বিশ্ব ইজতেমা শুরু: জুম্মার নামাজে লাখো মুসল্লির ঢল

0
438
728×90 Banner

মৃণাল চৌধুরী সৈকত: বিশ্ব তাবলিগ জামাতের দু-পক্ষের দন্ধের অবসান ঘটিয়ে টঙ্গীর ঐতিহ্যবাহী কহর দরিয়া তুরাগ নদীর তীরে শুক্রবার বাদ ফজর আম বয়ানের মধ্যদিয়ে শুরু হয়েছে এবারের বিশ্ব ইজতেমা।
ইজতেমা আয়োজক কমিটির মুরুব্বি প্রকৌশলী মো. মাহফুজুর রহমান জানান, পাকিস্তানের মাওলানা জিয়াউল হক উর্দু ভাষায় শূল বয়ান শুরু করেন এবং বাংলাদেশের নোয়াখলী জেলার মাওলানা নূরুর রহমান তা বাংলায় তরজমা করেন। ইজতেমাস্থলের বয়ান মঞ্চ থেকে মূল বয়ান উর্দুতে হলেও তাৎক্ষণিকভাবে ২৪টি ভাষায় তা তরজমা করে শোনানো হচ্ছে ধর্মপ্রাণ মুসল্লিদের।
এদিকে শুক্রবার দুপুর ১২টার দিকে ইজতেমার মাঠ উপচে আশপাশের খোলা জায়গাসহ আশপাশের সবস্থান জনসমুদ্রে পরিণত হয়। মাঠে স্থান না পেয়ে ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা সড়ক-মহাসড়ক ও অলি-গলিসহ যে যেখানে পেরেছেন হোগলা পাটি, চটের বস্তা, খবরের কাগজ বিছিয়ে জুমার নামাজে শরিক হন। ফলে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কসহ আশপাশের যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। নামাজ শেষে আত্মশুদ্ধি, দুনিয়া ও আখেরাতে মুক্তি লাভের আশায় মুসল্লিরা দোয়া করেন। প্রথম দফার ইজতেমার আখেরি মোনাজাত হবে শনিবার। ফলে গতকাল দুপুর দেড়টায় লাখো মানুষের অংশগ্রহণে ইজতেমা ময়দানে শুরু হয় জুমার নামাজ। টঙ্গীর কহর দরিয়া তুরাগ তীরে বিশ্ব ইজতেমার প্রথম দফায় এক সঙ্গে জুমার নামাজ আদায় করেছেন লাখ লাখ মুসল্লি। দুপুর ১টা ৪০ মিনিটে জুমার জামায়াত শুরু হয়। নামাজের ইমামতি করেন কাকরাইল মসজিদের পেশ ইমাম হাফেজ মাওলানা জোবায়ের।
দেশের ৬৪ জেলা থেকে ইজতেমায় যোগ দিতে আসা মানুষের থাকার জন্য পুরো ময়দানকে ৫০টি খিত্তায় ভাগ করা হয়েছে। সড়ক, রেল ও নৌ-পথে নানা বয়সী মুসলমানদের টঙ্গীমুখী ঢল শুরু হয় গত বুধবার থেকে।
গতকাল শুক্রবার ছুটির দিন হওয়ায় ভোর থেকে গাজীপুরসহ আশপাশের এলাকা থেকে বিপুল সংখ্যক মানুষ টঙ্গী এসেছেন বিশ্ব ইজতেমা ময়দানে জুমার নামাজ আদায় করার জন্য। ঢাকা থেকে সরকারের মন্ত্রী, সংসদ সদস্য ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দসহ সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ে অনেক ‘ভিআইপি’ অতিথিরাও শুক্রবার জুমার নামাজ পড়তে ইজতেমা ময়দানে যোগ দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন ইজতেমা আয়োজকরা।
বিভক্তি : বাংলাদেশের গাজীপুর জেলার টঙ্গী কহর দরিয়া তুরাগ নদীর তীরে অনুষ্ঠিতব্য বিশ্ব ইজতেমা হলো ভারতীয় উপমহাদেশে সুন্নী মুসলমানদের সবচেয়ে বড় সংঘ তাবলিগ জামাতের বার্ষিক আন্তর্জাতিক মহাসমাবেশ। বিশ্ব মুসলিম উম্মাহ মনে করেন কয়েক লাখ ধর্মপ্রাণ মুসল্লির জমায়েতের কারণে বিশ্ব ইজতেমাকে মুসলমানদের দ্বিতীয় বৃহত্তম মহাসম্মেলন এবং হজ্বের পরেই রয়েছে এর স্থান।
