মান্দায় পত্রিকা বিক্রেতা থেকে সফল আইটি উদ্যোক্তা সুজন

0
287
728×90 Banner

ওয়াসিম আকরাম, নওগাঁ জেলা প্রতিনিধি : শীত, গ্রীষ্ম কিংবা বর্ষাকে উপেক্ষা করে প্রতিদিন কাক ডাকা ভোরে ছুটতে হয়েছে বাসস্ট্যান্ডে। এরপর বাস থেকে পত্রিকা সংগ্রহ করে পাঠকের দ্বারে দ্বারে পৌঁছে দেওয়ায় ছিল তার নিত্যদিনের কাজ। এ পেশার আয় দিয়েই চলত ৫ জনের সংসার। সংসারের বড়ছেলে হওয়ায় কিশোর বয়সেই নামতে হয়েছিল জীবনযুদ্ধে। তবুও হাল ছাড়েননি। এক সময়ের পত্রিকা বিক্রেতা সেই কিশোর আলমগীর কবির সুজন এখন সফল আইটি উদ্যোক্তা।
আইটি উদ্যোক্তা আলমগীর কবির সুজন নওগাঁর মান্দা উপজেলার চৌবাড়িয়া বাজারের অদুরে মালশিরা গ্রামের ফয়েজ উদ্দিনের ছেলে। তিন ভাই-বোনের মধ্যে সুজন ছিল সবার বড়। একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি বাবা ফয়েজ উদ্দিন অসুস্থ হয়ে পড়লে সংসারে নেমে আসে চরম দুর্দিন। সুজন তখন অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থী। অভাবের তাড়নায় লেখাপড়ার ইতি টেনে হাল ধরতে হয় সংসারের। টাকা-পয়সা না থাকায় কি করবে ভেবে দিশোহারা হয়ে পড়ে। এরই মধ্যে জাহাঙ্গীর আলম নামে এক পত্রিকা বিক্রেতার সঙ্গে তার পরিচয় ঘটে। জাহাঙ্গীর আলমের মাধ্যমেই পত্রিকা বিক্রেতা হিসেবে তার হাতেখড়ি।

