তুত করে তুলতেন বলে জানান তিনি।
র‌্যাব কর্মকর্তা বলেন, বনি উচ্চ মাধ্যমিক পাস করে পটুয়াখালীতে ব্যবসা করতেন। তিনি ২০২০ সালে হোসাইনের মাধ্যমে জঙ্গিবাদে জড়িয়ে পড়েন। তিনি সদস্যদের আশ্রয় ও তত্ত্বাবধানের কাজ করতেন। রিফাত অর্থনীতি বিষয়ে স্নাতকে অধ্যয়নরত। হাসিব উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ে অধ্যয়নরত। তিনি একটি অনলাইন ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। তারা গত ২৩ আগস্ট বাড়ি থেকে নিরুদ্দেশ হন। তারা কুমিল্লার একটি মসজিদের ইমামের কাছ থেকে নতুন সংগঠনের বিষয়ে প্রাথমিক ধারণা পান। রোমান গোপালগঞ্জে ইলেকট্রিক ও স্যানিটারির কাজ করতেন। তিনি অনলাইনে বিভিন্ন ভিডিও দেখে উগ্রবাদে উদ্বুদ্ধ হন। স্থানীয় এক ব্যক্তির মাধ্যমে তিনি সংগঠন সম্পর্কে ধারণা পান। প্রায় এক মাস আগে বাড়ি থেকে নিরুদ্দেশ হন। সাবিত উত্তরা এলাকায় একটি ছাপাখানায় স্টোরকিপারের কাজ করতেন। তিনি তার এক আত্মীয় ও অনলাইনে ভিডিও দেখে উগ্রবাদে অনুপ্রাণিত হন। প্রায় এক মাস আগে তিনি নিখোঁজ হন।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here