বিশ্ব ইজতেমা দ্বিতীয় পর্ব কাল শুরু: মত-ভেদাভেদ ভুলে শান্তি বজায় রাখার আহবান

0
437
728×90 Banner

নাসির উদ্দীন বুলবুল,শেখ আজিজুল হক,মৃণাল চৌধুরী সৈকত : ইসলাম অনুসারীদের সকল মত-ভেদাভেদ ভূলে গিয়ে ঐক্যবদ্ধ ভাবে শান্তি বজায় রাখা এবং পৃথিবীর প্রতিটি দেশে সুখ, শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করে এবং শান্তিপূর্ণ ভাবে আখেরী মোনাজাত অনুষ্টিত হয়েছে। শনিবার সকালে বিশ্ব ইজতেমার ৫৪তম আসরে জোবায়েরপন্থীদের এই মোনাজাত পরিচালনা করেন বিশ্ব তাবলিগ জামাতের শীর্ষস্থানীয় মুরব্বি ঢাকার কাকরাইল মসজিদের পেশ ইমাম মুহাম্মদ জোবায়ের। তিনি আরবি ও বাংলা ভাষায় মোনাজাত পরিচালনা করেন। ২৪ মিনিটের মোনাজাতে তিনি প্রথম ১৩ মিনিট আরবিতে আর শেষ ১১ মিনিট বাংলায় দোয়া করেন। মোনাজাত শেষ হয় সকাল ১০টা ৪০ মিনিটে। ইজতেমা ময়দানে বিদেশী নিবাসের পূর্বপাশে বিশেষভাবে স্থাপিত মঞ্চ থেকে এ মোনাজাত পরিচালনা করা হয়।
মোনাজাতের পূর্বে হেদায়েতি বয়ান করা হয়। বয়ান করেন মাওলানা খুরশিদ আলম। সকাল ৮টা থেকে হেদায়েতি বয়ান শুরু করেন তিনি। দীর্ঘ বয়ান শেষে শুরু হয় মোনাজাত।
আখেরী মোনাজাতে আল্লাহতায়ালার প্রতি লাখ লাখ মসুল্লির অশ্রুসিক্ত নয়নে কাকুতি মিনতির মধ্যদিয়ে মাওলানা জোবায়ের পহ্নিদের প্রথমাংশের ৫৪ তম বিশ্ব ইজতেমা সমাপ্ত ঘোষনা করা হয়েছে। সেই সাথে আজ থেকে আমবয়ানের মধ্যদিয়ে শুরু হচ্ছে মাওলানা সাদ কান্ধলভী অনুসারীদের ২ দিন ব্যাপী দ্বিতীয়াংশের বিশ্ব ইজতেমা। আগামী সোমবার সকাল ১০ থেকে ১১ টার মধ্যে অনুষ্ঠিত হবে দ্বিতীয়াংশের মোনাজাত।
বিশ্ব ইজতেমার প্রথমাংশের মোনাজাতে যোগ দিতে হাজার হাজার ধর্মপ্রাণ মুসুল্লি নানা বিড়ম্বনাকে উপেক্ষা করে ঢাকাসহ আশপাশের জেলা থেকে সকালেই টঙ্গীর ইজতেমা ময়দানে ছুটে আসে। আগের দিন জুম্মাবার হওয়ায় সকাল থেকেই টঙ্গী ও আশপাশ এলাকার লাখো মুসুল্লির ঢল নামে টঙ্গীর কহর দরিয়া তুরাগ তীরে। নামাজের আগেই ইজতেমার পুরো প্যান্ডেল ও ময়দান কানায় কানায় ভরে যায়। অন্যান্য বছরের মতো এবারও উপস্থিত লাখ লাখ মুসল্লির উদ্দেশে যথারীতি তবলিগের ৬ উসুল অর্থাৎ কালেমা, নামাজ, এলেম ও জিকির, একরামুল মুসলিমিন, সহিহ নিয়ত ও তবলিগ বিষয়ে আমবয়ানের মাধ্যমে ইজতেমার প্রথম পর্বের দুদিনের কার্যক্রম শুরু হয়।
সূত্রমতে বিশ্ব ইজতেমাকে কেন্ত্র করে বিবাদমান জোবায়ের পহ্নি ও সাদ পহ্নিদের মধ্যে সৃষ্ট পরিস্থিতি মোকাবেলা করে স্বরাষ্ট্র ও ধর্ম মন্ত্রণালয়ের মধ্যস্থতায় তাবলিগের উভয় গ্রুপের উপস্থিতিতে এবারের ইজতেমা একসঙ্গে আয়োজনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। তারপরও ইজতেমা ময়দানে বয়ান ও আখেরি মোনাজাতকে কেন্দ্র করে বিবাদমান পরিস্থিতি সামাল দিতে প্রশাসনিক ব্যবস্থা জোরদার করে সরকারের নিয়ন্ত্রনে একসঙ্গে অনুষ্ঠিত এ ইজতেমা দুই ধাপে আলাদা আলাদা বয়ান ও মোনাজাতের ব্যবস্থা করা।
আজ মোনাজাত স্যাটেলাইট টেলিভিশনে সরাসরি সম্প্রচার করা হয়েছে। একই ভাবে প্রচারিত হবে সাদ পহ্নিদের ইজতেমা ও মোনাজাত।
সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, মোনাজাতের সময় টঙ্গী, আব্দুল্লাহপুর, উত্তরা, তুরাগ, কামারপাড়ার বিস্তীর্ণ এলাকাজুড়ে নেমে আসে আবেগঘন পরিবেশে পিনপতন নীরবতা। মানুষ যে যেখানে ছিলেন সেখান থেকেই মোনাজাতে অংশ নিয়েছেন। অনেকে বিমানবন্দর গোল চত্বর ও উত্তরা থেকে মোনাজাতে অংশ নিয়েছেন। মোনাজাত উপলক্ষে টঙ্গী, গাজীপুর, উত্তরাসহ আশপাশের এলাকার সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মার্কেট, বিপণিবিতান, অফিস বন্ধ থাকলেও স্থানীয় অধিকাংশ গার্মেন্টস কারখানা গুলো ছিলো খোলা।
এদিকে গাজীপুরের পুলিশ কমিশনার ওয়াই এম বেলালুর রহমান জানান, প্রথমাংশের মোনাজাতের পর শনিবার রাত ১২টার মধ্যে পুরো ইজতেমা ময়দান খালি করে পুলিশ এর নিয়ন্ত্রণ নেবে। তার আগেই জুবায়েরপন্থীদের মাঠ ছাড়তে বলা হয়েছে। পরে সাদ পন্থীদের মাঠ বুঝিয়ে দেওয়া হবে। সাদ পন্থীরা রোববার সকাল ৭টার পর মাঠে প্রবেশ করবেন।
অপরদিকে ইজতেমা ময়দান থেকে ২০২০ সালের বিশ্ব ইজতেমার তারিখ ঘোষণা করা হয়েছে। জোবায়ের পন্থীদের আখেরি মোনাজাতের পর ২০২০ সালের বিশ্ব ইজতেমার তারিখ মাইকে ঘোষণা করা হয়। ইজতেমার শীর্ষস্থানীয় মুরব্বি প্রকৌশলী মাহফুজুর রহমান জানান, সিদ্ধান্ত মোতাবেক ২০২০ সালের বিশ্ব ইজতেমা হবে ১০, ১১ ও ১২ জানুয়ারি এবং ১৭, ১৮ ও ১৯ জানুয়ারি।
সমাপনী ও হেদায়েতী বয়ান :- আজ আখেরী মোনাজাতের পূর্বে হেদায়াতি বয়ান করেন মাওলানা খুরশিদ আলম। তিনি বাংলা ভাষায় ইমান, নামাজ, আমল, তালিম, এলেম, জিকির, দাওয়াতের গুরুত্ব তুলে ধরে বয়ান রাখেন। এসময় তিনি কোরআন তেলাওয়াত সর্বোত্তম ঝিকির বলে উল্লেখ করেন। প্রত্যেক মুসলমানের ওপরই নামাজ ফরজ, নামাজকে শিখতে হবে, নামাজ আদায় করতে হবে। নামাজের মাধ্যমে আল্লাহ রাব্বআল ইজ্জতকে রাজি খুশি করে কবরকে আবাদ করতে হবে। নামাজ এমনভাবে আদায় করতে হবে, যেমনি নবী করিম (সা.) আদায় করেছেন। নামাজের মধ্যে অলসতা মুনাফেকের স্বভাব। মুনাফেকরা নামাজকে বড় ভারি মনে করে। মুসলমানতো নামাজে অলসতা করতে পারে না। তিনি বলেন, ফরজ নামাজতো আমরা পড়বই, সাথে সাথে তাহাজ্জুতসহ এবং অন্যান্য নফল নামাজ আদায় করবো। একটি হাদিসের উদ্বৃতি দিয়ে তিনি বলেন, যখন মানুষ ফরজ নামাজের পাশাপাশি তাহাজ্জুত ও নফল নামাজ আদায় করবে তখন বান্দার আল্লাহ তায়ালার নৈকট্য হাসিল হয়ে যাবে।
এছাড়াও ইজতেমা মাঠে ঈমান, আমল, আখলাক ও দ্বীনের পথে মেহনতের ওপর বয়ান করেন আলেমরা। দেশ-বিদেশ থেকে আগত মুরব্বিরা তাবলীগের ছয় উছুলের মধ্যে দাওয়াতে দ্বীনের মেহনতের ওপর গুরুত্বারোপ করেন। ইজতেমা শেষে আগত ১.২.৩ চিল্লার মুসল্লিরা দ্বীনের দাওয়াতি কাজে দেশ বিদেশে বেরিয়ে যাবেন।
এবারের বিশ্ব ইজতেমায় অনেক বিদেশি শীর্ষ আলেম ওলামা ও মুরব্বিগন অংশ নিয়েছেন। ভারতের তাবলিগের শীর্ষ মুরব্বি ও দিল্লির নিজামুদ্দিন মারকাজের অন্যতম মুরব্বি মাওলানা আহমদ লাট, মাওলানা ইব্রাহিম দেওলা ও মাওলানা যুহাইরুল হাসান বিন মাওলানা জুবায়েরুল হাসানও অংশ নিয়েছেন এ বিশ্ব ইজতেমায়। অন্যদিকে তাবলিগের আলেম উপদেষ্টা কমিটির সদস্য আল্লামা আশরাফ আলী, আল্লামা মাহমুদুল হাসান, আল্লামা আবদুল কুদ্দুসসহ শীর্ষ ওলামায়ে কেরাম মুফতি শামিম, মিয়াজি মাওলানা ফুল, মুফতি শরিফ, মাওলানা জামসিদ এবং বিশ্ব বিখ্যাত আলেম ইউসুফ সালানির সন্তান মাওলানা ইয়াকুব, মাওলানা ফারুক ব্যাঙ্গালার, মাওলানা সানাউল্লাহ আলীগড়, মাওলানা নাফিস, মুফতি আব্দুর রহিম, শায়খুল হাদিস আব্দুর রশিদ, মাওলানা আব্দুল হান্নান, মাওলানা শামসুর রহমান, মাওলানা গাজাইল, প্রফেসর আব্দুল আলিম, শায়খ ইলিয়াস (বাড়াবাকিং), শায়খ আলাউদ্দিন (মেওয়াত), মুফতি আব্দুল সাত্তার, মাওলানা ইয়াকুব, শায়েখ ইউসুফ, মিয়াজি আজমত, মুফতি শওকত বিশ্ব ইজতেমার শুরু থেকেই মাঠে উপস্থিত ছিলেন।
