যথাযথ মর্যাদায় মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালিত

0
102
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক : নাটোরের লালপুরে উপজেলা প্রশাসন , আওয়ামীলীগ সহ রাজনৈতিক দল , সামাজিক সংগঠন ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের আয়োজনে নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান স্বাধীনতা দিবস ও জাতীয় দিবস পালন করা হয়েছে। দিনটি উদযাপন উপলক্ষে প্রথম প্রহরে ৩১ বার তোপ ধ্বনির মাধ্যমে কর্মসূচি শুরু হয়। উপজেলা পরিষদ অবস্থিত শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে শ্রদ্ধা জানান নাটোর ১ ( লালপুর – বাগাতিপাড়া) আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা এ্যাডভোকেট আবুল কালাম আজাদ। পরে উপজেলা মাঠে পুলিশ , আনসার ভিডিপি, ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে ডিপ্লে প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিযোগিতা শেষে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেয়া হয়। উপজেলা নির্বাহী অফিসার শারমিন আখতারের সভাপতিত্বে এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান ইসাহাক আলী, উপজেলা সহকারী কমিশনার ( ভূমি ) আরাফাত আমান আজিজ,উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আফতাব হোসেন ঝুলফু,সাধারণ সম্পাদক শামীম আহমেদ সাগর, লালপুর থানার অফিসার ইনচার্জ নাছিম আহমেদ, গোপালপুর পৌরসভার মেয়র রোকসানা মোর্ত্তজা লিলি, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মনোয়ার হোসেন মনি, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান লাবনী সুলতানা প্রমুখ।
দেবহাটায় যথাযথ মর্যাদায় মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালিত
দেবহাটা প্রতিনিধি: দেবহাটায় যথাযথ মর্যাদায় মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালিত হয়েছে। মঙ্গলবা (১৭ মার্চ) দেবহাটা উপজেলা প্রশাসন দিবসটি উদযাপনে নানা কর্মসূচির আয়োজন করে। সূর্যদয়ের সাথে সাথে সকল সরকারি, বেসরকারি অফিস ভবন, শিক্ষা ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে সঠিকভাবে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। সকাল ৮ টায় উপজেলা পরিষদ চত্বরে অবস্থিত হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মুর‌্যালে সকল শহিদদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। এতে দেবহাটা উপজেলা প্রশাসন ও উপজেলা পরিষদ, সংসদ সদস্যের পক্ষে, মুক্তিযোদ্ধা সাংসদ, দেবহাটা থানা, উপজেলা আওয়ামী লীগ, দেবহাটা প্রেসক্লাব, সরকারি খানবাহাদুর আহছানউল্লা কলেজ, সরকারি বিবিএমপি ইনস্টিটিউশন, দেবহাটা কলেজ, হাজী কেয়ামউদ্দীন মেমোরিয়াল মহিলা কলেজ সহ বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।
