শতবর্ষেও থেমে নেই সালাম

0
283
728×90 Banner

দ্বীন মোহাম্মদ মুন্না : জীবন ও জীবিকার সন্ধানে আমরা প্রতিদিন প্রতিনিয়তই ছুটে চলছি এপ্রান্ত থেকে ওপ্রান্তে। একটু সুখ আর শান্তিতে থাকার জন্য অবিরাম ছুটে চলার এক নাম কর্ম। কর্মকে গুরুত্ব দিয়েই জীবন যাত্রার মান উঠা-নামা করে। এটাই স্বাভাবিক। এমন স্বভাবের ব্যতিক্রম ঘটেনি আব্দুস সালামের জীবনে।
প্রায় শতবর্ষ ছুঁই ছুঁই। এখনও তিনি রিকসা চালিয়ে জীবন-জীবিকার স্বল্প সুখ ধরে রাখার চেষ্টা অব্যাহত রেখেছেন। আব্দুস সালাম চাঁদপুর জেলার শাহ্রাস্তি উপজেলার পৌর ৮নং ওয়ার্ডের নিজ মেহার গ্রামের জুগি বাড়ির মৃত গোলাম আলীর ছেলে।
রিকসা চালক আব্দুল সালামের সাথে আলাপকালে জানা যায়, তিনি ১৯২১ সালে জন্ম গ্রহন করেন। পিতার আর্থিক অনটনের কারনে লেখাপড়া করতে পারেনি। যে কারণে অল্প বয়সে অর্থ উপার্জনের জন্য নানা মুখি কর্মে যোগদান করেন তিনি। ১৯৫৮ সালে কুমিল্লা শহরে তিনি রিকসা চালনো শুরু করেন। সেখানে তিনি ৭ বছর রিকসা চালানোর পর ষাটের দশকে নিজ জেলা চাঁদপুর শহরে আসেন। সেখানেও তিনি ৫ বছর এই কাজে নিয়োজিত থাকার পর নিজ এলাকায় ফিরে আসেন। ১৯৭০ সাল থেকে এখন পর্যন্ত তিনি তার ৯৮ বছর বয়সেও রিকসা চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করছেন।
তিনি আরও জানান, বৈবাহিক জীবনে তিনি ২টি বিয়ে করেন। প্রথম স্ত্রীর ৩ ছেলে ৫ মেয়ে আর ২য় সংসারে ১ ছেলে ১ মেয়ে নিয়ে সংসার জীবন চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি। প্রথম স্ত্রীর সংসার জুড়ে যে ৮ জন সন্তান রয়েছে তাদের মধ্যে বড় কন্যা মারা যায় আর বাকি সন্তানগুলো নিজ নিজ বৈবাহিক জীবন নিয়ে দিনাতিপাত করছে।
সন্তানের চাহিদা, ভালো লাগা, পছন্দ করা, সবই পিতা পূরন করেন। সন্তান যখন মাটিতে গড়িয়ে কাঁদে পিতা তখন টেনে তুলে বুকে জড়িয়ে নেয়। তখন সন্তানের বায়না, সন্তানের আবদার পূরণ করেন হাসি মুখে। ওই সন্তান বড় হওয়ার পর পিতা-মাতা পায়না তাদের প্রয়োজনীয় চাহিদা, পায়না সুন্দর ব্যবহার আর খোঁজ খবর। পিতা মাতার বর্তমান বৃদ্ধ সময়টুকু অবহেলা আর মানসিক যন্ত্রনার এক দগ্ধ ভ‚মি। যেখান থেকে শুধুই হারানো আর খোঁয়ানোর আশংকা তেড়ে বেড়ায়। তবুও পিতা মাতা এ অবস্থাতেও নিষ্ঠুর সন্তানের জন্য দোয়া এবং শুভ কামনা করেন। আজ রিকসা চালক আব্দুস সালাম অতি বৃদ্ধ। যার পেকেছে দাঁড়ি এমনকি চোখের চোখের ব্রæঁ। তবুও তিনি খেয়ে পড়ে বাঁচার তাগিদে রিকসা চালিয়ে বেড়ান। কোথায় সন্তান? এমন প্রশ্ন জাগাই স্বাভাবিক। সবাই যাকে চিনেন এবং জানেন অথচ তাকেই চিনেন জানেন না তার সন্তানেরা, রাখেন না কোন খোঁজ খবর। হতভাগা পিতা একদিন এই সন্তানদের মুখের আহার তুলে দিয়েছেন। অথচ আজ তিনি কামাই করলেই হয় আহারের ব্যবস্থা । এভাবেই আর কত দিন ? আয়ুর জোরে এখানে তিনি। ওনার অসুস্থায় অথবা জীবনের শেষ দিনগুলোতে কি দুর্বিসহ জীবন যাপন অপেক্ষা করছে তা আমাদের জানা নেই। তবে এটুকু বুঝি আব্দুস সালাম অনাহারে বিনা চিকিৎসায় মায়ার এই পৃথিবী ত্যাগ করবেন। রেখে যাবেন সন্তানদের অবহেলায় ঘৃনিত এক অধ্যায়। এখনও তার পাশে তার সন্তানদের আসার সুযোগ রয়েছে, রয়েছে পিতার হক পূরনের অনাবিল প্রান্তর।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

eleven − seven =