মোবাইলফোনে আসক্তি- পড়ালেখার ব্যাপক ক্ষতি

0
72
728×90 Banner

মোল্লা তানিয়া ইসলাম তমা : করোনা মহামারির কারণে পৃথিবীজুড়ে অর্থনীতি ধ্বংসের পাশাপাশি ঝিমিয়ে পড়েছিলো শিক্ষাব্যবস্থাও । এর প্রভাব থেকে পিছিয়ে ছিলোনা বাংলাদেশও । আর শিক্ষায় পিছিয়ে পড়ার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বাসা বেঁধেছে নতুন এক উপদ্রব মোবাইল ফোন আসক্তি। অনলাইন ভিত্তিক ক্লাসের নামে অভিভাবকদের তুলে দিতে হয়েছিল তাদের কোমলমতি ছেলেমেয়েদের হাতে এ এক মরণ নেশা । এ নেশার আসক্তির কারণে কিশোর-কিশোরীরা লেখাপড়ার নাম করে দারুণভাবে ঝুঁকে পড়েছে মোবাইলের বিভিন্ন অ্যাপসভিত্তিক গেমস, পর্নোগ্রাফি ভিডিও, পাবজি, ফ্রি-ফায়ারের মতো মরণঘাতি গেমসের নেশাসহ ইউটিউব, লাইকি, ফেসবুক, টুইটারসহ সব ধরনের সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের প্রতি । এ যন্ত্রটি এমন একটি নেশা, যার কারণে খুনও হতে হচ্ছে । গড়ে উঠছে দেশের বিভিন্ন জায়গার বড় বড় শহরে কিশোরগ্যাংও। পারিবারিক কলহ তো বেড়েই চলেছে। বিবাহিতদের মাঝে বাড়ছে ডিভোর্সের প্রবণতা। তা ছাড়া এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, এ মোবাইল আসক্তির কারণে গত দুই বছরে স্কুল-কলেজের তরুণ-তরুণীরা চরম মানসিক অস্থিরতায় ভুগছে। ২৮ শতাংশ তরুণ-তরুণী দিনে ছয় ঘণ্টারও বেশি সময় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ব্যয় করে। ২৬ শতাংশ দিনে চার থেকে ছয় ঘণ্টা এবং ৩১ শতাংশ দুই থেকে চার ঘণ্টা দৈনিক বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সময় দিয়ে থাকে। দুঃখজনক হলেও সত্য যে, তরুণ-তরুণীদের মধ্যে এ ধরনের আসক্তির জন্য অভিভাবকদের রয়েছে অন্যতম ভ‚মিকা। ছেলেমেয়েদের আবদার এবং বায়না ধরার ফলে অভিভাবকরা অতি উৎসাহী হয়ে সন্তানদের লেখাপড়ার মানটাকে শক্তিশালী করার জন্য তথ্যপ্রযুক্তির দোহাই দিয়ে প্রযুক্তিগত উন্নতি যাতে করতে পারে সে আশাতেই অভিভাবকরা না বুঝেই তুলে দেন নেশা ও নারীর চেয়েও বেশি শক্তিশালী আসক্তির এ উপকরণ মোবাইল। সা¤প্রতিক সময়গুলোতে যৌথ পরিবার কাঠামো ভেঙে একক পরিবার তৈরি হওয়ার কারণে আরো বেশি পরিমাণে ছেলেমেয়েরা এই মোবাইলের প্রতিও আসক্ত হয়ে পড়ছে বলে মনে করেন গবেষকরা। মোবাইল আসক্তির ভয়াবহ এ প্রবণতায় বিশেষ করে উঠতি বয়সি ছেলেমেয়েরা বর্তমান পরিস্থিতিতে এক