এসময় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব মো. মুজিবর রহমান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আসাদুজ্জামান, সহকারী কমিশনার (ভূমি) দিপা রানী সরকার, দেবহাটা থানার ওসি সেখ মাহমুদ হোসেন, পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) নুরুস সালাম সিদ্দিক, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান মনি, ভাইস চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান সবুজ, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান জিএম স্পর্শ, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আলী মোর্ত্তজা মো. আনোয়ারুল হক ও শেখ ফারুক হোসেন রতন, দেবহাটা প্রেসক্লাব সভাপতি মীর খায়রুল আলম, সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল হাসান শাওন, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডা. এসএম সাখাওয়াত হোসেন, কৃষি অফিসার শরীফ মোহাম্মদ তিতুমীর, প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসার শফিউল বশার, সাতক্ষীরা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির দেবহাটা সাব জোনাল অফিসের এজিএম জহুরুল ইসলাম জুয়েল, সদর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মতিন বকুল, সমাজসেবা অফিসার অধির কুমার গাইন, সরকারি কেবিএ কলেজের অধ্যক্ষ অলোক কুমার ব্যানার্জী, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী সঞ্জয় মন্ডল, মহিলা বিষয়ক অফিসার নাসরিন জাহান, আনসার ও ভিডিপি অফিসার আশালতা খাতুন, জেলা পরিষদ সদস্য নজরুল ইসলাম, বীর মুক্তিযোদ্ধা ইয়াছিন আলী, মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল ওহাব, নাজমুস শাহাদাত নফর বিশ্বাস, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি মিজানুর রহমান মিন্নুর, সাধারণ সম্পাদক বিজয় কুমার ঘোষ, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মাহবুব আলম খোকন, সাধারণ সম্পাদক লোকমান কবির, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের সভাপতি আবু রাহান তিতু, কৃষকলীগের সদস্য সচিব হুমায়ুন কবির হীম সহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মী ও সরকারি বিভিন্ন দপ্তরের অফিসারবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সকল শহিদ বীর মুক্তিযোদ্ধার রুহের মাগফেরাত এবং দেশ ও জাতির মঙ্গল কামনায় দোয়া অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন দেবহাটা মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের ইমাম হাফেজ সাইফুদ্দিন ইয়াহিয়া। পরে ৯ টায় দেবহাটা ফুটবল মাঠে কুজকাওয়াজ, ডিসপ্লে প্রদর্শন, শহীদ বীরমুক্তিযোদ্ধাদের কবর জিয়ারত, সকল মুক্তিযোদ্ধা ও পরিবারেরদের সংবর্ধনা, সভা কক্ষে আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণ করা হয়।
দেবহাটা প্রেসক্লাবের শ্রদ্ধা নিবেদন
মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবসে দেবহাটা প্রেসক্লাবের পক্ষ থেকে সকল শহিদ বীর মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়েছে। মঙ্গলবার (২৬ মার্চ) সকাল ৮টায় উপজেলা প্রশাসন আয়োজিত কর্মসূচির সাথে মিলরেখে উপজেলা পরিষদ চত্বরে অবস্থিত হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মুর‌্যালে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দ।
