বিদ্রোহী প্রার্থী মনোনয়ন হারালেন রিমির আসনে

0
35
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক : দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে গাজীপুর-৪ (কাপাসিয়া) আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নবঞ্চিত হওয়ার পর এবার যাচাই-বাছাইয়েও বাদ পড়লেন কৃষক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির উপদেষ্টা আলম আহমেদ। তিনি এ আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য ও আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য সিমিন হোসেন রিমির বিপক্ষে শক্তিশালী বিদ্রোহী প্রার্থী ছিলেন।
বাংলাদেশ ব্যাংকের ক্রেডিট ইনফরমেশন ব্যুরো (সিআইবি) শাখা কর্তৃক ঋণখেলাপি সংক্রান্ত রিপোর্টের পরিপ্রেক্ষিতে তার মনোনয়নপত্র বাতিল করেন জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা। যাচাই-বাছাইকালে আলম আহমেদ উপস্থিত ছিলেন না। তবে তাৎক্ষণিকভাবে তিনি প্রতিনিধি মারফত ঋণ হালনাগাদকরণ সংক্রান্ত প্রমাণপত্র পাঠালেও সেটি গ্রহণ করেননি জেলার নির্বাচনী কর্মকর্তারা।
অপরদিকে একই অভিযোগে (সিআইবি) রোববার জাতীয় পার্টির মনোনীত প্রার্থী এমএম নিয়াজ উদ্দিনের গাজীপুর-১ আসনের মনোনয়ন বাতিল করা হলেও সোমবার গাজীপুর-৫ আসনে তার মনোনয়ন বৈধ ঘোষণা করা হয়।
এমএম নিয়াজ উদ্দিন বলেন, আমার সব আপ টু ডেড আছে, কোনো সমস্যা নেই। তবুও কী কারণে গাজীপুর-১ আসনে আমার মনোনয়ন বাতিল করে ৫ আসনে বৈধ ঘোষণা করা হলো আমার বোধগম্য হচ্ছে না। যাচাই-বাছাইকালে আমি উপস্থিতও ছিলাম না। গাজীপুর-৫ আসনে আমার মনোনয়ন বৈধতার পক্ষে সোমবার নতুন করে কোনো কাগজপত্রও জমা দেইনি। গাজীপুর-১ আসনে আমার প্রার্থিতা অবৈধ ঘোষণা করায় আমি আপিল করব।
অপরদিকে গাজীপুর-৪ আসনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আলম আহমেদের প্রতিনিধি হিসেবে সোমবার বিকালে ব্যাংকের চিঠি নিয়ে জেলা নির্বাচনি অফিসে আসেন গাজীপুর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান আনিসুর রহমান আরিফ। তিনি বলেন, আমরা সরাসরি ব্যাংকের চিঠি এনে দিলেও নির্বাচনী অফিস সেটি রিসিভ করেনি। জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তার এ সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আমাদের প্রার্থী আপিল করবেন।
অপরদিকে পৌরকর খেলাপির অভিযোগে কালীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা আমজাদ হোসেন স্বপনের মনোনয়নপত্রও সোমবার বাতিল করা হয়েছে। তিনিও সোমবার তাৎক্ষণিকভাবে প্রতিনিধি মারফত বকেয়া পৌরকর পরিশোধের রশিদ দাখিল করলেও রিটার্নিং কর্মকর্তার অফিস সেটি রিসিভ করেনি। তিনিও আপিলে যাবেন বলে জানান।
প্রসঙ্গত, গাজীপুর মহানগর জাতীয় পার্টির সভাপতি ও সাবেক স্বাস্থ্য সচিব এমএম নিয়াজ উদ্দিন গাজীপুর-১ (কালিয়াকৈর ও আংশিক সিটি) ও ৫ (কালীগঞ্জ ও আংশিক সিটি) আসনে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছিলেন। এ দুটি আসনই গাজীপুর মহানগরের সঙ্গে যুক্ত।
গাজীপুর-১ আসনের বর্তমান এমপি মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক এবং গাজীপুর-৫ আসনের বর্তমান এমপি মহিলা আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সভানেত্রী মেহের আফরোজ চুমকি।
বঙ্গতাজ তাজউদ্দীন আহমেদের ভাগিনা আলম আহমেদের প্রার্থিতা বাতিল হওয়ার পর বর্তমানে গাজীপুর-৪ আসনে তাজউদ্দীন আহমদের মেয়ে সিমিন হোসেন রিমি এমপির সঙ্গে বৈধ প্রতিদ্বন্দ্বীরা হলেন- সামসুল হক (স্বতন্ত্র), জুয়েল কবির (জাকের পার্টির), সামসুদ্দিন খান (জাতীয় পার্টি), মাসুদ চৌধুরী (সুপ্রিম পার্টি), মোহাম্মদ সারোয়ার-ই কায়নাত (বিএনএফ), আব্দুর রউফ খান (বাংলাদেশ কংগ্রেস)।
অপরদিকে গাজীপুর-৫ আসনে আমজাদ হোসেন স্বপন বাদ যাওয়ার পরও মেহের আফরোজ চুমকি এমপির সঙ্গে বৈধ প্রতিদ্বন্দ্বীরা হলেন- আওয়ামী লীগের মনোননয়নবঞ্চিত বিদ্রোহী প্রার্থী সাবেক এমপি ও আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ডাকসুর সাবেক ভিপি-জিএস আখতারউজ্জামান, এমএম নিয়াজ উদ্দিন (জাতীয় পার্টি), উর্মি (বাংলাদেশ সুপ্রিম পার্টি), সোহেল মিয়া (গণফোরাম), আল আমিন দেওয়ান (ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ), সোহেল মিয়া (গণফোরাম), মোহাম্মদ তরিকুল ইসলাম আকন্দ (জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল), এএনএম মনিরুজ্জামান (জাকের পার্টি) ও মোহাম্মদ আমজাদ হোসেন (স্বতন্ত্র)।
আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে গাজীপুরের ৫টি সংসদীয় আসনে আওয়ামী লীগের মনোনীত ও মনোনয়ন বঞ্চিতসহ আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ট্রেনের যাত্রী বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের ও স্বতন্ত্র মিলে মোট ৪৪ জন প্রার্থী এবার মনোনয়নপত্র দাখিল করেছিলেন। গত রোববার ও সোমবার এসব মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই শেষে ৪১ জনের প্রার্থিতা বৈধ ঘোষণা করা হয় এবং ৩ জনের প্রার্থিতা বাতিল করা হয়। তাদের মধ্যে ২ জনের ঋণখেলাপি ও ১ জনের পৌরকর পরিশোধ না থাকায় মনোনয়ন বাতিল করা হলো।
এ ব্যাপারে রিটার্নিং কর্মকর্তা জেলা প্রশাসক আবুল ফাতে মোহাম্মদ সফিকুল ইসলাম বলেন, আমরা ঋণখেলাপির অভিযোগে ২ জনের ও পৌরকর খেলাপির অভিযোগে ১ জনের মোট ৩ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল করেছি; কিন্তু গাজীপুর-৪ আসনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আলম আহমেদের ঋণ পুনঃতফসিলিকরণের প্রমাণপত্র, গাজীপুর-৫ আসনে আমজাদ হোসেনের পৌরকর পরিশোধের রশিদ রিসিভ না করা এবং গাজীপুর-১ আসনে এমএম নিয়াজ উদ্দিনকে অবৈধ ঘোষণা করে গাজীপুর-৫ আসনে তার প্রার্থিতা বৈধকরণ প্রসঙ্গ তিনি (রিটার্নিং কর্মকর্তা) এড়িয়ে যান।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here