সীমান্ত হত্যা বন্ধের দাবীতে প্রতীকী লাশ নিয়ে পদযাত্রা

0
32
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর ( সংবাদ বিজ্ঞপ্তি) : আজ ১১ সেপ্টেম্বর ২০২০ইং শুক্রবার সকাল ১০ টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে থেকে সীমান্ত হত্যা বন্ধের দাবীতে প্রতীকী লাশ নিয়ে ঢাকা থেকে কুড়িগ্রামের অনন্তপুর সীমান্ত অভিমুখে একক পদযাত্রা শুর করেন হানিফ বাংলাদেশী। পদযাত্রার প্রথম দিনে ১৫ কিলো পায়ে হেটে গাবতলী ব্রীজ গিয়ে আজকের পদযাত্রা শেষ করেন তিনি। আগামীকাল সকাল ১০ টায় আবার গাবতলী ব্রীজ থেকে পদযাত্রা শুরু করবেন। আগামী ৩০ তারিখ কুড়িগ্রামের অনন্তপুর গিয়ে পদযাত্রা শেষ হবে।
আজ জাতীয় প্রেসক্লাবে সময় সংক্ষিপ্ত সমাবেশের মাধ্যমে বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ হানিফ বাংলাদেশীর পদযাত্রার সাথে সংহতি প্রকাশ করেন। আজকের পদযাত্রার হানিফ বাংলাদেশীর সাথে ছিলেন লেখক রাজনীতিবিদ রাখাল রাহা, ইমরান ইমন, হাবিবুর রহমান, নাহিদ রহমান পুতুল, হাবিবুর রহমান, মাসুম বিল্লাহ, ইব্রাহিম জিল্লুর রহমান, রফিকুল ইসলাম, জামাল উদ্দিন রাসেল প্রমুখ।
সমাবেশে হানিফ বাংলাদেশী বলেন, বাংলাদেশ-ভারত প্রতিবেশি ও বন্ধুপ্রতীম দেশ। আমরা চাই ভারত প্রতিবেশির সাথে মানবিক আচরণ কর”ক কিন্তু প্রতিনিয়তই ভারতের বিএসএফ নিরীহ বাংলাদেশীদের হত্যা করে চলছে। হতে পারে তারা গর”চোর-চোরাকারবারি, এদের আইনের আওতায় বিচার করা হোক। যখন যে দল রাষ্ট্র ক্ষমতায় আসে তারা দীর্ঘ মেয়াদে ক্ষমতায় থাকার জন্যে ভারতে তোষামোদী ছাড়া জনগণের জানমাল ও সার্বভৌমত্ব রক্ষায় কোন সরকারই কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহন করেনি। এই সরকারের ১২ বছরের শাসন আমলে বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তে, এমনকি কোন কোন ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ভূখ-ের অভ্যন্তরে অনুপ্রবেশ করে প্রায় ৫০০ জন বাংলাদেশীকে হত্যা করেছে বিএসএফ। গত ১৯৯৬ সাল থেকে ২৫ বছরে ১২৬৩ জনকে হত্যা করা হয়েছে। স্বাধীনতার পর গত ৫০ বছরে প্রায় ৩ হাজার বাংলাদেশীকে হত্যা করেছে বিএসএফ। শাসক দলগুলোর দুর্বল ও নতজানু পররাষ্ট্রনীতি এবং ক্ষমতা আঁকড়ে রাখার হীনস্বার্থে ভারত তোষণ নীতির কারণে বিএসএফ ধারাবাহিক হত্যাকা- চালিয়ে যেতে পারছে। অথচ আমরা দেখেছি অপেক্ষাকৃত ছোটদেশ নেপালের একজন নাগরিককে হত্যা করার পর নেপালের জনগণ ও সরকারের তীব্র প্রতিক্রিয়ার মুখে আনুষ্ঠানিকভাবে ক্ষমা চেয়েছিল ভারত।”
তিনি বলেন, “আমরা অত্যন্ত স্পষ্টভাবে বাংলাদেশ সরকারকে জানিয়ে দিতে চাই, অবিলম্বে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী কর্তৃক বাংলাদেশের নাগরিকদের হত্যাকা- বন্ধ করতে হবে। বহুমাত্রিক কূটনৈতিক তৎপরতার মাধ্যমে ভারতের সাথে বাংলাদেশের মানুষের স্বাধীন ও মর্যাদাপূর্ণ প্রতিবেশীর সম্পর্ক নিশ্চিত করতে হবে।”
উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের ১২ মার্চ থেকে ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত ভোটাধিকারের দাবিতে টেকনাফ থেকে তেতুঁলিয়া পদযাত্রা করেন হানিফ বাংলাদেশী। ২৬ সেপ্টেম্বর থেকে ২ নভেম্বর পর্যন্ত দুর্নীতির বির”দ্ধে ৬৪ জেলায় গিয়ে স্বশরীরে উপস্থিত হয়ে ডিসিদেরকে স্বারকলিপি দিয়েছেন। রোহিঙ্গা ফেরত নেওয়ার দাবীতে পদযাত্রা করে চীনা দূতাবাস ও মিয়ানমার দূতাবাসে স্বারকলিপি দিয়েছেন। সীমান্ত হত্যার বন্ধের দাবিতে পদযাত্রা করে ভারতীয় দূতাবাসে স্বারকলিপি দিয়েছেন। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসির পদত্যাগের দাবীতে পদযাত্রা করে স্বারকলিপি দিয়েছেন।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here