এবছর বিভিন্ন জল্পনা কল্পনা আর দ্বিধা-দন্ধের মাঝেও দ্বিতীয়া অংশে অনুষ্ঠিত বিশ্ব ইজতেমায় অংশগ্রহণ করার কথা রয়েছে মাওলানা সাদ কান্ধলভির বড় ছেলে মুফতি ইউসুফ বিন সাদ কান্ধলভি। বেশ কয়েক বছর ধরে তিনিও ইজতেমা ময়দানে গুরুত্বপূর্ণ বয়ান পেশ করে আসছেন। এবারের ইজতেমায় তার গুরুত্বপূর্ণ বয়ান পেশ করার কথা রয়েছে। সৌদি আরবসহ বিভিন্ন মুসলিম দেশের বিশ্ব তাবলিগের শুরা সদস্যরা এবার দ্বিতীয়াংশের ইজতেমায় অংশগ্রহণ করবেন।
তবে পাকিস্তান তাবলিগের কোনো মুরব্বির এবারের ইজতেমায় অংশগ্রহণের সম্ভাবনা নেই। এমন কি তাবলিগ জামাতের অন্যতম দাঈ আল্লামা তারিক জামাল ইচ্ছে থাকা সত্তে¡ও বিশেষ কারণে অংশগ্রহণ করতে পারছেন না বলে জানা গেছে।
উল্লেখ্য, এবারের বিশ্ব ইজতেমা ১৫-১৮ ফেব্রুয়ারী ২০১৯ ইং ৪ দিন হওয়ার কথা থাকলেও মূলত ১৪ ফেব্রুয়ারী বৃহস্পতিবার বাদ ফজর আম বয়ানের মধ্যদিয়ে শুরু হয়েছে বিশ্ব ইজতেমা। ওইদিন বাদ ফজর ঈমান, আমল ও সময়ের গুরুত্ব তুলে ধরে আম বয়ানের মাধ্যমে শুরু হয়েছে বিশ্ব ইজতেমা।
বিভিন্ন সড়ক-মহাসড়কে ইজতেমা ফেরত মুসল্লিদের ভিড় :- প্রথমাংশের বিশ্ব ইজতেমার আখেরি মোনাজাত শেষে মুসল্লিরা ঘরে ফিরতে শুরু করেছেন। টঙ্গী ইজতেমা প্রাঙ্গণ থেকে আব্দুল্লাহপুর, কামারপাড়া, টঙ্গী বাজার, স্টেশনরোড, চেরাগআলীর সড়ক-মহাসড়কসহ রেলওয়ে ষ্টেশন টঙ্গী, বিমানবন্দর, জয়দেবপুরে মানুষের প্রচন্ড ভিড় এবং মুসল্লিদের ঘরে ফেরার তাগিদ লক্ষ্য করা গেছে। জোবায়ের পহ্নিদের শনিবার রাত ১২ টার মধ্যে ইজতেমা ময়দান খালি করে স্থানীয় প্রশাসনের হাতে বুঝিয়ে দেয়ার পর রোববার সকাল ৭ টা থেকে সাদ পহ্নীরা ময়দানে প্রবেশ ও তাদের কার্যক্রম শুরু করবেন।
মুসল্লিদের বিড়ম্বনা ও যানজট :- আখেরি মোনাজাত শেষ হওয়ার পর এক সঙ্গে লাখ লাখ মানুষ ফিরতে শুরু করলে সর্বত্র মহা যানজটের সৃষ্টি হয়। টঙ্গী স্টেশনে ফিরতি যাত্রীদের জন্য অপেক্ষমান ট্রেনগুলোতে উঠতে মানুষের জীবন বাজির লড়াই ছিল উদ্বেগজনক। ট্রেনের ভিতরে জায়গা না পেয়ে ছাদে ও দরজা-জানালায় ঝুলে শত শত মানুষ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ফিরতে দেখা যায়। ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক ও আশুলিয়া সড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকায় ফিরতি মুসল্লিদের বিড়ম্বনা ও কষ্টের সীমা ছিল না। ইজতেমা উপলক্ষ্যে টঙ্গীতে জমায়েত হওয়া মুসল্লিরা যোহরের নামাযের পর এক যোগে নিজ নিজ গন্তব্যে ফিরতে চাইলে অবর্ণনীয় দুর্ভোগের শিকার হন। হাজার হাজার বৃদ্ধ, শিশু-কিশোর ও মহিলাসহ কওমী মাদ্রাসার ছাত্ররা মাইলের পর মাইল হেঁটে মোনাজাতে শরীক হন এবং একইভাবে ফিরে যেতে দেখা যায়। বিকেলে সীমিত আকারে যানবাহন চলাচল শুরু হলেও পরিস্থিতির তেমন কোন উন্নতি হয়নি। এতে মুসল্লিরা চরম দুর্ভোগে পড়েন। দুর দুরান্তের যাত্রীরা রিকসা-ভ্যান, টেম্পু, ট্রাক, কাভার্ডভ্যানে চড়ে বাড়ির উদ্দেশ্যে রওয়ান দিতে দেখা গেছে।