ভারতের ইসলামি পন্ডিত মাওলানা ইলিয়াস আখতার কান্ধলভি ১৯২০ এর দশকে তাবলিগ জামাত নামের এই সংস্কারবাদী আন্দোলনের সূচনা করেন। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে বহু আরবি, ফার্সি ও উর্দু শব্দ এই সংগঠনের কর্মকান্ডে পরিভাষা হিসেবে যুক্ত হয়। তাবলিগ শব্দের অর্থ প্রচার। স্বেচ্ছা সেবকমূলক এ আন্দোলনের উদ্দেশ্য ইসলামের মৌলিক মূল্যবোধের প্রচার করা। আর ইজতেমা হল ধর্ম প্রচারের জন্য সমবেত হওয়া। ইসলামের প্রচার বা দাওয়াত বিশ্বব্যাপী পৌঁছে দিতে তাবলিগ জামাতের সদস্যরা ইজতেমায় মিলিত হন। সেখান থেকেই দাওয়াতি কাজে বেরিয়ে যান চিল্লাধারী মুসল্লিরা। ১৯৪১ সালে দিলীøর নিজামউদ্দীন মসজিদের কাছে নূহ মাদ্রাসায় তাবলিগ জামাতের প্রথম ইজতেমা শুরু হয়, যেখানে অংশ নেন প্রায় ২৫ হাজার ধর্মপ্রাণ মুসল্লি। পরবর্তীতে বাংলাদেশে প্রথম ইজতেমা শুরু হয় ১৯৪৬ সালে রাজধানী ঢাকার কাকরাইল মসজিদ প্রাঙ্গনে। তারপর ১৯৪৮ সালে চট্টগ্রামের হাজী ক্যাম্পে ও ১৯৫৮ সালে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে ইজতেমার আয়োজন করা হয়। প্রতি বছর মুসল্লির সংখ্যা বাড়তে থাকায় ১৯৬৬ সালে টঙ্গীর পাগাড় ও ১৯৬৭ সাল থেকে টঙ্গীর তুরাগ তীরে বর্তমান ইজতেমা ময়দানে শুরু হয় এই বার্ষিক ইসলামিক মহাসম্মেলন। যার নাম হয় বিশ্ব ইজতেমা। সরকারি ভাবে ঐতিহ্যবাহী এক সময়কার কহর দরিয়া বর্তমান তুরাগ তীরের ১৬৫ একর জমি স্থায়ীভাবে বিশ্ব ইজতেমার জন্য বরাদ্দ দেওয়া হয়। তবে আশপাশের বিভিন্ন মিল-কলকারখানা বিশ্ব ইজতেমার অনেক জমিই ইতিমধ্যে দখল করে নিয়েছে বলে দাবী করছেন ইজমো আয়োজক কমিটির মুরব্বীগন।
প্রতিবছর জানুয়ারি মাসে টঙ্গীতে বিশ্ব ইজতেমার আয়োজন হলেও তাবলিগ জামাতের নেতৃত্বের দন্ধের কারণে এবার তা পিছিয়ে শুরু হয় ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০১৯ থেকে। তাবলিগ জামাতের নেতৃত্ব তাবলিগ জামাতের প্রতিষ্ঠাতা মাওলানা ইলিয়াছের নাতি দিল্লির মাওলানা মোহাম্মদ সাদ কান্ধলভির হাতে থাকবে, না দেওবন্দ মাদ্রাসার মাওলানা জুবায়েরের ছেলে জুহাইরুল হাসানের অনুসারীরা এ সংঘের নেতৃত্ব দেবেন তা নিয়ে শুরু হয় এই বিভক্তি। এ বিভক্তির কারণে গত বছর বিশ্ব ইজতেমায় আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করতে ঢাকায় এসে বিরোধীদের বিক্ষোভের মুখে পড়েন সাদ। পরে সরকারে মধ্যস্থতায় ইজতেমায় অংশ না নিয়েই তাকে ঢাকা ছাড়তে হয়। এ বছর তাবলীগ জামাতের দুই পক্ষ জানুয়ারির দু্টি ভিন্ন ভিন্ন সময়ে বিশ্ব ইজতেমা করার ঘোষণা দিলে সেই উত্তেজনা নতুন মাত্রা পায়। ইজতেমা মাঠে দুই পক্ষের সংঘর্ষে একজনের মৃত্যুও হয়। এরপর গত ২৪ জানুয়ারি ধর্ম মন্ত্রণালয়ে তাবলিগের দুই পক্ষের নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী এ্যাড.শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ সমঝোতায় আসেন এবং এবারের ইজতেমার তারিখ ঘোষণা করেন। দুই পক্ষের মতের মিল না হওয়ায় আয়োজনেও কিছু পরিবর্তন আনা হয়। আগে তাবলিগ জামায়াতের মুরুব্বীরা ইজতেমার ব্যবস্থাপনায় থাকলেও এবার বিষয়টি দেখছে স্থানীয় প্রশাসন। দেশের ৬৪ জেলাকে ভাগ করে গত কয়েক বছর ধরে দুই ভাগে ইজতেমার আয়োজন করা হয়েছিলো। এবার একসঙ্গেই চার দিনের ইজতেমার আয়োজন হয়েছে। তবে মোনাজাত দুভাগে হবে বলে জানিয়েছেন মুরব্বীরা। এতে করে ইজতেমায় সেই দন্ধের রেশ থেকেই যাচ্ছে। শুক্র ও শনিবার চলছে দেওবন্দ মাদ্রাসার মাওলানা জুবায়েরের ছেলে জুহাইরুল হাসান পহ্নিদের ইজতেমা। রবি ও সোমবার চলবে তাবলিগ জামাতের প্রতিষ্ঠাতা মাওলানা ইলিয়াছের নাতি দিল্লির মাওলানা মোহাম্মদ সাদ কান্ধলভি পন্থীদের ইজতেমা। শনি ও সোমবার অনুষ্ঠিত হবে আখেরি মোনাজাত।
এদিকে শনিবারের মোনাজাত শেষে জুহাইরুল হাসানের অনুসারীরা ময়দান ছেড়ে চলে গেলে রোববার ভোর থেকে মাওলানা সাদ পন্থিদের পরিচালনায় ইজতেমা দ্বিতীয় দফা শুরু হবে। সোমবার মাওলানা সাদ পন্থিদের আখেরি মোনাজাতের মধ্যদিয়ে শেষ হবে এবছরের ৪ দিনের বিশ্ব ইজতেমা।
বিদেশী মেহমান : বিশ্ব ইজতেমা ময়দানে দুপুর পর্যন্ত গোয়েন্দা সংস্থাদের তথ্যমতে ২২ টি দেশের প্রায় সাড়ে ৪শ বিদেশী মুসল্লি মাঠে এসে পৌছেছেন। আরো শতাধিক মুসল্লি দেশের বিভিন্ন বিমান বন্দর ও সীমান্ত এলাকাসহ রাজধানীর কাকড়াইল মসজিদে অবস্থান করছেন।
নিরাপত্তা ব্যবস্থা : গাজীপুরের জেলা প্রশাসক দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ুন কবীর জানান, ইজতেমার সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ, র‌্যাব, আনসার সদস্যরা বেশ কয়েকটি স্তরে বিভক্ত হয়ে দায়িত্ব পালন করছেন। ইজতেমা মাঠের পরিস্থিতি নজরে রাখতে পুলিশ ও র‌্যাব কন্ট্রোল রুম ও ওয়াচ টাওয়ার বসানো হয়েছে। সিসি ক্যামেরার মাধ্যমে কন্ট্রোল রুম থেকে পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে সার্বক্ষণিক পরিস্থিতি। এছাড়া আইনশৃংখলা বাহিনী সদস্যরা সাদা পোশাকে খিত্তায় খিত্তায় অবস্থান করছেন। এছাড়াও বিশ্ব ইজতেমায় মানুষের আসার সুবিধার্থে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে যান চলাচলে নেওয়া হয়েছে বিশেষ ব্যবস্থা।
১৫ ফেব্রুয়ারী ২০১৯ রাত ১০টা থেকে ১৬ ফেব্রæয়ারী রাত ৮টা পর্যন্ত এবং ১৭ ফেব্রুয়ারী রাত ১০টা থেকে ১৮ ফেব্রæয়ারী রাত ৮টা পর্যন্ত আব্দুল্লাপুর থেকে ভোগড়া বাইপাস এবং মীরের বাজার থেকে স্টেশন রোড পর্যন্ত উভয় মুখী রাস্তায় সকল প্রকার যানবাহান চলাচল বন্ধ থাকবে।
গ্রেফতার : বিশ্ব ইজতেমাকে কেন্দ্র করে ময়দানে বিভিন্ন জেলা থেকে পকেটমার, ছিনতাইকারী, অজ্ঞানপাটির সদস্য, চিচকে চোরসহ বিভিন্ন অপরাধে টঙ্গী পূর্ব ও পশ্চিম থানাসহ তুরাগ থানা, উত্তরা পূর্ব ও পশ্চিম থানা পুলিশ এবং ময়দানে টহলরত পুলিশ শতাধিক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে বলে প্রশাসনিক সূত্রে জানা গেছে।
