ভাওরাইদে চাঞ্চল্যকর স্ত্রী হত্যার মূল আসামীসহ ৩ জন গ্রেফতার

0
230
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক: গাজীপুরের ভাওরাইদে চাঞ্চল্যকর স্বামী কর্তৃক স্ত্রী হত্যা ও সেপটিক ট্যাংকে লাশ গুমের ২ সহযোগীসহ মূল আসামী শাহজাহান মিয়া র‌্যাব কর্তৃক গ্রেফতার হয়েছে।
গত ৩ জানুয়ারি ২০১৯ সকাল আনুমানিক ৯ টায় গাজীপুর নগরীর ভাওরাইদ উত্তরপাড়া এলাকায় স্ত্রী আফরোজা বেগমকে (২৬) পারিবারিক কলহের জেরে স্বামী শাহজাহান মিয়া শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। হত্যার পর তার বন্ধু খোকন এবং মুকুল এর সহায়তায় বাড়ীর পার্শ্ববর্তী সেপটিক ট্যাংকে লাশ গুম করে যা পরবর্তীতে ৪ জানুয়ারি ২০১৯ তারিখ মধ্য রাতে জানাজানি হয় এবং সেপটিক ট্যাংক থেকে লাশ উদ্ধার করা হয়। পরবর্তীতে এই ঘটনায় জয়দেবপুর থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়। উক্ত হত্যাকান্ডের ঘটনাটি সারাদেশে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করে এবং বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে গুরুত্বের সাথে প্রচারিত হয়। হত্যাকান্ডের প্রেক্ষিতে র‌্যাব-১ তাৎক্ষনিকভাবে হত্যাকারী খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনতে দ্রæততার সাথে ছায়া তদন্ত শুরু করে এবং গোয়েন্দা নজরদারী বৃদ্ধি করে।
গত ১০ জানুয়ারি ২০১৯ র‌্যাব-১, উত্তরা, ঢাকার একটি আভিযানিক দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে নারায়ণগঞ্জ জেলার ডেমরা থেকে অভিযান পরিচালনা করে আসামী ১) শাহজাহান মিয়া (২৮), পিতা- মৃত আনোয়ার হোসেন, সাং- মন্ডল পাড়া, থানা- দেওয়ানগঞ্জ, জেলা- জামালপুর, বর্তমানে মাসুদের বাড়ীর ভাড়াটিয়া, ভাওরাইদ, থানা- জয়দেবপুর, জিএমপি, গাজীপুর এবং লাশ গুমের সহযোগী ২) মোঃ খোকন মিয়া (২২), পিতা- মৃত আব্দুস ছালাম, মাতা- মোছাঃ ফুলমতি বেগম, সাং- মদনের চর, পোঃ- ও থানা- বাজিবপুর ও জেলা- কুড়িগ্রাম, বর্তমানে- সাং- মাসুদের বাড়ির ভাড়াটিয়া, বাওরাইদ, থানা- জয়দেবপুর, জিএমপি, গাজীপুর, ৩) মোঃ মুকুল মিয়া (২৫), পিতা- শফি মন্ডল, মাতা- মোছাঃ ওসিমন বেগম, সাং- চিথুলিয়া জিগু, পোঃ- এরেন্ডাবাড়ী, থানা- ও জেলা- গাইবান্ধা, বর্তমানে- সাং- বাওরাইদ, থানা- জয়দেবপুর, জিএমপি, গাজীপুরদের’কে গাজীপুরের জয়দেবপুর থেকে গ্রেফতার করে।