মোনাজাতে মহিলাদের অংশগ্রহণ :- আখেরী মোনাজাতে অংশ নিতে বিভিন্ন এলাকা থেকে কয়েক হাজার মহিলা মুসল্লি গত শুক্রবার রাত থেকে ইজতেমা ময়দানের আশেপাশে, বিভিন্ন মিলকারখানা, বাসা-বাড়ি, স্কুল কলেজ ও বিভিন্ন দালানের ছাঁদে বসে আখেরী মোনাজাতে অংশ নেন।
মোনাজাতে বেতার ও টিভির মাধ্যম এবং মাইকের ব্যবস্থা : আখেরী মোনাজাতের সময় বেতার ও ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ার মাধ্যমেও দেশের বিভিন্ন জেলা থানা ও গ্রামাঞ্চলের লাখ লাখ নারী-পুরুষ ও শিশু-কিশোর মোনাজাতে অংশ নিয়েছেন বলে বিভিন্ন সুত্রে জানা গেছে। এছাড়াও এবছর রেডিও-টিভিতে ইজতেমা ময়দানের আশপাশ থেকে মোনাজাত প্রচার করা হয়েছে। এদিকে বিশ্ব ইজতেমার প্রথমাংশের আখেরি মোনাজাত প্রচারের জন্য গণ যোগাযোগ অধিদপ্তর বা গাজীপুর জেলা তথ্য অফিসের উদ্যোগে ইজতেমা ময়দানের আশপাশে তেম কোন মাইকের ব্যবস্থা ছিল না। ফলে অনেকেই মোনাজাতে সময় মতো অংশ নিতে পারেনি বলে জানিয়েছেন সাধারণ মানুষ।
ময়দানের আশপাশে ময়লার স্তুপ :- ইজতেমা ময়দানের উত্তর পাশে টঙ্গী-আশুলিয়া রোডের ফুটপাতে, পশ্চিম ও দক্ষিণ দিকে তুরাগ নদের তীরসংলগ্ন এলাকা, টঙ্গী ষ্টেশন রোড এলাকাসহ ঢাকা ময়মনসিংহ রোড ও ইজতেমা ময়দানে প্রথমাংশে অনুষ্ঠিত ইজতেমায় অংশ নেয়া মুসল্লিদের ফেলে যাওয়া উচ্ছিষ্ট ও নানা ধরণের আর্বজনার স্তুপ পড়ে আছে। সেগুলো থেকে দূগন্ধ ছড়াচ্ছে। তবে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশ কর্তৃপক্ষ ইতিমধ্যে সেগুলো অপসারনের কাজ করতে দেখা গেছে।
ভিক্ষুকের আনাগোনা :- বিশ্ব ইজতেমা শুরু হওয়ার আগেই ময়দানের চারপাশের ফুটপাত গুলোতে ভিক্ষুকের আনাগোনা বেড়ে গেছে। নোংরা ও ময়লা কাপড় পরে সাহায্যের জন্য মুসল্লিদের পথ আগলে ধরায় অনেক মুসল্লিরা বিব্রতবোধ করেন। এদিকে বিদেশী মুসল্লি¬দের নিবাস এলাকায় ভিক্ষুকদের ভিড়তে নিষেধ থাকা সত্তে¡ও ভিক্ষুকদেরকে বারবার বিদেশীদের পথ আগলে ধরে ভিক্ষা চাইতে দেখা গেছে। তাছাড়া এবছর শিশু ও মহিলা ভিক্ষুকদের আনাগোনা নজরে পড়ার মতো।
অবৈধ দোকানপাট মুসল্লিদের যাতায়াতে কষ্ট : পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকা সত্বেও ময়দানের চারপাশে ভাসমান দোকানদাররা হরেক রকমের দোকানের পসরা সাঁজিয়ে বসায় ইজতেমায় আগত মুসল্লিদের যাতায়াতে বেশ কষ্ট পোহাতে হচ্ছে। মুসল্লিদের মালামাল কেনার জন্য বিভিন্নভাবে ডাকচিৎকার করে আহবান করছেন ফুটপাত ব্যবসায়ীরা। পুলিশ বার বার তাদের বাধা প্রদান করলেও থামছে না না হকাররা।
ইজতেমা ময়দানে মোবাইল নেটওয়ার্ক সমস্যা :- শুক্রবার সকাল থেকে ইজতেমা ময়দান ও টঙ্গী আশপাশ এলাকা থেকে দেশের বিভিন্নস্থানে নেটওয়ার্ক যোগাযোগ ছিলো খুবই দূর্বল। মাঝে মধ্যে লাইন পেলেও মূহুর্তেই কেটে যাচ্ছিল। মোবাইল ফোন কোম্পানীগুলো নেটওর্য়াক সুবিধা দিতে ইজতেমা উপলক্ষে ইজতেমার আশপাশ এলাকায় অতিরিক্ত মোবাইল টাওয়ার সংযোগ করলেও এ সমস্যার সমাধান দিতে পারেনি।
পরিত্যক্ত জুতা ও পত্রিকার কাগজ :- আখেরী মোনাজাত শেষে হুড়োহুড়ি করে ইজতেমা ময়দান থেকে বের হতে গিয়ে অগনিত জুতা ও সেন্ডেল ফেলেই খালি পায়ে মাঠ ত্যাগ করেন ধর্মপ্রাণ অনেক মুসল্লিরা¬। এছাড়াও মোনাজাত শেষে ইজতেমা মাঠ ও আশপাশের সড়কগুলোকে বিপুল পরিমাণ পত্রিকার কাগজ, জুতা ও সেন্ডেল পড়ে থাকতে দেখা যায়। টোকাইরা পরিত্যক্ত জুতা ও সেন্ডেল বস্তায় ভরে নিয়ে যেতে দেখা গেছে।