পত্রিকা বিক্রির আয়ের টাকায় অসুস্থ বাবার চিকিৎসা, ছোট ভাইবোনের লেখাপড়া ও সংসারের খরচ চালানো দুরূহ হয়ে পড়ে। মাঝে মধ্যে অন্যের দোকানে পারটাইম কাজ করে বাড়তি আয়ের চেষ্টা করেন। তবুও হাল ছাড়েননি। সততা, নিষ্ঠা আর কঠোর পরিশ্রমে আজ তিনি সফলতার উচ্চ শিখরে আহরণ করেছেন।
সফল এই উদ্যোক্তা জানান, অবসর সময়ে সবধরণের পত্রিকা অত্যন্ত মনোযোগ সহকারে পড়তেন। এক সময় কম্পিউটার বিষয়ের ওপর বিভিন্ন লেখা তার দৃষ্টি আকর্ষণ করে। অত্যন্ত আগ্রহ নিয়ে পত্রিকার আইটি পেজগুলো পড়া শুরু করেন। গুরুত্বপূর্ণ পেজগুলো সংগ্রহে রাখতেন। এর ফাঁকে বাজারের এক বড়ভাইয়ের দোকানে বসে নিয়মিত কম্পিউটার শেখা শুরু করেন সুজন। ক্রমেই কম্পিউটার কেনার প্রতি তার আগ্রহ বাড়তে থাকে। কিন্তু প্রধান অন্তরায় হয়ে দাঁড়ায় অর্থ সংকট।
আলমগীর কবির সুজন জানান, পত্রিকা বিলির সূত্র ধরে একসময় গ্রামীণ ব্যাংক চৌবাড়িয়া শাখার ম্যানেজারের সঙ্গে সখ্যতা গড়ে উঠে। কম্পিউটার কেনা ও শেখার আগ্রহের কথা শুনে গ্রামীণ ব্যাংকের ম্যানেজার তাকে ২০ হাজার টাকা ঋণ দেওয়ার আশ্বাস দেন। গ্রামীণ ব্যাংকের ঋণের ২০ হাজার টাকা ও মায়ের একজোড়া হাতের বালা বিক্রির টাকায় ২০০৪ সালের দিকে পুরাতন কম্পিউটার, প্রিন্টার ও ক্যামেরা কিনে চৌবাড়িয়া বাজারে ব্যবসা শুরু করেন। পরে ফটোস্ট্যাস্ট মেশিন যুক্ত করেন। এরপর তাকে আর পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি।
উদ্যোক্তা সুজন জানান, ব্যবসার আয় দিয়ে ছোটভাই জাহাঙ্গীর আলম বাঁধনকে তৈরি করেন কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার। বর্তমানে সে সড়ক ও জনপদ বিভাগে নেটওয়ার্ক ইঞ্জিনিয়ার পদে চাকরি করছে। ক্রমেই ব্যবসার প্রসার ঘটায় উদ্যোক্তা হওয়ার স্বপ্ন দেখতে শুরু করেন। একসেস টু ইনফরমেশন প্রোগ্রাম (এটুআই) দেখে ২০১০ সালের দিকে ‘মা কম্পিউটার’ নামে একটি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র গড়ে তোলেন। পর্যায়ক্রমে যুক্ত করা হয় ২০ টি পিসিও। ২০১২ সালে বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষাবোর্ড থেকে কম্পিউটার অফিস এপ্লিকেশন ও ডাটাবেজ প্রোসেসিং এর অনুমোদন লাভ করেন। এ প্রশিক্ষণ কেন্দ্র থেকে এখন পর্যন্ত এক হাজারের বেশি যুবককে প্রশিক্ষণ ও সনদপত্র দেওয়া হয়েছে। এদের মধ্যে অন্তত ২০০ জন যুবক বিভিন্ন সরকারি দপ্তরসহ বেসরকারি সংস্থায় চাকরি করছে।
তিনি আরও বলেন, বর্তমান তার প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে এলাকার ৪০ জন শিক্ষিত বেকার ছেলে- মেয়ে আউটসোসিং এ কাজ করছে। আমেরিকান একটি কোম্পানির সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়ে সিপিএ, ইমেইল, মার্কেটিং, গ্রাফিক্স ডিজাইনসহ বিভিন্ন অপারেটিং সিস্টেমে কাজ করছে তারা। এ থেকে যা আয় হয় তার ৬০ ভাগ কর্মরতদের মাঝে বিতরণ হয়।
এছাড়া তার দোকান থেকে কম্পিউটার কম্পোজ, ফটোকপি, ছবির কাজ, বিকাশ লেনদেন, ফ্লেক্সিলোডসহ ইন্টারেন্টের যাবতীয় সেবা প্রদান করা হচ্ছে। এ কাজ থেকে প্রতিমাসে অন্তত এক লাখ টাকা আয় হয়ে থাকে।
উদ্যোক্তা সুজন বলেন, বর্তমান আওয়ামীলীগ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয় নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন। তার উজ্জল দৃষ্টান্ত তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এ প্রযুক্তি কাজে লাগিয়ে আজ আমি সফল। এ জন্য প্রধানমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন সফল এই উদ্যোক্তা। তিনি মনে করেন চাকরি নামক সোনার হরিণের পেছনে না ছুটে প্রধানমন্ত্রীয় ডিজিটাল প্রযুক্তি কাজে লাগিয়ে সহজেই বেকারত্ব দুর করতে পারেন।
শুধু সুজনই নন বর্তমানে এ উপজেলায় আরও অনেক যুবক প্রযুক্তির ব্যবহার করে সফলতার অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

18 − 3 =