সেলফি বাজি করে নিজেকে ‘ত্যাগী’ প্রমাণ করতে চায় এরা কারা

0
196
728×90 Banner

মোল্লা তানিয়া ইসলাম তমা : শেরে বাংলা একে ফজলুল হক, হোসেন শহীদ সোহরা ওয়ার্দী, হাজী শরীয়ত উল্লাহ, তিতুমীর, মাওলানা ভাষানী, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, বাংলাদেশের প্রথম প্রধান মন্ত্রী – তাজ উদ্দিন, প্রথম বিচারপতি – আবু সাইদ চৌধুরী, বর্তমান এ সকল নেতাদের সমাজ সেবা নামক রাজনীতির পথচলা কেমন ছিলো এটা কমবেশি আমাদের সবারেই জানা আছে । তারা গন মানুষের সমস্যার সমাধান করতে পেরেছিলো বলেই গনমানুষ তাদেরকে আজও মহান নেতা মনে করেন । কিন্তু কষ্টের সাথে আজকে কেনো জানি বলতে হয় – বর্তমানের চুনুপুটি নেতাদের দেখলে মনে হয় তারা মহান নেতাদের বংশধর সেজেছে, কেবল তার মতোই দেহের আরেক মানুষ নামের নেতার সাথে সেলফি উঠানোর জন্য, এফবিতে ছবি দেওয়ার জন্য । মাঝে মাঝে আমার বড্ড হাসি পায় তাদের কতিপয় পোষ্ট দেখে । ১০ টা ছবি আপলোড করে ১০০ জনকে ট্যাগ করে, এবং লেখাগুলা এমন – ভাইয়ের সাথে আজকে প্রোগ্রামে, মন্ত্রী মহোদয়ের সাথে, চাদ মহানগরের আহবায়ক এর সাথে, তমুক ভাই আমার অভিভাবক, আমি ওমুক ভাইয়ের সৈনিক, ওমুক নেতার ছোট ভাইয়ের সালাকে সভাপতি, কাউন্সিলর, মেয়র হিসেবে দেখতে চাই, আরো কতো কিছু । আবার এদের লেখার ভাষা ও বানান জেন কেমন কেমন হয়- মানে বুঝিনা ।
ছবি ছাপাইয়া পুরা এলাকা ভরে ফেলা, উমুক ভাইয়ের পক্ষ থেকে নতুন বছরের শুভেচ্ছা, ২১ শে ফেব্রুআরি, ২৬ এ মার্চ, ৭ ই মার্চ, ১৫ ই আগস্ট, ১৬ ই ডিসেম্বর শুভেচ্ছা, জন্মদিন, মৃত্যু দিন আরো কতো কি । এগুলা জানানো কি সমাজসেবা?
এখন আমার কথা হলো, মোবাইল, Internet, FB, বেনার তৈরী না হলে কি রাজনীতি থাকতোনা, সমাজসেবা উঠে যেতো, কোন নেতা তৈরী হতোনা? তারা ছবি উঠাইয়া কি বুজাইতে চায় তারাই জানে, হয়তো এমন কিছুই বুজাইতে চায়- আমি উমুক দলের সুমুক ভাইয়ের লোক,চিনে রাখেন আমাকে, সভাপতি পদপ্রার্থী, এটা কোন সমাজসেবা বা রাজনীতি হতে পারেনা, সেলফি তুলে, বেনার দিয়ে এলাকা ভরে ফেললেই এলাকার সবাই সূখি হয়ে যায় না, সবার সমস্যা সমাধান হয়ে যায়না । সমাজসেবা না করে এগুলা করা মানে জনগনকে ধোকা দেওয়া বলে আমি মনে করি । কেননা, অতীতের চলে যাওয়া মহান নেতারা কে কয়টা সেলফি, বেনার করে নেতা হয়েছিলেন, তারা কোন নেতার ছবি নিজের ছবির পিছনে লাগিয়েছিলেন,? এভাবে নিজের প্রচার করে সমাজসেবক হওয়া যায়না, গরীব মানুষের সমস্যা সাহস নিয়ে সমাধান করতে পারলেই সমাজসেবক ও রাজনীতিবিদ হওয়া যায় । এই সেলফি কুলফি রাজনীতি নামক ধোকাবাজি ত্যাগ করে দুর্বল মানুষের সমস্যা দেখেন, শুনেন, সমাধান দেন, তাহলে আপনি নেতা হয়ে যাবেন নিজের অজান্তেই। এবার আসেন আপনি নেতার সাথে ছবি উঠাইয়া যা বুজাতে চান, এবং আমারটা বুজেন কিনা । আমি যদি শাহরুখ খানের সাথে সেলফি তুলি তাহলে কি আমি তার পরবর্তী ছবিতে বড় রোল পেয়ে যাবো বলে ভাববেন ! trump এর সাথে যদি ছবি তুলি, তাহলে কি আমিরিকার এমপি হতে পারবো, যদি সাকিব আল হাসানের সাথে ছেলফি তুলি, তাহলে কি জাতীয় দলে খেলতে পারবো? এমন সেলফি ধারণা কেবলই মরিচিকাময় বিষয়, এগুলাকে বলে illusions. । প্রকৃত নেতার যোগ্যতা হলো – দূর্বল নাগরিকদের সমস্যা কে নিজের সমস্যা মনে করা, দায় সীকার করা, কাদা ছোরাছুরি কখনোই মহান নেতাদের আদর্শ হতে পারেনা । মিডিয়া নিয়ন্ত্রণ করা অল্পকিছু অসাধু নেতাদের কারনে আজকে বেশীরভাগ মানুষী