টঙ্গী রেলওয়ে জংশনের মাস্টার হালিম উজ্জামান জানান, ইজতেমা উপলক্ষে ১৬-১৮ ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত সকল ট্রেন এবং ১৯ ফেব্রুয়ারী কিছু ট্রেন টঙ্গীতে যাত্রা বিরতি করবে। মোনাজাতের দিন ২২টি বিশেষ ট্রেনসহ ইজতেমায় ১২০টি ট্রেন টঙ্গী স্টেশনে যাত্রা বিরতি করবে।
স্বাস্থ্য সেবা : গাজীপুর জেলা সিভিল সার্জন অফিস জানায়, টঙ্গী শহীদ আহসান উল্লাহ মাষ্টার জেনারেল হাসপাতালকে ইজতেমার জন্য ব্যবহার করা হচ্ছে। সেই সাথে মুসল্লিদের স্বাস্থ্যসেবা নিয়ন্ত্রণের জন্য নিয়ন্ত্রণ কক্ষ, বক্ষব্যাধি/ এ্যাজমা ইউনিট, হৃদরোগ ইউনিট, ট্রমা (অর্থোপেডিক) ইউনিট, বার্ণ ইউনিট, ডায়রিয়া ইউনিট, স্যানিটেশন টিম এবং ১৪টি অ্যাম্বুলেন্সের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। এ ছাড়াও চক্ষু, মেডিসিন ও সার্জারিসহ বিভিন্ন বিভাগের বিশেষজ্ঞসহ চিকিৎসক রোস্টার অনুযায়ী চিকিৎসা সেবায় নিয়োজিত রয়েছে। এছাড়াও গাজীপুর সিটি করপোরেশন, হামদর্দ, ইবনে সিনা, ইসলামিক মিশন, যমুনা ব্যাংক ফাউন্ডেশন, জহিরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, ইন্টারন্যাশনাল মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, হাফেজি হুজুর সেবা সংস্থা, হোমিওপ্যাথিক ওয়েলফেয়ার, বাংলাদেশ ইউনানি-আয়ুর্বেদিক, বঙ্গবন্ধু ইউনানী-আয়ুর্বেদিক ও হোমিওপ্যাথিক ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প, টঙ্গী ঔষধ কল্যাণ সমিতি, টঙ্গী থানা প্রেস ক্লাবসহ বেশ কিছু সংগঠন ইজতেমা ময়দানে বিনামূল্যে প্রায় ১২ হাজার মুসল্লিকে চিকিৎসা সেবা দেয়া হয়েছে বলে স্বাস্থ্য সেবা কেন্দ্রগুলো থেকে জানা গেছে ।
সড়ক ও মহাসড়কে যানজট ও ধুলোবালি : সড়ক মহাসড়কে তীব্র যানজট ও ধুলোবালির কারণে মুসল্লিদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে বলে দাবী করছেন ইজতেমা আয়োজক কমিটির মুরব্বীরা।
পানি ও গ্যাস সরবরাহ : ইজতেমা আয়োজক কমিটির স্বেচ্ছাসেবীদের প্রস্তুতি ছাড়াও ওয়াসা, তিতাসসহ সরকারের সংশ্লিষ্ট সেবাদানকারী সংস্থাগুলোও তাদের প্রস্তুত রয়েছে। স্থানীয় ওয়াসা ও তিতাস গ্যাস কোম্পানী সূত্রে জানা যায়, ইজতেমা ময়দানে ১৩টি গভীর নলকূপ স্থাপন করা হয়েছে। সাড়ে ১৮ কি.মি পাইপ লাইনে দৈনিক প্রায় ৩ কোটি ৫৪ লক্ষ গ্যালন সুপেয় পানি মুসল্লিদের মধ্যে সরবরাহ করা হচ্ছে। ওয়াসা কর্তৃপক্ষ তাদের গাড়ির মাধ্যমে বিভিন্ন স্থানে পানি সরবরাহ করছে। তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষ ইজতেমা ময়দানের বিদেশী মেহমানখানায় রান্না বান্নার প্রয়োজনীয় স্থানে ১৭৫টি গ্যাসের চুলা স্থাপনের কাজ সম্পন্ন করেছেন যেখানে মুসল্লিরা রান্নার কাজ করছেন। এ ছাড়াও গাজীপুর সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে মুসল্লিদের যাতায়াতের রাস্তায় ধূলাবালি প্রতিরোধে প্রতিদিন পর্যাপ্ত পানি ছিটানো হচ্ছে।