দেবহাটা প্রেসক্লাব সভাপতি মীর খায়রুল আলম ও সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল হাসান শাওনের নেতৃত্বে এসময় প্রেসক্লাবের উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মো. মুজিবর রহমান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আসাদুজ্জামান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান মনি, প্রেসক্লাব সভাপতি সাবেক সভাপতি আব্দুল ওহাব, আব্দুর রব লিটু, যুগ্ম-সম্পাদক লিটন ঘোষ বাপি, সহ-সভাপতি অধ্যাপক রাজু আহম্মেদ, সাংগঠনিক সম্পাদক সুমন পারভেজ বাবু, অর্থ সম্পাদক আব্দুস সালাম, তথ্য ও গবেষনা বিষয়ক সম্পাদক এম.এ মামুন, কার্যনির্বাহী সদস্য বায়োজিত বোস্তামি উজ্বল, সদস্য কবির হোসেন, দিপঙ্কর বিশ্বাস, এসএম নাসির উদ্দীন, এস.কে অভি প্রমুখ।

বাংলাদেশ জাস্টিস এন্ড ডেভেলপমেন্ট পার্টি
আজ ২৬ শে মার্চের প্রথম প্রহরে বাংলাদেশ জাস্টিস এন্ড ডেভেলপমেন্ট পার্টি উদ্যেগে দলের কেন্দ্রীয় যুগ্ম—সাধারন সম্পাদক সাজেদুল ইসলামের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল মহান স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষ্যে জাতীয় স্মৃতিসৌধে দলের চেয়ারম্যান মোঃ দেলোয়ার হোসাইন এর পক্ষথেকে বীর শহীদদের ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।
বাঙালি জাতির জীবনের সর্বশ্রেষ্ঠ অর্জন বাংলাদেশের স্বাধীনতা। আজ সেই মহান স্বাধীনতা দিবস। পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর বর্বর নির্যাতন, নির্বিচার হত্যাযজ্ঞ এর প্রতিবাদে সেই দিন দেশের দামাল ছেলেরা দেশকে স্বাধীন করার জন্য অস্ত্র হাতে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল । হাজার বছরের সংগ্রাম মুখর বাঙালি জাতি দীর্ঘ ৯ মাসের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের পর পরাধীনতার শৃঙ্খল ভেঙে ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ কাঙ্ক্ষিত স্বাধীনতা অর্জন জন্য হানাকরেছিল। স্বাধীন বাংলাদেশ এবার ৫৪ বছরে পা দিলেও কাঙ্খিত স্বাধীনতা এখন ও অর্জন হয়নি। দেশ এখনও সিন্ডিকেট ও দূর্নীতিবাজদের দখলে আছে। আমাদের স্বাধীনতা যুদ্ধের সেই চেতনাকে কাজে লাগিয়ে সিন্ডিকেট ও দুর্নীতি মুক্ত বাংলাদেশ গড়ে তুলতে হবে।
বাংলাদেশ গণমুক্তি পার্টি
বাংলাদেশ গণমুক্তি পার্টির আহবায়ক এম এ আলীম সরকার এক বিবৃতিতে বলেছেন – ২৬শে মার্চ বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস রূপে উদযাপিত হয়ে আসছে। আমরা এই দিনটিকে বাংলাদেশের জনগণের মধ্যে সত্যিকারের জাতীয়তাবোধ বিকশিত হওয়ার এবং জাতিরাষ্ট্র রূপে বাংলাদেশকে শক্তিমান ও সংস্কৃতিমান রূপে বিকশিত করার সংকল্প গ্রহণ করে কাজ করার সংস্কৃতির ধারণাকে আমরা নাচ গান ও বিনোদনের ব্যাপার বলে মনে করি না। আমরা মনে করি সর্বজনীন কল্যাণে ঐক্যবদ্ধ উনসত্তর সম্পর্কে সকলের উন্নতিশীল দৃষ্টিভঙ্গি গড়ে তোলার এবং সেই দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে কাজ করার সংকল্প গ্রহণের দিন। গতানুগতিক রাজনীতিতে বাইরের নানাশক্তিকে বাংলাদেশের একান্ত অভ্যন্তরীণ ব্যাপারে ডেকে আনার জন্য যেভাবে কাজ করা হচ্ছে তার ফলে আমাদের জাতীয় চিন্তা চেতনা ও বাংলাদেশকে এদেশের রাষ্ট্ররূপে গড়ে তোলার পরিপন্থী। আমরা মনে করি বাংলাদেশের জনগণ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও তার সহযোগী ইউরোপীয় ইউনিয়নকে বাংলাদেশের একান্ত অভ্যন্তরীণ ব্যাপারে ডেকে আনা হয়। এর ফলে আমাদের জাতীয়তাবোধ ও রাষ্ট্রের সার্বভৌমত্ববোধ ব্যাহত হয়। এই দিনে বাংলাদেশের জাতীয় চেতনা ও রাষ্ট্র গঠনের জন্য সকলকে সচেতন থাকার ও সক্রিয় হওয়ার জন্য দেশবাসী সকলের প্রতি আহ্বান জানাই।