চিকিৎসা সেবা :- স্বাস্থ্য বিভাগের কন্ট্রোল রুমে দায়িত্বরত গাজীপুর সদর উপজেলার সহকারি স্বাস্থ্য পরিদর্শক জানান, টঙ্গী হাসপাতাল ও সিভিল সার্জনের তত্ববধানে ফ্রি মেডিক্যাল ক্যাম্পে শনিবার বিকেল ৪ টা পর্যন্ত বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত প্রায় ৫শতকের অধিক মুসুল্লী চিকিৎসা নিয়েছেন। এছাড়া আশে-পাশের বিভিন্ন ফ্রি মেডিক্যাল ক্যাম্পে আরো প্রায় ১২ হাজার ৬ শ মুসুল্লীকে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।
পকেটমার-ছিনতাইকারী গ্রেফতার :- গত ১৪ ফেব্রুয়ারী রাত থেকে ১৬ ফেব্রুয়ারী দুপুর পর্যন্ত ইজতেমাস্থলের আশে-পাশের এলাকায় অভিযান চালিয়ে টঙ্গী, উত্তরা, তুরাগ থানা পুলিশ, ডিবি পুলিশ, র‌্যাব ও বিভিন্ন গোয়েন্দা পুলিশ পকেটমার-ছিনতাইকারীসহ বিভিন্ন অপরাধে প্রায় ৩ শতাধিক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে বলে জানিয়েছেন টঙ্গী মডেল থানার অফিসার্স ইনচার্জ মো: কামাল হোসেন।
ওজুর পানি ও পত্রিকা বিক্রির ধুম :- বিশ্ব ইজতেমাকে পুঁজি করে এক শ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ী আজ বিশ্ব ইজতেমার আখেরী মোনাজাতের পুর্ব মুহুর্তে আশপাশের এলাকায় পানি সংকট দেখা দেয়ায় এবং মুসল্লিরা ময়দানে প্রবেশ করতে না পারায় বাইরে অবস্থান নিলে মোনাজাতের পূর্ব মূহুর্তে ময়দানের আশপাশে প্রকাশ্যে ওজুর পানি বিক্রি করতে দেখা গেছে। প্রতি বদনা ওজু’র পানি ৫/১০ টাকায়, প্রতি পত্রিকার পাতা ৫/১০ টাকায়, প্লাষ্টিকের বস্তা প্রতিটি ১০/১৫ টাকায় এবং ছালার বস্তা প্রতিটি ১৫/২০ টাকায় বিক্রির করতে দেখা গেছে।
পরিবহনে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় সংকটে মুসল্লিরা :- অন্যদিকে দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বে আগত ধর্মপ্রাণ মুসুল্লিদের কাছ থেকে পরিবহন মালিকসহ তাদের শ্রমিক কর্মচারীরা বাংলাদেশ সরকারের বেঁধে দেয়া ভাড়াকে উপেক্ষা করে দ্বিগুন ভাড়া আদায় করায় মুসুল্লিরা চরম দুর্ভোগ ও হয়রানীর শিকার হচ্ছে বলে মুসল্লিরা অভিযোগ করেন।
মোনাজাতে যা বলা হয় ঃ মোনাজাত পরিচালনা করেন রাজধানীর কাকরাইল ভিত্তিক তাবলীগের প্রধান মারকাজের শুরার অন্যতম সদস্য হাফেজ হজরত মাওলানা মুহাম্মদ যোবায়ের। মোনাজাতের শুরুতে প্রায় ১৩ মিনিট তিনি প্রথমে পবিত্র কুরআনে বর্ণিত কিছু দোয়ার আয়াত উচ্চারণ করেন এবং পরে বাংলা ভাষায় মোনাজাত পরিচালনা করেন। মোনাজাতে তিনি বলেন, হে আল্লাহ আমাদের অন্তর থেকে কুফরি, মোনাফেকি দূর করে দাও। হে আল্লাহ, তোমার নির্দেশিত পথে চলার তৌফিক দাও। হে আল্লাহ, আমাদের সকল নেক হাজাত পূরণ করে দাও। হে রাহমানুর রাহীম আমাদের ওপর রহম করো। আমাদেরকে রোগ-ব্যাধি থেকে মুক্তি দাও। আমাদের ওপর দয়া করো যেভাবে তুমি তোমার নেক বান্দাদের ওপর রহম করেছ। হে আল্লাহ, আমাদের পরিপূর্ন ইমান দাও। তোমার আজাব থেকে পরিত্রাণ দিয়ে জান্নাত নসিব করো। জাহান্নামের আগুন আমাদের জন্য হারাম করে দাও।