এবারও নতুন করে ১ হাজার ৩৫০টিসহ প্রায় ৯ হাজার স্থায়ী টয়লেট, গোসল ও অজুখানা তৈরি ও মেরামত করা হয়েছে। ততাপিও মুসল্লিরা দাবী করছেন পানির অভাবে তাদের বিশুদ্ধ পানি পানসহ গোসল ও ওজুসহ পয়নিস্কাশনে বিঘœ সৃষ্টি হচ্ছে। অনেকেই আশপাশের এলাকার বিভিন্ন বাসা বাড়ি থেকে বিশুদ্ধ পানি এনে পান করছেন।
ট্রাফিক তথ্য : ট্রাফিক সম্পর্কিত যে কোন তথ্যের জন্য প্রয়োজনে সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার উত্তরা ট্রাফিক জোন ০১৭১৩-৩৯৮৪৯৮ অথবা টিআই উত্তরা ট্রাফিক জোন ০১৯১২-০২৫৯৩৯ নম্বরে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে।
ইজতেমা ময়দানে গ্যাস সিলিন্ডার লিকেজ : টঙ্গীর বিশ্ব ইজতেমার প্রথম দিনে ময়দানের পশ্চিম পাশে মিম্বরের কাছে রান্না করার সময় গ্যাস সিলিন্ডার লিকেজের শব্দে মুসল্লিদের মধ্যে আতঙ্কের সৃষ্টি হয়। এ সময় হুড়হুড়িতে শতাধিক মুসল্লি আহত হয়েছেন।
গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার মো. আজাদ মিয়া জানান, সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ইজতেমা ময়দানের পশ্চিম পাশে রান্না করার সময় একাট গ্যাস সিলিন্ডার থেকে বিকট শব্দে গ্যাস বের হয়। এতে আশপাশের মুসল্লিরা আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। এ সময় হুড়হুড়ির মধ্যে কয়েকজন আহত হয়েছেন।
টঙ্গী শহীদ আহসান উল্লাহ মাষ্টার জেনারেল হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, গ্যাস সিলিন্ডারের আগুনে জামালপুরের আমির হোসেন (৪০) নামে একজন অগ্নিদগ্ধ হয়েছেন। তাকে কুর্মিটোলা হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এছাড়া আরো প্রায় ২০ জন আহত হয়েছে তাদের চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। আহতরা হলেন ময়মনসিংহের হেলাল (৫৫), রাজশাহীর খালেক (৫৭), মেহেরপুরের জুনায়ে (৪০), রাজশাহীর জুবায়ের (২৫), খুলনার খালেদ (২৭), গোপালগঞ্জের তামিম (২৪), ঢাকার তেজগাঁও এর রনি (২৪), ময়মনসিংহের কাদির (৩০), জহিরুল (২৭), জামালপুরের নজরুল (৪২), ঢাকার শনির আখড়ার ওবায়েদ (৩৫), ঠাকুরগাও এর মরিুজ্জামান (৪০), সিরাজগঞ্জের মাহমুদ (৩৩), ফরিদপুরের হাসানুল হক (৪৫), জামালপুরের আজাহার (৪১), সিরাজগঞ্জের জাহিদুল (৩৭), নাঠোরের কাউসার (৩৪), নাঠোরের মোমিন (১৯), ময়মনসিংহের আমির (৫৫) ও নওগার সায়েদ আলী (৫৫)।
মুসল্লির মৃত্যু : টঙ্গীর বিশ্ব ইজতেমায় আসা আরও দুই মুসল্লি হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। তারা হলেন ফেনীর সফিকুর রহমান এবং কুষ্টিয়ার মো. সিরাজুল ইসলাম। এই নিয়ে এবারের বিশ্ব ইজতেমায় যোগ দিতে এসে ৪ মুসল্লির মৃত্যু হয়েছে। এর আগে গত বৃহস্পতিবার দুপুরে নাটোরের মো. আলী এবং বুধবার দিবাগত রাত ৩টার দিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আব্দুল জব্বার নামে এক ব্যক্তি হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান। পরে তাদের মরদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here