৯ কোটি টাকা মূল্যের সাপের বিষ:গাজীপুরে দুই জন গ্রেফতার

0
28
728×90 Banner

এস,এম,মনির হোসেন জীবন : সাপের বিষ ক্রয় বিক্রয় ও সংঘবদ্ধ পাচারকারীর চক্রের মূলহােতা মাে. মামুন তালুকদার সহ দুই জনকে রাজধানীর অদূরে গাজীপুরের কালিয়াকৈর এলাকায় গোপনে অভিযান চালিয়ে গ্রেফতার করেছে পুলিশের অপরাধ ও তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)।
সিআইডি বলছে, বাংলাদেশে সাপের বিষ ক্রয়-বিক্রয়ের কোনো বৈধতা নেই। মূলত সাপের বিষ পাচারের জন্য বাংলাদেশকে রুট হিসেবে ব্যবহার করে আসছিল পাচারকারীরা। তারা সাপের বিষ ক্রয়-বিক্রয় ও পাচারকারী চক্রের সক্রিয় সদস্য।
আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর মালিবাগে সিআইডির সদর দফতরে আয়োজিত এক প্রেসব্রিফিংয়ে এসব তথ্য জানান সিআইডির অর্গানাইজড ক্রাইম বিভাগের প্রধান অতিরিক্ত ডিআইজি শেখ মো. রেজাউল হায়দার।
এসময় ডিআইডির অন্যান্য উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
তিনি জানান, বুধবার রাতে গাজীপুরের কালিয়াকৈর এলাকায় গোপনে অভিযান চালিয়ে সাপের বিষ পাচারকারীর চক্রের মূলহােতা মাে. মামুন তালুকদার (৫১) ও তার সহযোগী মাে. মামুনকে (৩৩) আটক করে সিআইডির একটি দল।
এ সময় দুটি বড় লকার ও ছয়টি কাচের কৌটায় সংরক্ষিত সাপের বিষ উদ্ধার করা হয়। উদ্ধারকৃত মালামালগুলোর প্রত্যেকটি বােতলের গায়ে কোবরা স্নেক পয়জন অফ ফ্রান্স, রেড ড্রাগন কোম্পানি, কোবরা কোড নং-৮০৯৭৫, মেইড ইন ফ্রান্স লেখা আছে। এছাড়া একটি ক্যাটালগ বই পাওয়া গেছে।
তিনি বলেন, গত ১৭ সেপ্টেম্বর সিআইডি ঢাকা মেট্রোর একটি টিম গাজীপুরের বাসন থানা এলাকা থেকে সাপের বিষ ক্রয়-বিক্রয় ও পাচারকারী একটি চক্রের কয়েকজন সদস্যকে গ্রেফতার করে। পরে তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়। ওই মামলার তদন্তকালে গােপন সংবাদের ভিত্তিতে সিআইডি জানতে পারে, এরকম আরও কয়েকটি বড় ধরনের পাচারকারী চক্র সক্রিয় রয়েছে।
এরই ধারাবাহিকতায় গত বুধবার রাতে গাজীপুরের কালিয়াকৈর থেকে সাপের বিষ পাচারকারী চক্রের মূলহােতা মামুন তালুকদার ও তার সহযোগী মামুনকে গ্রেফতার করা হয়।
অতিরিক্ত ডিআইজি শেখ রেজাউল হায়দার সাংবাদিকদেরকে জানান, প্রাথমিকভাবে জানা গেছে, বাংলাদেশ থেকে ইন্দোনেশিয়া ও মালয়েশিয়াসহ বিভিন্ন দেশে সাপের বিষ পাচার হয়। এটার বৈশ্বিক মার্কেট রয়েছে, তবে, বাংলাদেশে বিক্রির কোনো বৈধতা নেই।
সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, দেশের বাইরে থেকে এ সাপের বিষ কোনো না কোনোভাবে বাংলাদেশে এসেছে। দু-তিন হাত ঘুরে হয়তো এই চক্রের মাধ্যমে দেশের বাইরে পাচার হতো। সাপের বিষ ওষুধ তৈরির কাজে ব্যবহৃত হয়। তবে, বাংলাদেশে ফার্মাসিউটিক্যালে এটি ব্যবহারের বৈধতা নেই। যে কারণে এটি বাংলাদেশে ব্যবহারের সুযোগও নেই।
তিনি আরও জানান, আমরা এখনো নিশ্চিত না যে এটা ঠিক কোন দেশ থেকে বাংলাদেশে আনা হয়েছে। এটা এলসির মাধ্যমে আনা হয়নি। জব্দ করা বিশ্বের কনটেইনার গুলোতে লেখা দেখা গেছে ‘মেড ইন ফ্রান্স’। তাদের কাছ থেকে দুটি লকার পাওয়া যায় এর মধ্যে একটি লকার খালি ছিল কিন্তু অপরটিতে মোট ৬টি কনটেইনার পাওয়া যায়। যার প্রত্যেক কনটেইনারে এক কেজি পরিমাণে কোবরা সাপের বিষ আছে। এর বাজার মূল্য কেজি প্রতি আনুমানিক দেড় কোটি টাকা করে। মোট নয় কোটি টাকার বিষ জব্দ করা হয়। বিষগুলো আমাদের ল্যাবে পাঠানো হবে তারপরে বোঝা যাবে এটা আসলে কোন লেভেলের বিষ।
সাংবাদিকদের অপর এক প্রশ্নের জবাবে রেজাউল হায়দার বলেন, যথাসম্ভব এ অবৈধ সাপের বিষ পাচারের জন্য বাংলাদেশকে রুট হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছিল। পুরো তদন্ত শেষ হলে এটা স্পষ্ট হবে কে বা কারা কোন জায়গা থেকে আমদানির পর এটা পাচার করছিল। ইতোমধ্যে কয়েকটি চালান বাংলাদেশ থেকে পাচার হওয়ার তথ্য পেয়েছে সিআইডি।
সিআইডি’র এ কর্মকর্তা আরও জানান, গত ১৭ সেপ্টেম্বর এই চক্রের একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এই চক্রের সঙ্গে আরও সাত-আটজনের সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গেছে। যেহেতু সাপের বিষ লেনদেন ক্রয়-বিক্রয় এবং পাচার আইনত অপরাধ, তাই তাদের বিরুদ্ধে বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা হবে বলে জানান তিনি।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

nine − eight =