কায়মনোবক্যে আকুতি জানিয়ে মোনাজতে আরো বলা হয়, হে আল্লাহ তুমি তো ক্ষমাশীল, তোমার কাছেইতো আমরা ক্ষমা চাইব। দ্বীনের উপর আমাদের চলা সহজ করে দাও। হে আল্লাহ, তুমি আমাদের উপর সন্তুষ্ট হয়ে যাও। আমরা যেন তোমার সন্তুষ্টি মাফিক চলতে পারি সে তওফিক দাও। দুনিয়ার সকল বালা-মসিবত থেকে আমাদের হেফাজত করো। নবীওয়ালা জিন্দেগী আমাদের নসীব করো। ইজতেমাকে কবুল করো। ইজতেমার আয়োজনে যারা শ্রম দিয়েছে তাদের কবুল করো। যারা তোমার কাছে হাত তুলেছে সকলকে তুমি কবুল করো। ইজতেমার বক্তা ও শ্রোতা সকলকে তুমি কবুল করো। কান্না জড়িত কণ্ঠে তিনি আকুতি জানিয়ে বলেন, হে আল্লাহ ! দাওয়াতে তাবলিগকে বিশ্বব্যাপী প্রসারিত করো। এ কাজকে আপনি হেফাজত করুন। পুরো দ্বীনকে দুনিয়াতে জিন্দা করে দিন। ইমানকে মজবুত করে দিন। ইমানের সহিত মওত নসিব করুন। আপনার হাবীবের সুন্নতকে আমাদের জীবনে কায়েম করে দিন। তামাম জীবন যাতে আপনার হাবীবকে অনুসরণ-অনুকরণ করতে পারি সেই তাওফিক দিন। কামাই-রোজগারে বরকত দাও। নাফরমানি জীবন খতম করে দিন। সারা দুনিয়া থেকে নাফরমানি খতম করে দিন। আমাদেরকে আখেরাতওয়ালা বানিয়ে দাও। আমাদেরকে দুনিয়াওয়ালা করো না। আমাদেরকে কিয়ামতের কঠিন আজাব থেকে রক্ষা করো, হাওজে কাওসার নসিব করো। আমাদের জবান আপনার জিকির দ্বারা জিন্দা করে দিন। আমাদের আমল-আখলাক সুন্দর করে দিন। মুসলমানদের জান-মাল-ইজ্জত-আব্রু হেফাজত করুন। দ্বীনের ভেতর মহব্বত পয়দা করে দিন। সকলেেক এক করে দিন। দুনিয়ায় খেলাফত কায়েম করে দিন। লোক দেখানো কাজকে কতম করে দিন। আমারেকে আপনার বানিয়ে দিন। ভুল-ক্রুটি ক্ষমা করে দিন। পুরো উম্মতে তালিমের মধ্যে লাগিয়ে দিন। জগতে হানাহানি-মারামারি খতম করে শান্তিময় জিন্দিগি কায়েম করে দিন। বাতিলের আওয়াজ ও চক্রান্ত খতম করে দিন। মুর্খতা দূর করে জাহিলিয়াতি খতম করে দিন। আমাদেরকে ইলমে জিন্দিগি দান করুন। আমাদের কাছে দুনিয়াকে নিকৃষ্ট ও আখেরাতকে বড় বানিয়ে দিন।
ইজতেমায় ভিআইপিদের অংশগ্রহণ ঃ মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আলহাজ¦ এড. আ.ক.ম মোজাম্মেল হক এমপি, ধর্ম প্রতিমন্ত্রী এড. শেখ মো: আব্দুল্লাহ এমপি, যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী আলহাজ¦ মো: জাহিদ আহসান রাসেল এমপি, আব্দুল মতিন খসরু এমপি, গাজীপুর সিটি মেয়র আলহাজ¦ এড. মো: জাহাঙ্গীর আলম, জেলা প্রশাসক ড. দেওয়ান মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির, গাজীপুর পুলিশ কমিশনার ওয়াইএম বেলালুর রহমানসহ সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ের পদস্থ কর্মকর্তাগণ ও বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ ইজতিমায় উপস্থিত থিকে মোনাজাতে শরিক হন।
আখেরি মোনাজাতে নিরাপত্তা ঃ গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার ওয়াই এম বেলালুর রহমান জানান, আখেরি মোনাজাতের পর মুসল্লীদের বাড়ি ফেরা পর্যন্ত ইজতেমা ময়দানসহ আশপাশের এলাকায় পুলিশের নিরাপত্তা অব্যাহত থাকবে। এছাড়া সাদা পোশাকে মুসল্লীদের বেশে খিত্তায় খিত্তায় পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।
ফ্রি চিকিৎসা ক্যাম্প ঃ গাজীপুর সিটি করপোরেশন, হামদর্দ, ইবনে সিনা, ইসলামিক মিশন, যমুনা ব্যাংক ফাউন্ডেশন, জহিরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, ইন্টারন্যাশনাল মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, হাফেজি হুজুর সেবা সংস্থা, হোমিওপ্যাথিক ওয়েলফেয়ার, বাংলাদেশ ইউনানি-আয়ুর্বেদিক, বঙ্গবন্ধু ইউনানী-আয়ুর্বেদিক ও হোমিওপ্যাথিক ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্পসহ বেশ কিছু সংগঠন ইজতেমা ময়দানে বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা দিচ্ছে।