বিরাট সংকটকাল অতিক্রম করছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। গবেষকরা মোবাইল ফোনের সঙ্গে যোগাযোগ হারানোর এই ভয়জনিত অসুখের নাম দিয়েছেন ‘নোমোফোবিয়া’। বর্তমানে যুক্তরাজ্যের ৫৩ শতাংশ এবং ২৯ শতাংশ ভারতীয় তরুণরা এ রোগের শিকার। অপরদিকে যুক্তরাজ্যের গবেষকরা বলেছেন, মোবাইল অতিমাত্রায় ব্যবহারের কারণে চোখের জ্যোতি আনুপাতিক হারে কমে যাবে, এ বিষয়ে যুক্তরাজ্যের চক্ষুবিশেষজ্ঞরা সতর্ক করে জানিয়েছেন মোবাইল ফোনের অতিরিক্ত ব্যবহারের কারণে দৃষ্টিশক্তি কমে যাবে। কানে কম শুনবে, আর এ বিষয়টি নির্ভর করবে মোবাইল ব্যবহারকারীর ওপর। কারণ সে কানের কতটুকু কাছাকাছি এটি ব্যবহার করে, উচ্চ শব্দে গান শুনে কি না। এ ছাড়াও শারীরিক বিভিন্ন অসংগতি দেখা দেবে। যেমন শরীরের অস্থিসন্ধিগুলোর ক্ষতি হতে পারে। কমে যেতে পারে শুক্রাণু। গবেষকরা জানান, মোবাইল ফোন থেকে হাই ফ্রিকোয়েন্সির ইলেকট্রো-ম্যাগনেটিক রেডিয়েশন নির্গত হয়। এই ক্ষতিকর তরঙ্গের সঙ্গে মস্তিষ্কে ক্যানসারের যোগস‚ত্র থাকতে পারে। এ ছাড়া শরীরের অন্য কোষকলা এই ক্ষতিকর তরঙ্গের প্রভাবে ক্ষতির মুখে পড়তে পারে। ক্ষতির আশঙ্কা রয়েছে পুরুষের প্রজননতন্ত্রেরও। শারীরিকভাবে সুস্থ থাকতে হলে একজন মানুষের প্রতিদিন ছয় থেকে আট ঘণ্টা ঘুমের প্রয়োজন হয়। কিন্তু মানুষের এই ঘুমের সময়টা যদি বৈদ্যুতিক যন্ত্রের ব্যবহার দখল করে নেয় তাহলে ঘুমের সমস্যা দেখা দেওয়ার সম্ভাবনা প্রবল হয়ে ওঠে। ইনসমনিয়া এমনই একটি সমস্যা। ইনসমনিয়া বা স্পিং ডিসঅর্ডার বলতে অনিদ্রা বা স্বল্প নিদ্রাকে বোঝায়। এর ফলে মানুষের শরীরে ঘুমের চাহিদা অপ‚র্ণ থেকে যায়। ইনসমনিয়ার দুই ধরন প্রাথমিক বা স্বল্পমেয়াদি- এ ক্ষেত্রে প্রাথমিকভাবে ব্যক্তির ঘুমাতে সমস্যা হয় কিন্তু তা শারীরিকভাবে কোনো ক্ষতিকর প্রভাব ফেলে না। স্বল্পমেয়াদি ইনসমনিয়া কিছুদিন অর্থাৎ কয়েক সপ্তাহ স্থায়ী হয়। অপরটি ক্রমিক বা দীর্ঘমেয়াদি। অনিদ্রা যখন এক মাস বা তার বেশি সময় ধরে চলতে থাকে, তখন তাকে দীর্ঘমেয়াদি ইনসমনিয়া বলে। এ ধরনের ইনসমনিয়ার কারণ শারীরিক ও মানসিক অবসাদ, অ্যাজমা, আর্থ্রাইটিস, অ্যালকোহল সেবন, ওষুধের কুফল ইত্যাদি। ইনসমনিয়া নিয়ে বিভিন্ন গবেষণায় প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী বিশেষজ্ঞরা কিছু নির্দিষ্ট কারণ শনাক্ত করেছেন। এরমধ্যে