ভোট বিপ্লবের ডাক দিয়েও বিফল হলো ঐক্যফ্রন্ট!

0
200
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক: ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের পরাজয় অনেক আগেই নির্ধারিত হয়েছিলো। এ পরাজয় নিয়ে বিএনপি খুব একটা যে প্রস্তত ছিলো না তাও নয়। নিশ্চিত পরাজয়ের আশঙ্কাতেও ঐক্যফ্রন্ট তথা বিএনপি নির্বাচনে অংশ নেয় কেবল তাদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখার জন্য। কিন্তু ভোট বিপ্লবের ডাক দিয়েও জনসমর্থনহীন অবস্থা ও সাংগঠনিক অনৈক্য থাকায় ভোটের মাঠে বিফল হয় ঐক্যফ্রন্টের পরিকল্পনা বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।
তাদের মতে, জয় পরাজয় নয় বরং নির্বাচনে অংশগ্রহণ করা ছিলো তাদের রাজনৈতিক কৌশল। কেননা, জাতীয় ঐক্যে আসা দলগুলোর জনপ্রিয়তা ছিলো না বললেই চলে। এমনকি জয় পাওয়ার জন্য তারা নির্বাচনে এসেছিলো বিষয়টি এমন নয়। বরং নিজেদের রাজনৈতিক দলের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতেই নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছিলো জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। কারণ, জয়ের জন্য যে প্রেক্ষাপট প্রয়োজন তা তৈরি করতে ব্যর্থ হয়েছিলো এ জোটের ছায়াতলে জড়ো হওয়া বিএনপিসহ অন্যান্য রাজনৈতিক দলগুলো।
ঐক্যফ্রন্টের পরাজয়ের বিষয়ে বিবিসির খবরে বলা হয়, সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রে অনেক সময় বিএনপির নীতির্নিধারকদের লন্ডনের অপেক্ষায় থাকতে হয়েছে। ভোট বিপ্লবের ডাক দিয়েও তা কিভাবে সংগঠিত করে ভোট শক্তিতে পরিণত করা যাবে সেই সিদ্ধান্ত নিতে ব্যর্থ হয়েছে জোটের নেতারা। তারা ধরে নিয়েছিলেন তাদের ডাকে কেন্দ্রের দিকে ভোটারের ঢল নামবে। কিন্তু শেষ সময়ে ঐক্যফ্রন্টের নেতাদের বিতর্কিত কিছু কর্মকাণ্ডের জন্য জনসমর্থন আওয়ামী লীগের পক্ষে চলে যায়। আর এসবের মধ্যে একটি উল্লেখযোগ্য কারণ হলো- জোটে জামায়াতের প্রত্যক্ষ অথবা পরোক্ষ অবস্থান।
এদিকে বিপুল ভোটের ব্যবধানে পরাজয়ের বিষয়ে ভারতীয় পর্যবেক্ষক প্রতিনিধি দল মনে করে, ঐক্যফ্রন্ট জাতীয় ঐক্য করতে গিয়ে অনেকটা সময় ব্যয় করে ফেলেছে। বিশেষ করে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার কিছুদিন আগে অনেকটা তড়িঘড়ি করে ঐক্য গড়ায় তাদের প্রার্থী চূড়ান্ত করার পরিকল্পনা ভেস্তে যায়। ফলে প্রার্থী মনোনয়নের ক্ষেত্রে তাদেরকে বিপাকে পড়তে হয়।
ভারতীয় পর্যবেক্ষক প্রতিনিধি দলের পশ্চিমবঙ্গের প্রধান নির্বাচন কর্মকর্তা আরিজ আফতাব এর মতে, সরকারের কৌশলের বিপরীতে পাল্টা কৌশল নিতে পারেননি ঐক্যফ্রন্ট নেতৃত্ব। বিএনপির দুই শীর্ষ নেতার অনুপস্থিতিতে কর্মকৌশল নির্ধারণে অনেকাংশে দুর্বল হয়ে পড়াও ঐক্যফ্রন্টের ভরাডুবির অন্যতম কারণ।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here