ব্যাংক কর্মকর্তা হত্যার প্রতিবাদে রাজপথে মানববন্ধন

0
148
728×90 Banner

নিজস্ব প্রতিবেদক : অগ্রণী ব্যাংকের এক কর্মকর্তা হত্যার প্রতিবাদে স্বাধীনতা ব্যাংকার্স পরিষদ ও অফিসার সমিতি আহবানে মানববন্ধন, কালোব্যাচ ধারণ করছে ব্যাংকটির কর্মকর্তা, কর্মচারীরা।
এদিকে অগ্রণী ব্যাংকের এমডি মোহাম্মদ শামস্ উল ইসলাম এক শোকবার্তায় বলেন, ব্যাংকার মওদুদ আহমেদ ছিলেন সৎ আদর্শবান। তিনি সকল কাজ নিষ্ঠার সাথে পালন করেছেন। মৃত্যুকালে তিনি 40 দিন বয়সে একটি কন্যা সন্তান, স্ত্রী,পিতা-মাতা সহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা ও সহমর্মিতা জ্ঞাপন করছি।
আজ মঙ্গলবার বেলা চারটার সময় অগ্রণী ব্যাংকের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে মানববন্ধনের আয়োজন করে স্বাধীনতা ব্যাংকার্স পরিষদ ও ব্যাংকের অফিসার সমিতি।
মানববন্ধনে সংগঠন দুটির নেতারা তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, এটি একটি পরিকল্পিত ন্যাক্কারজনক হত্যা কান্ড। যা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। হত্যায় জড়িত মূল আসামি কে এখনও গ্রেফতার করা হয়নি। এই হত্যাকারীদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে। অন্যথায় কঠিন কর্মসূচি দেয়া হবে।
মানববন্ধনে বক্তারা আরো বলেন, শেখ মওদুদ আহমেদেরমাত্র 40 দিন বয়সের একটি কন্যাসন্তান রয়েছে। উক্ত সন্তানকে ভরণপোষণ জন্য যথাযথ কর্তৃপক্ষকে নিতে হবে।
এসময় উপস্থিত ছিলেন,অগ্রণী ব্যাংক অফিসার সমিতির সভাপতি নাজমুল হক রবিন, সহ সভাপতি নাজমা বেগম, সাধারণ সম্পাদক মোবারক হোসেন,অগ্রণী ব্যাংক স্বাধীনতা ব্যাংক পরিষদের সভাপতি জাকির হোসেন, সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুর রহমান জুয়েল, সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদী হাসানসহ কয়েক শতাধিক অফিসার ও কর্মচারী।
জানাযায়, সিলেট নগরীর বন্দরবাজারে সিএনজি অটোরিকশা চালকরা নির্মমভাবে হত্যা করে অগ্রণী এক ব্যাংক কর্মকর্তাকে । এ ঘটনায় রবিবার সিলেট কোতোয়ালী থানায় একটি হত্যা মামলা হয়েছে।
নিহত ব্যাংক কর্মকর্তার নাম মওদুদ আহমেদ (৩৫)। তিনি ময়মনসিংহ জেলার গৌরীপুর উপজেলার টেংগুরিপাড়া গ্রামের মো. আবদুল ওয়াহেদের ছেলে। তার কর্মস্থল ছিল সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলার অগ্রণী ব্যাংক, হরিপুর গ্যাস ফিল্ড শাখা।
সিলেট নগরীর রাজারগলিতে তিনি ভাড়া বাসায় থাকতেন। জৈন্তাপুরের হরিপুর থেকে একটি সিএনজি অটোরিকশায় (নম্বর- সিলেট-থ-১২-৪২৭১) করে গত শনিবার রাত পৌণে ৮টার দিকে নগরীর বন্দরবাজার কালেক্টরেট মসজিদের সামনে আসেন ব্যাংক কর্মকর্তা মওদুদ আহমেদ। এসময় ভাড়া নিয়ে চালক নোমান হাছনুরের সাথে কথা কাটাকাটি হয় তার। একপর্যায়ে নোমানের সাথে আরো কয়েকজন অটোরিকশা চালক মিলে মওদুদকে আহমদকে বেধড়ক মারপিট করে হত্যা করে।
এ ঘটনায় নিহত মওদুদের বড়ভাই আব্দুল ওয়াদুদ বাদী হয়ে রবিবার সিলেট সদর উপজেলার জালালাবাদ ইউনিয়নের টুকেরগাঁও পশ্চিমপাড়া গ্রামের আব্দুল হান্নানের ছেলে সিএনজি অটোরিকশা চালক নোমান হাছনুরের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো কয়েকজনকে আসামি করে মামলা করেন।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

five × 5 =