ইজতেমা মাঠে আরও দুই মুসল্লী ৬ মুসল্লীর মৃত্যু ঃ ৫৪তম বিশ্ব ইজতেমায় আগত আরও দুই মুসল্লী ইন্তেকাল করেছেন। আজ শনিবার ভোরে ঢাকার কদমতলা এলাকার মো. আবুল হোসেন (৫৫) ভোর ৫টার দিকে নিজ খিত্তায় অসুস্থ হয়ে পড়েন। টঙ্গী শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যান তিনি। এর আগে শুক্রবার দুপুরে আব্দুর রহমান (৫৫) নামে আরও এক মুসল্লী মারা যান। তিনি সিরাজগঞ্জের বেলকুচি থানার মৃত হাতেম আলীর ছেলে। ইজতেমা মাঠে জানাজা শেষে তাদের লাশ গ্রামের বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়া হয়। ইজতেমা মাঠের লাশের জিম্মাদার আদম আলী এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, এ নিয়ে ইজতেমায় অংশগ্রহণকারী ৬ জন মুসল্লী মারা গেলেন। এর আগে শুক্রবার ভোর পৌনে ৫টার দিকে ফেনীর সফিকুর রহমান (৫৮) এবং বৃস্পতিবার দিবাগত রাত ২টার দিকে কুষ্টিয়ার মো. সিরাজুল ইসলাম (৬৫) নামে দুই মুসল্লী মারা যান। এছাড়া গত বৃহস্পতিবার দুপুরে নাটোরের মো. আলী (৫৫) এবং ১৩ ফেব্রুয়ারি বুধবার দিবাগত রাত ৩টার দিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আব্দুল জব্বার (৪০) মারা যান। তারা সবাই হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন বলে জানা গেছে।
মুসল্লিদের বাঁধভাঙ্গা জোয়ার ঃ আজ সমগ্র দেশবাসীর দৃষ্টি ছিল টঙ্গীর দিকে। টঙ্গী হয়ে উঠে ছিল সকল পথের মোহনা। আখেরী মুনাজাতে শরীক হতে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে র্ধমপ্রাণ মুসল্লিগণ টঙ্গী অভিমুখে ছুটতে থাকেন শনিবার থেকে। বিশ্ব ইজতেমায় অংশগ্রহনকারীরা ছাড়াও কেবলমাত্র আখেরী মোনাজাতে শরীক হতে দূর-দূরান্ত থেকে মুসল্লিগন বাস, ট্রাক, মিনিবাস, কার, মাইক্রোবাস, ট্রেন, লঞ্চ ও ট্রলারে করে টঙ্গীতে পৌছে অবস্থান নিতে শুরু করেন। রাজধানীসহ পার্শ্ববর্তী এলাকার লোকজন ভিড় এড়াতে নানা ঝক্কি ঝামেলা উপেক্ষা করে রাতেই টঙ্গীমুখো হন। টঙ্গী, গাজীপুর ও রাজধানী ঢাকার সরকারী বেসরকারী অফিস, ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান, দোকানপাট, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সর্বত্রই ছিল পূর্ণ ছুটির আমেজ। শনিবার মধ্য রাত থেকে টঙ্গীমুখি সকল প্রকার যান চলাচল বন্ধ করে দেওয়ায় দীর্ঘ পথ হেটে টঙ্গী পৌছতে হয়েছে লাখ লাখ মানুষকে। কয়েক লাখ মানুষ রাতেই ইজতেমার মাঠ কিংবা আশপাশের বাসা-বাড়ী, ভবন, ভবনের ছাদ কিংবা করিডোরে এমনকি গাছতলায় অবস্থান নেয়। আজ ভোররাত থেকে যানবাহন শূন্য সড়ক-মহাসড়ক ও নদীপথে টুপি পাঞ্জাবী পরা মানুষের বাধঁভাঙ্গা জোয়ার শুরু হয়। চারিদিকে যত দূর চোখ যায় মানুষ আর মানুষ। সকাল আটটার মধ্যে গোটা এলাকা জনতার মহাসমুদ্রে পরিণত হয়। কোথাও তিল ধরণের ঠাঁই ছিল না। এদিকে বিশ্ব ইজতেমার আখেরী মুনাজাতে আগের তুলনায় মহিলাদের অংশ গ্রহণ বেড়েছে। পুরুষদের পাশাপাশি বিভিন্ন বয়সী মহিলাকে মাইলের পর মাইল পায়ে হেটে টঙ্গী পৌছে মুনাজাতে অংশ গ্রহণ করতে দেখা গেছে। আখেরি মোনাজাত প্রচারের জন্য গণযোগাযোগ অধিদপ্তরের উদ্যোগে আবদুল্লাহপুর ও বিমানবন্দর রোড পর্যন্ত এবং গাজীপুর জেলা তথ্য অফিসের উদ্যোগে ইজতেমা ময়দান থেকে চেরাগ আলী, টঙ্গী রেলওয়ে স্টেশন, স্টেশন রোড, টঙ্গী বাজার আনারকলি রোড ও আশপাশের অলিগলিতে পর্যাপ্ত মাইক সংযোগের ব্যবস্থা করা হয়। আখেরি মোনাজাতে অংশ নিতে টঙ্গী, উত্তরা ও আশপাশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, গার্মেন্টস ফ্যাক্টরি ও সকল শিল্প কারখানা বন্ধ ছিল।