তাদের চাল-চলন,ছলন-বলন কেই রাজনীতিগত হালচাল মনে করে । সময় এসেছে ভূল ধারনার রাজনীতি ত্যাগ করার, আবুল নামের কোন দরিদ্র লোক যদি কোট-পেন্ট -টাই পরে prado গাড়ির সামনে দারিয়ে বিড়ি ফুকতে থাকে তাহলে আপনি দুর থেকে দেখেই মনে করবেন- গাড়িটা তার, এবং সে কোন দামি সিগারেটি ফুকতেছে, এই আবুলি যদি তার আসল রুপে, ছিরা জামা পরে বেনসন ফুকে, আপনি দুর থেকে দেখে ভেবে নিবেন, সে বিড়ি ফুকতেছে, এমন ভূল ধারনার রাজনীতি আজকে পুরা বাংলাদেশে ছরিয়ে আছে । এমন ভূল ধারনা ত্যাগ করতে হবে আমাদের । নয়তো কঠিন বিপদ আছে সামনেই । আমি মনে করি, এমন কোন ধর্ম নাই যেই ধর্মে ভালো মানুষ নাই, আবার এমন ধর্মও নাই যেই ধর্মে খারাপ মানুষ নাই । এমন কোন রাজনীতিগত দল ও নাই পৃথিবীতে যেই দলে ভালো-খারাপ নেতাকর্মী নাই । মূল হিসাবটা এখানেই । সব ভালোরাই এক, সব খারাপরাও এক, রাজনীতি হতে পারে এই দুই বিবেচনায় । আওয়ামীলীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টি, জামায়াত, জাসদ, বাসদ ইত্যাদি এগুলা নিয়ে মাতামাতি করার কারনে তৈল ও পানি আলাদা করা যাচ্ছেনা । খারাপকে খারাপ বলতে শিখতে হবে সে যেই দলেরি হোক, নিজ দলের হলেও তাদের বিবেক দিয়ে ভাবতে হবে আবেগ দিয়ে না । ভালো কে বুক ফুলিয়ে ভালো বলার যোগ্যতা রাখতে হবে সে যেই দলেরি হোক না কেনো, যেই ধর্মেরি হোকনা কেনো, যেই পেশারি হোকনা কেনো,কারণ আপনি মানুষ, আপনি বিবেকহীন না । জাতীয় ও আন্তর্জাতিক বাস্তবতায় আজকাল সমাজ বা রাষ্ট্রে ভালো মানুষ তথা সত্যিকারের নেতার অবস্থান অনেকটাই নড়বড়ে। আলোচনা ও প্রচারে এরা দুর্বল। দলবেঁধে চলাফেরা না করায় ভালো মানুষদের আজকাল দুর্বল ও অযোগ্য বলতেও কারও বাধে না। কিন্তু নেতা হওয়ার প্রথম ও প্রধান গুণটাই হলো আগে একজন ভালো মানুষ হওয়া। আর ভালো মানুষ বলতে আমরা তাকেই বুঝব, যিনি কারও উপকার করতে না পারলেও অন্তত কারও ক্ষতি করবেন না। দেশ ও জনগণের প্রতি থাকবে নেতার অফুরন্ত ভালোবাসা। তবে এই ভালোর দিকটি নির্ভর করে ব্যক্তির পারিবারিক ঐতিহ্য, তার বেড়ে ওঠা সর্বোপরি মনস্তাত্ত্বিকবোধ ও অনুশীলনের ওপর। প্রশিক্ষণ কিংবা গণমাধ্যমে কৃত্রিম প্রচার করে কাউকে নেতা বানানো যায় না। এসব কারণেই দল ও সরকারে বড় পদ পেলেও সবাই নেতা হয়ে উঠতে পারেন না। কেবল কেউ কেউ নেতা হন। তাই নেতার সংকট এখন সর্বত্র । চোখের সামনে আমরা এখন যেসব নেতা দেখতে পাই বা টিভি চ্যানেল খুললেই যাদের চেহারা ভেসে ওঠে তাদের একটা বড় অংশকেই কেবল গলাবাজি করে নেতা হওয়ার চেষ্টা করতে দেখা যায়। তারা যা বলেন, তা বিশ্বাস করেন না। আর যা বিশ্বাস করেন, তা বলেন না। একটা নির্দিষ্ট দল করলেও তারা দলের মধ্যে দল সৃষ্টি করেন। নিজের মতাদর্শী না হলে একই দল করলেও তাকে বিপদগ্রস্ত করতে দ্বিধা করেন না। এদের সার্বজনীন চিন্তা ও আদর্শের অনুসারী কিংবা সৎ ও নীতিবান নেতা বলা সম্ভব নয় । সমাজ ও রাষ্ট্রের প্রবহমান পরিবর্তনের ধারায় জাতীয় ও দলগতভাবে নেতার উল্লিখিত বৈশিষ্ট্যের উপযোগিতা কখনোই ম্লান হওয়ার নয়। নেতা হতে গেলে তার বুদ্ধিবৃত্তিক, বিচক্ষণ চর্চা ও দক্ষতার বিকল্প নেই। এক্ষেত্রে তথাকথিত কর্মীবান্ধব নেতা না হয়েও সব কর্মী তথা জনগণের মন জয় করা সম্ভব। একইভাবে ভিন্ন রাজনৈতিক মতাদর্শী বা রাজনীতিবিমুখদেরও নয়নের মণি হওয়া যায়। তার জন্য সস্তা প্রচারণার বা সেলফিবাজী দরকার পড়ে না।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here