অন্যতম কারণ হলো মাত্রাতিরিক্ত প্রযুক্তির ব্যবহার। আর বর্তমানে প্রযুক্তির ব্যবহারের কথা বললেই সবার আগে যে প্রযুক্তির কথা আমাদের মাথায় আসে তা হলো স্মার্টফোন। যোগাযোগ মাধ্যমের সর্বাধুনিক সহজ প্রযুক্তি হচ্ছে মোবাইল ফোন। এর বিকল্প এখনো আবিষ্কৃত হয়নি। বিজ্ঞানের এই আবিষ্কার এড়িয়ে চলবার উপায়ও নেই। তাই এর ব্যবহার অনিবার্য। তবে অপব্যবহার যেন না হয়, দিনকে দিন যাতে ছেলেমেয়েরা এর প্রতি আসক্তি বা ঝুঁকে না পড়ে, সেদিকে নজর দেওয়া খুবই জরুরি। এর ভয়াবহতা বা আসক্তি থেকে ছেলেমেয়েদের দ‚রে রাখতে হলে তাদের হতে তুলে দিতে হবে আকর্ষণীয় বই, পত্রপত্রিকা ও বিভিন্ন ধরনের ম্যাগাজিন। যোগাযোগ ঘটাতে হবে বিভিন্ন সামাজিক কর্মকাÐের সঙ্গে। বিনা প্রয়োজনে এর অতিরিক্ত ব্যবহার পরিহার করা বুদ্ধিমানের কাজ। তাই যাতে আমাদের তরুণ সমাজ এর ভয়াবহতায় ধ্বংস না হয় সেদিকে খেয়াল রাখা অভিভাবকদের জন্য অতীব জরুরি। আমাদের পরবর্তী জেনারেশনকে এ ভয়াবহতা থেকে রক্ষা করতে হলে প্রথমে সচেতন হতে হবে অভিভাবকদের। প্রতিরোধের ব্যবস্থাও নিতে হবে সচেতনভাবে- যাতে করে এর প্রভাবে আবার কোনো দুর্ঘটনা না পড়ে উঠতি বয়সের আবেগ প্রবণ ছেলেমেয়েরা । মোবাইল ফোন ব্যবহারের জন্য ব্যবহারকারীর হার্ট অ্যাটাকের আশংকা বেড়ে যায়।রক্তচাপ বেড়ে যায়। মেজাজ খিটখিটে হয়ে যায়। ক্ষুধামন্দা দেখা দেয়। মোবাইল ফোনের স্ক্রিনের রেডিয়েশন শিশুদের জন্য জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। এটি তাদের মস্তিষ্কের বিকাশের ব্যাহত করে। বলা হয়ে থাকে ‘আজকের শিশু আগামী দিনের ভবিষ্যৎ।’ এভাবেই যদি শিক্ষার্থীরা মোবাইল ফোনে আসক্ত হতে থাকে। তবে ভবিষ্যৎ তো হবে অন্ধকার। তাই কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করা আবশ্যক। * ঘুমানোর সময় বালিশের পাশে মুঠোফোন নিয়ে ঘুমাবেন না। এতে ফোনের তেজস্ক্রিয়াজনিত ঝুঁকি থেকে মুক্ত হওয়া যায়, তেমনি ঘুম থেকে উঠেই স্মার্টফোনে চোখ রাখার অভ্যাস কমানো যায়। * কোনো মিটিং কিংবা ক্লাসে মুঠোফোন বন্ধ করে ব্যাগে কিংবা টেবিলের ড্রয়ারে রেখে আসুন। মিসড কল অ্যালার্ট সার্ভিসের মাধ্যমে ফোন বন্ধ রাখার সময় কে কে ফোন করেছিলেন তা জানতে পারেন। * খাওয়ার সময় কখনোই ফোনের পর্দায় চোখ রাখবেন না। খাওয়া উপভোগ করার জন্য ফোন থেকে দ‚রে থাকুন। * মুঠোফোনে ই-মেইলের উত্তর