পথে পথে মানুষের কাফেলা ঃ আজ সকাল থেকেই টঙ্গীর আশপাশ এলাকা ও পার্শ্ববর্তী জেলা থেকে বাস, ট্রাক, ট্রেন, নৌকা -লঞ্চযোগে এবং পদব্রজে আখেরী মোনাজাতে অংশ নিতে মানুষের কাফেলা ছিল টঙ্গীর পথে পথে।
রাস্তাঘাট বাড়িঘর সবই ছিল ইজতেমা ময়দান ঃ আখেরী মোনাজাতে অংশ নিতে দেশের দূর-দূরান্ত ও প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে লাখ লাখ মানুষ এসে যোগ দেওয়ায় ইজতেমা ময়দান ছাপিয়ে টঙ্গী, উত্তরা ও তুরাগ থানার প্রতিটি রাস্তাঘাট, বাড়ির আঙ্গিনা, ছাদ, খেলার মাঠ এমনকি গাছে চড়েও আল্লাহ ও রাসূলকে পাওয়ার আশায় আখেরী মোনাজাতে অংশ নেয়।
মোবাইল নেটওর্য়াক ঃ আজ ইজতেমা ময়দান ও টঙ্গী থেকে কোন মোবাইলেই দেশের বিভিন্নস্থানে নেটওর্য়াক যোগাযোগ সম্ভব হয়নি। মাঝে মধ্যে লাইন পেলেও মূহুর্তেই কেটে যাচ্ছিল। মোবাইল ফোন কোম্পানীগুলো নেটওর্য়াক সুবিধা দিতে ইজতেমা উপলক্ষ্যে ইজতেমার আশপাশ এলাকায় অতিরিক্ত মোবাইল টাওয়ার সংযোগ করেও এ সমস্যার পুরো সমাধান দিতে পারেনি।
পানি ঃআজ আখেরী জামাতের পূর্বে ওজু ও গোসলের পানির পসরা সাজিয়ে বসে অনেকে। ওজুর ১বদনা পানি পাঁচ থেকে ১০টাকা করে বিক্রি করেছে। সৌচকাজ সারার জন্য নিয়েছে দশ টাকা করে। এ পানির জন্যও মুসল্লিদের লাইন ধরতে দেখা গেছে।
পত্রিকার পাতা ঃ আজভোর থেকে মোনাজাতের আগে টোকাই কিশোর হকারেরা পুরনো পত্রিকার ৪পৃষ্ঠার পাতা ৪ টাকা ও পলিথিন কাগজ ১০টাকা করে বিক্রি করতে দেখা গেছে। প্যান্ডেলের বাইরের মুসল্লিরা এসব পত্রিকার পাতা ও পলিথিন মাটি এবং রাস্তায় বিছিয়ে মোনাজাতে অংশ নিতে দেখা গেছে।
শেষ মুহুর্তের কেনাকাটা ঃ আজ আখেরী মোনাজাত শেষে অনেক মুসল্লিকে অস্থায়ী মার্কেটগুলোতে প্রবেশ করে কেনাকাটা করতে দেখা গেছে। বিশেষ করে শীতের কম্বল ও গরম কাপড়ের দোকানগুলোতে মুসল্লিদের হুমড়ি খেয়ে পড়ে কেনাকাটা করতে দেখা গেছে।
এবারই সবচেয়ে কম বিদেশী মুসল্লী বিশ্ব ইজতেমায় শরিক হন ঃ সরকারের একটি গোয়েন্দা সংস্থার (সিটি এসবি) সূত্রে জানা গেছে, এবছর অন্যান্য বারের তুলনায় সবচেয়ে কম সংখ্যক বিদিশেী তাবলীগ অনুসারী বিশ্ব ইজতোয় যোগ দেন। মাত্র ৩৮টি দেশের ৫৫৮ জন বিদেশী মুসল্লী এবারের ইজতেমায় যোগ দিয়েছেন। তাদের মধ্যে প্রতিবেশী ভারতের মুসল্লীর সংখ্যাই বেশি। ইজতিমায় তাবলীগ জামাতের দুই গ্রুপের মধ্যে অপ্রীতিকর ঘটনার আশঙ্কায় এবং ইতিপূর্বে ঘটে যাওয়া দুই গ্রুপের সংঘর্ষের কারণেই এবার বিদেশী তাবলীগ অনুসারীরা আসতে চাননি বলে জানা গেছে।
আগামী ২০২০ সালের বিশ্ব ইজতেমা ঃ আগামী ২০২০ সালের বিশ্ব ইজতেমা অনুষ্ঠিত হবে প্রথম পর্ব ১০, ১১ ও ১২ জানুয়ারী। দ্বিতীয় পর্ব অনুষ্ঠিত হবে ১৭, ১৮ ও ১৯ জানুয়ারী। মাওলানা যোবায়ের পন্থীদের ৫দিনের জোড় ইজতেমা হবে চলতি বছরের ৯ ও ৩০ নভেম্বর এবং ১, ২ ৩ ডিসেম্বর বলে জানিয়েছেন ইজতেমা আয়োজক কমিটির মুরুব্বী ইঞ্জিনিয়ার মাহফুজুর রহমান।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here