গ্রেফতারকৃত আসামী শাহজাহান (২৮) কে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে, ছোট বেলা তার বাবা মারা যাওয়ার কারনে সে ও তার মা জীবিকা নিবার্হের জন্য গাজীপুর চলে আসে। গাজীপুর এসে প্রথমে সে রি´া চালাত। পরবর্তীতে সে দীর্ঘদিন রাজ মিস্ত্রির কাজ করেছে। বিগত ৮ বছর পূর্বে সে তারেক জিয়া সুতার মিল ফ্যাক্টরীতে কাজ করার সময় ভিকটিম আফরোজার সাথে পরিচয় হয়। পরিচয়ের এক পর্যায়ে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। পরবর্তীতে তারা দুজন পরিবারের সম্মতিতে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয় এবং তার দুলাভাই জবান আলীর বাসায় থাকা শুরু করে। ২০১৬ সালে তার স্ত্রী সৌদি আরব যায় এবং ৬ মাস পূর্বে দেশে আসে। দেশে আসার পর তার স্ত্রী তার দুলাভাই জবান আলীর বাসায় থাকতে অনীহা প্রকাশ করে।
যার কারণে তারা ভাওরাইদ এলাকায় জনৈক মাসুদ মিয়ার বাড়ীতে ভাড়ায় বসবাস করতে শুরু করে। শাহজাহান তার স্ত্রীকে বিদেশ থেকে অর্জিত টাকার হিসাব চাইলে, সে দিতে অস্বীকৃতি জানায়। এ বিষয় নিয়ে তাদের মধ্যে কলহ শুরু হয়।
মোঃ শাহজাহান মিয়া (২৮) প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানায়, গত ৩ জানুয়ারি ৯টায় পূর্ব ঘটনার জের ধরে তীব্র বাগ-বিতন্ডা শুরু হয় যা একপর্যায়ে মারামারি পর্যন্ত গড়ায়। পরবর্তীতে মোঃ শাহজাহান মিয়া রাগের বশবর্তী হয়ে স্ত্রী আফরোজাকে গলা টিপে হত্যা করে। হত্যার সময় তার শিশু কন্যা বাসার বাইরে ছিল বলে সে জানায়। ধরা পড়ে যাওয়ার ভয়ে তাৎক্ষনিক সে লাশ খাটের নীচে লুকিয়ে রাখে। পরবর্তীতে লাশ গুমের উদ্দেশ্যে সে তার বন্ধু খোকন মিয়া ও মুকুলকে পূর্নাঙ্গ বিষয়টি অবগত করে এবং পরস্পর যোগসাজসে ৩ জানুয়ারি রাতে বাসার পার্শ্ববর্তী সেপটিক ট্যাংকে লাশ ফেলে দেয়। এক্ষেত্রে শাহজাহান ও খোকন লাশ বাসা থেকে নিয়ে যায় এবং মুকুল রাস্তা পাহারা দেয়। লাশ গুমে সহযোগীতার জন্য শাহজাহান খোকনকে ৪০০০/- ও মুকুলকে ২৫০০/- টাকা দেয় বলে তিন জনই স্বীকার করে। পরবর্তীতে ৪ জানুয়ারি ২০১৯ তারিখ মুকুল ও খোকন চিন্তা করে যে, বিষয়টি যে কোন সময় উৎঘাটিত হতে পারে এবং সেক্ষেত্র তারা ভয়ানক বিপদের সম্মুখীন হবে। তাই লাশ গুমের সহযোগীতার বিষয়টি গোপন করার জন্য মুকুল ও খোকন ৪ জানুয়ারি রাতে সেপটিক ট্যাংকে শাহজাহান স্ত্রীর লাশ গুম করার সময় দেখে ফেলার নাটক সাজায় এবং সকলকে ডেকে লাশ উত্তোলন করে। বিষয়টি জানাজানি হয়ে যাওয়ার পরে তাৎক্ষনিক শাহজাহান আত্মগোপনে চলে যায় এবং ডেমরা এলাকায় তার বন্ধু শাহাদতের মেসে উঠে।। পরবর্তীতে পুলিশকে খবর দিলে এ বিষয়ে পুলিশ বাদী হয়ে একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করে।
গ্রেফতারকৃত মুকুল বিগত ৮ বছর যাবত গাজীপুর-মাওনা রোডে লেগুনার ড্রাইভার হিসেবে কাজ করে বলে জানা যায় এবং ধৃত আসামী খোকন ২ বছর আগে একটি গার্মেন্টসে চাকুরী করত। বর্তমানে সে একটি খাবার হোটেলে কাজ করে।
উপরোক্ত বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here