‘মিশন গ্রিন বাংলাদেশ’
বৃক্ষরোপণের মাধ্যমে সবুজ বাংলাদেশ গড়ার শপথ নিয়েছে দেশের এক ঝাঁক তরুণ৷ মঙ্গলবার (২৬ মার্চ, ২০২৪) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে বৃক্ষরোপণের মাধ্যমে বাংলাদেশ সবুজ বাংলাদেশ গড়ার শপথ নেন তারা। এসময় তারা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকার ছাত্র শিক্ষক কেন্দ্র (টিএসসি), চারুকলা বিভাগ, বেশ কিছু আবাসিক হল ও হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বৃক্ষরোপণ করেন।
জানা গেছে, সারাদেশের তরুণদের নিয়ে একটি সবুজ বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে ‘মিশন গ্রিন বাংলাদেশ’-নামের উদ্যোগ নিয়েছে দেশের মানুষের হেলথ ও ওয়েলনেস নিয়ে কাজ করে চলা প্রতিষ্ঠান হেলথি লিভিং বিডি। সহযোগী হিসাবে আছে পরিবেশ নিয়ে দীর্ঘদিন কাজ করে চলা সংগঠন ‘হেল্প দ্যা ফিউচার’ ও গাছ নিয়ে কাজ করে চলা প্রতিষ্ঠান ‘প্লান্ট ইজি’। বৃক্ষরোপণের প্রথম পর্বের এ মিশনটি চলবে আগামী ৩১ মার্চ ২০২৪ পর্যন্ত।
আয়োজকরা জানায়, প্রথম পর্বে স্বাধীনতার ৫৩ বছর উপলক্ষে প্রতীকীভাবে দেশের ৫৩টি স্থানে চারাগাছ রোপণ করবেন তারা। তাদের উদ্দেশ্য শুধু চারাগাছ রোপণই নয়, বৃক্ষরোপণের বার্তাটি সারাদেশে ছড়িয়ে দেওয়া যাতে করে সবাই বৃক্ষরোপণে উদ্বুদ্ধ হয়। আর ২০২৪ সালে সারাবছর জুড়েই চলবে তাদের সবুজ বাংলাদেশ গড়ার কার্যক্রম। এই মিশনের অংশ হিসেবে এক লক্ষেরও বেশি গাছ রোপণ করার পরিকল্পনা রয়েছে তাদের। এছাড়াও কার্যক্রমের আওতায় পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযান, প্লাস্টিক দূষণ কমানো, ১কোটি মানুষের মাঝে জনসচেতনতা তৈরীসহ নানা উদ্যোগ হাতে নিয়েছেন তারা।
অনন্য এ আয়োজনের বিষয়ে জানতে চাইলে হেলথি লিভিং বিডির প্রতিষ্ঠাতা আহসান রনি বলেন, ‘আমরা একটি সুস্থ ও সুন্দর বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন দেখি, যেখানে প্রতিটি মানুষ সুস্থ জীবনযাপন করবে। সুস্থ জীবনযাপনের এক নম্বর শর্ত হচ্ছে সুস্থ পরিবেশ অর্থাৎ শুদ্ধ বাতাস, শুদ্ধ মাটি, পরিষ্কার পানি; সবকিছুর প্রধান সমাধান হচ্ছে একটি সবুজ বাংলাদেশ গড়ে তোলা, যেখানে চারিদিকে গাছের সমারোহ। এজন্যই হেলদি লিভিং বিডি ও সহযোগী প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে আমরা সারাদেশে লক্ষাধিক গাছ যেমন লাগাতে চাই, তেমনি কোটি মানুষকে সচেতন করতে চাই গাছ লাগানোর জন্য।’
কার্যক্রমের প্রজেক্ট ডিরেক্টার কৃষিবিদ আবুল বাশার মিরাজ বলেন, ‘সুস্থভাবে বাঁচতে হলে সবার আগে আমাদের সুস্থ পরিবেশ দরকার। যেভাবে দেশের প্রতিটি পতিত জায়গা, রাস্তা, কিংবা নদীর ধারে প্রতিটি জায়গায় আমরা বৃক্ষরোপণের মাধ্যমে সবুজ বাংলাদেশ গড়তে চাই। আমরা আশা করছি সবুজ বাংলাদেশ গড়ে তোলার এই উদ্যোগে প্রতিটি মানুষই আমাদের সাথে থাকবেন।’

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here