ঈশা খাঁর সমাধি স্তম্ভ উদ্বোধন

0
55
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক : গাজীপুরের কালীগঞ্জের বক্তারপুর গ্রামে বাংলার বারো ভূঁইয়ার অন্যতম ঈশা খাঁর সমাধি স্তম্ভ উদ্বোধন হয়েছে। বুধবার (১ ডিসেম্বর) দুপুরে উদ্বোধন করেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির মহিলা বিষয়ক সম্পাদক মেহের আফরোজ চুমকি এমপি।সমাধি স্তম্ভ সাড়ে ১৭ ফুট উচ্চতার এবং ২০ ফুট প্রস্থের লাল সিরামিক ইট দিয়ে প্রাচীন নির্মাণ করা হয়েছে।
গাজীপুর জেলা প্রশাসক (ডিসি) এস.এম তরিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. শিবলী সাদিক।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে মেহের আফরোজ চুমকি বলেন, মানুষের সবচেয়ে বড় স্বভাব হল ইতিহাস থেকে শিক্ষা নেয় না। বারো ভূঁইয়াদের অন্যতম এ মহাবীর ইতিহাস রচনা করে আমাদের কালীগঞ্জে এসে সমাহিত হয়েছেন। তার বৈচিত্র্যময় জীবন সাধারণ মানুষের সামনে তুলে ধরার পাশাপাশি ইতিহাস সংরক্ষণে সমাধি স্তম্ভটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।
পর্যায়ক্রমে এর আশপাশের কিছু জমি সরকার অধিগ্রহণ করে সেখানে একটি উন্নতমানের পর্যটনকেন্দ্র গড়ে তোলা হবে। আমি বিশ্বাস করি এ সমাধি স্তম্ভের মাধ্যমে আমাদের কালীগঞ্জকে দেশে ও বিদেশে পরিচিত করবে।
এ সময় উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. মোয়াজ্জেম হোসেন পলাশ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এইচ. এম আবুবকর চৌধুরী, বক্তারপুর ইউপি চেয়ারম্যান আতিকুর রহমান ফারুক, উপজেলা পরিষদের কর্মকর্তাবৃন্দ এবং উপজেলা আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।
বক্তারপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আতিকুর রহমান বলেন, ৩০-৩৫ বছর আগে প্রত্নতত্ত বিভাগ বক্তারপুর পুরোন দীঘির পশ্চিমে পারে থাকা কবরটি ঈশা খাঁর সমাধি বলে চিহ্নিত করেন। পরে লোকজন বাঁশের বেড়া দিয়ে কবরটি সংরক্ষণের চেষ্টা করে। এরপর ২০০৪ সালে প্রথম উপজেলা প্রশাসন ইটের দেয়াল তুলে কবরটি ঘিরে দেয়। পরবর্তীতে ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে কবরটির চারদিকে ইটের দেয়াল এবং উপরে লোহার বেড়া বেষ্টিত করে সংরক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়েছে।
স্থানীয় বাসিন্দা আশরাফুল আলম বলেন, এখানে মাটি খুঁড়লে প্রাচীন ইট বের হয়। ঈশা খাঁর কবরের স্থানটি একটু উঁচু ঢিবির মতো ছিল। পূর্বপুরুষরা বলে গেছে এটি কবরস্থান। প্রত্নতত্ত বিভাগ স্থানটি খননও করেছিল। প্রাচীন ইট ও কবর আকৃতির সমাধি আবিষ্কৃত হয়। পরে তারা জানা যায় এটি ঈশা খাঁর কবর।
বিভিন্ন তথ্যমতে জানা গেছে, ঈশা খাঁ ১৫২৯ খ্রিস্টাব্দে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে জন্মগ্রহণ করেন। বাংলার বারো ভূঁইয়াদের অন্যতম ছিলেন ঈশা খাঁ। ন্যায়পরায়ণ শাসক ও বীরত্বের প্রতীক হয়ে তিনি ঠাঁই নিয়েছেন ইতিহাসের পাতায়। মুসলিম এই শাসকের রাজধানী ছিল নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ। মুঘল শাসকদের সঙ্গে তার একাধিক যুদ্ধ হয়েছিল। যুদ্ধের প্রস্তুতি ও প্রতিরোধের জন্য এগারসিন্ধু ও বক্তারপুরে দুর্গ স্থাপন করেছিলেন।
জীবনের শেষদিকে সোনারগাঁয়ে ফেরার পথে অসুস্থ হয়ে পড়লে তিনি অবস্থান নেন গাজীপুরের কালীগঞ্জ উপজেলার বক্তারপুর দুর্গে। সেখানে একজন প্রখ্যাত হেকিমের চিকিৎসা গ্রহণকালে ৭০ বছর বয়সে ১৫৯৯ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর মৃত্যু হয় তার। শেষ ইচ্ছা অনুযায়ী তাকে সমাহিত করা হয় বক্তারপুর দুর্গের দীঘির পশ্চিমপাড়ে। কালের পরিক্রমায় অযত্ন-অবহেলায় এক সময় হারিয়ে যায় সমাধিচিহ্ন।
তার বীরত্ব, শাসন, মহানুভবতা, ন্যায়পরায়ণতা ও ধর্মপরায়ণতা নিয়ে নানা জল্পনা ও কল্পকাহিনী থাকলেও ইতিহাসের কোথাও তার সমাধিস্থলের কথা উল্লেখ নেই। প্রত্নতত্ত বিভাগ দীর্ঘদিন অনুসন্ধান করে বক্তারপুরের ধ্বংস হয়ে যাওয়া দুর্গে একটি প্রাচীন সমাধির সন্ধান পায়। নানা তথ্য-উপাত্ত ও ইতিহাস বিশ্লেষণ শেষে প্রত্নতত্ত বিভাগ নিশ্চিত হয় যে সমাধিটি ঈশা খাঁর।
বাংলার বারো ভূঁইয়াদের অন্যতম ঈশা খাঁর অরক্ষিত সমাধি স্থানটি (কবর) যথাযথভাবে সংরক্ষণ করতে ১০ লাখ টাকা ব্যয়ে সমাধিস্থ নির্মাণ হয়েছে। সমাধি স্থানটি সাড়ে ১৭ ফুট উচ্চতার এবং ২০ ফুট প্রস্থের প্রাচীন নির্মাণ কৌশলসমৃদ্ধ একটি আধুনিক স্থাপত্যশৈলীর লাল সিরামিক ইটের সমাধিস্থ নির্মাণ করা হয়। এতে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কাছে ঈশা খাঁর বীরত্বের ইতিহাস এবং বাংলায় তার অবদান তুলে ধরা হবে।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. শিবলী সাদিক বলেন, দীর্ঘদিন যাবত তার কবরটি অযত্নে-অবহেলায় ছিল। ঈশা খাঁর অরক্ষিত সমাধিস্থল (কবর) যথাযথভাবে সংরক্ষণ করে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কাছে তুলে ধরার জন্য এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

1 × 2 =