দেওয়ার বদলে ডেস্কটপ বা ল্যাপটপ কম্পিউটারে অভ্যাস করুন। * ফ্রিডম, অ্যাপডেটক্স, স্টে অন টাস্ক, ব্রেকফিসহ বিভিন্ন অ্যাপ দিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আসক্তি কমাতে পারেন। এই অ্যাপগুলো আপনার মুঠোফোনে ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপসহ বিভিন্ন অ্যাপ নির্দিষ্ট সময়ের জন্য বন্ধ রেখে আপনার আসক্তি কমাতে পারে। * প্রতিদিন সকালে পত্রিকা পড়ার অভ্যাস ও রাতে
বই পড়ার অভ্যাস স্মার্টফোনে আসক্তি অনেকটা
কমিয়ে আনে। * ফেসবুক, টুইটারসহ সামাজিক যোগাযোগের বিভিন্ন মাধ্যমে সেটিংস অপশন থেকে নোটিফিকেশন বার্তা কমিয়ে নিতে পারেন। * স্মার্টফোনে আসক্তি কমাতে সাধারণ মোবাইল ফোন ব্যবহার শুরু করতে পারেন, যা শুধু কাজের জন্য কল দেওয়া আর খুদেবার্তা পাঠানোর জন্য ব্যবহার করবেন। * বিভিন্ন আড্ডা কিংবা খেলার মাঠে নিজের অংশগ্রহণ বাড়ানোর চেষ্টা করুন। বন্ধুদের সঙ্গে নিজের অভিজ্ঞতা শেয়ার, বন্ধুদের চোখে চোখ রেখে গল্প-আড্ডায় মেতে উঠুন, এতেও মুঠোফোন আসক্তি অনেক কমে আসে। * সন্তানকে ফোনে ই-বুক পড়ার অভ্যাসের বদলে রঙিন বই পড়তে উদ্বুদ্ধ করুন। * সন্তানের হাতে উচ্চপ্রযুক্তির স্মার্টফোন তুলে না দেওয়াই ভালো। খুব প্রয়োজন হলে সাধারণ ফোন ব্যবহার করার অনুমতি দিতে পারেন। * দৈনন্দিন কাজের হিসাব, মিটিং কখন, কোথায় তা লেখার জন্য মুঠোফোনের অ্যাপ ব্যবহারের চেয়ে কিছুদিন ডায়েরিতে হাতে-কলমে লেখার অভ্যাস করুন। * যানজটে বসে মুঠোফোনে মুখ না গুঁজে ব্যাগে বই রাখতে পারেন। যানজটে মুঠোফোনে গান না শুনে বা ফেসবুক ব্যবহার না করে বই পড়ার অভ্যাস করুন। * কোনো সামাজিক অনুষ্ঠানে সেলফি কিংবা ফোনে ছবি তোলার বদলে অনুষ্ঠানের অতিথিদের সঙ্গে পরিচিতি বাড়ান আর গল্প করার অভ্যাস করুন । প্রতিটি বিদ্যালয়ে মোবাইল ফোন নিষিদ্ধ করার জন্য কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করা এবং অভিভাবকদের সচেতনতা ও প্রয়োজনের বাইরে শিশুদের মোবাইল ফোন না দেওয়ার মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা মোবাইল ফোনের আসক্তি থেকে মুক্ত হতে পারে। এমনকি শিক্ষার্থীদের সৃজনশীল কাজে আরও বেশি আগ্রহী করে এবং খেলাধুলার সুযোগ প্রদানের মাধ্যমেও স্মার্টফোনের আসক্তি থেকে মুক্ত করা সম্ভব বলে আমি মনে করি ।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here