শেখ হাসিনাকে সরকার গঠনের আমন্ত্রণ

0
170
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক:একাদশ জাতীয় সংসদে সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্যদের আস্থাভাজন হিসেবে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনাকে সরকার গঠনের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।
বৃহস্পতিবার বিকেলে বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করতে যান শেখ হাসিনা। এসময় রাষ্ট্রপতি তার উদ্দেশে এ আমন্ত্রণ জানান।
রাষ্ট্রপতির প্রেস সচিব মো. জয়নাল আবেদীন গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
জানা যায়, আজ বিকেল ৪টার দিকে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে বঙ্গভবনে যান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ সময় রাষ্ট্রপতি তাকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান। নির্বাচনের পর এটাই রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর প্রথম সাক্ষাৎ।
সাক্ষাৎকালে শেখ হাসিনার সঙ্গে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ও উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমির হোসেন আমু উপস্থিত ছিলেন।
এর আগে আজ সকালে সংসদ ভবনে আওয়ামী লীগ ও মহাজোটের নবনির্বাচিত এমপিরা শপথ গ্রহণ করেছেন। জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী তাদের শপথ বাক্য পাঠ করান।
ফলে নবনির্বাচিত এমপিরা শপথ নেয়ার পর সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতার কারণে দ্রুত মন্ত্রিসভা গঠনের সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে নিরঙ্কুশ বিজয়ী দল আওয়ামী লীগ।
গেল ৩০ ডিসেম্বর ২৯৯টি আসনে দেশব্যাপী একাদশ সংসদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ হয়। এতে এককভাবে ২৫৯টি আসন পেয়ে নিরঙ্কুশভাবে বিজয়ী হয় আওয়ামী লীগ।
বাংলাদেশের সংবিধানের ৫৬ অনুচ্ছেদ বলা হয়েছে, মন্ত্রিসভায় একজন প্রধানমন্ত্রী থাকবেন। প্রধানমন্ত্রী যেভাবে নির্ধারণ করবেন, সেভাবে অন্যান্য মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রী থাকবেন। প্রধানমন্ত্রী ও অন্যান্য মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রীকে রাষ্ট্রপতি নিয়োগ দিয়ে থাকেন। আর যে সংসদ সদস্য, সংসদের সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্যের আস্থাভাজন বলে রাষ্ট্রপতির কাছে প্রতীয়মান হবেন, রাষ্ট্রপতি তাকে প্রধানমন্ত্রী নিয়োগ দেবেন।
২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত দশম জাতীয় সংসদের নির্বাচনের পর নতুন সরকার গঠিত হয়েছিল ১২ জানুয়ারি। তখন সংসদের অধিবেশন বসেছিল ২৯ জানুয়ারি। এই বিষয়গুলো বিবেচনায় রেখে এবারো সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা পূরণ করেই সরকার গঠনের প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে।
ফলে সবমিলিয়ে টানা তৃতীয়বারের মতো সরকার গঠন করতে যাচ্ছে আওয়ামী লীগ।
এবারের নির্বাচনে ৩০০ আসনের মধ্যে মহাজোটভুক্ত দলগুলোর মধ্যে আওয়ামী লীগ বাদে জাতীয় পার্টি পায় ২২টি আসন। এছাড়া ওয়ার্কার্স পার্টি ৩টি, জাসদ ২টি, বিকল্পধারা ২টি, তরিকত ফেডারেশন ১টি এবং জেপি ১টি আসনে জয়লাভ করে।
এদিকে, বিএনপিসহ জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট পেয়েছে মাত্র ৭টি আসন। এর মধ্যে বিএনপি ৫, গণফোরাম ১ ও ঐক্যপ্রক্রিয়া ১টি আসনে জয় পায়। এছাড়া ৩টি আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা জয় পেয়েছেন। আর স্থগিত ১টি আসনে বিএনপির প্রার্থী এগিয়ে আছেন।
নির্বাচনে ৩০০টি আসনের মধ্যে প্রার্থীর মৃত্যুর কারণে ১টি আসনের নির্বাচন আগেই স্থগিত করা হয়।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here