উপজেলা নির্বাচনের সিদ্ধান্ত নরসিংদীতে আ.লীগের সম্ভাব্য প্রার্থীদের দৌড়ঝাঁপ

0
463
728×90 Banner

নরসিংদী : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন রেশ কাটতে না কাটতে উপজেলা নির্বাচনের সিদ্ধান্ত নেন নির্বাচন কমিশন। উপজেলা নির্বাচন নিয়ে আওয়ামী লীগে নানা প্রস্তুতি শুরু হয়েছে। বিশেষ করে এই নির্বাচন নিয়ে তৃণমূল পর্যায়ের রাজনীতিতে বড় ধরণের পরিবর্তন আসার সম্ভাবনা রয়েছে। ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ গত ২ জানুয়ারী নির্বাচন কমিশন ভবনে সাংবাদিকদের উপজেলা নির্বাচন করার সিদান্তের কথা সাংবাদিকদের জানান এবং বিষয়টি বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় ছাপা হলে নরসিংদীর ৬টি উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ দলীয় সম্ভাব্য প্রার্থীরা নড়েচড়ে বসেন। শুরু করেন দৌড়ঝাঁপ।
আওয়ামী লীগ দলীয় নেতাকর্মীরা জানান, যারা উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী হতে ইচ্ছুক তারা অনেকটা আগে থেকেই মানসিকভাবে প্রস্তুুত ছিলেন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে শেষ হওয়ার পর সারাদেশের মতো নরসিংদী জেলাতেও এখন উপজেলা নির্বাচনের বাতাস বইতে শুরু করেছে। বিশেষ করে নির্বাচন কমিশনের নির্বাচনি আভাস ঘোষণার পর দলীয় লবিং শুরু করেছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা।
নরসিংদীর ৬টি উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী হতে প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছেন আওয়ামী লীগ দলীয় সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থীরা। এরই মধ্যে প্রতিটি উপজেলায় বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যানসহ আওয়ামী লীগ দলীয় একাধিক মনোনয়ন প্রত্যাশীর নাম শোনা যাচ্ছে। কর্মী সমর্থকরা নিজ নিজ পছন্দের নেতাকে উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে দেখতে চান বলে দাবি উত্থাপন করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচারণা ও আলোচনা শুরু করেছেন। সম্ভাব্য প্রার্থীরাও লবিং করতে দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন দলের জেলা, উপজেলা এমনকি কেন্দ্রেও। তবে এখনও পর্যন্ত উপজেলা পরিষদ নির্বাচন নিয়ে দলের কেন্দ্রীয় কোনও নির্দেশনা নেই বলে জানিয়েছে জেলা আওয়ামী লীগ।
এখন পর্যন্ত জেলার ৬ উপজেলায় উপজেলা চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হতে ইচ্ছুক যাদের নাম আলোচনায় এসেছে তাদের মধ্যে রয়েছেন, নরসিংদী সদর উপজেলায় এ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও চিনিশপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আফতাব উদ্দিন ভূঁইয়া, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সফর আলী ভূঁইয়া, স্বেচ্চাসেবক লীগের কেন্দ্রিয় কমিটি সাহিত্য বিষয়ক সম্পাদক অধ্যাপক মোতাহের হোসেন রিজভী, জেলা অ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ওয়ালিউর রহমান আজিম, জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুর রহমান শামীম নেওয়াজ, জেলা অ’লীগের অপর সাংগঠনিক সম্পাদক আনোয়ার হোসেন (আনোয়ার কমিশনার) মাধবদী শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি সালাহ উদ্দিন আহমেদ ও সুইডেন প্রবাসী আওয়ামীলীগ নেতা আতাউর রহমান।
পলাশ উপজেলায় বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগের সভাপতি সৈয়দ জাবেদ হোসেন, পলাশ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল আলী ভূঁইয়া ছাড়া এখনও পর্যন্ত অন্য কারও নাম শোনা যায়নি।
শিবপুর উপজেলায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হারুন অর রশিদ খাঁন, সাধারণ সম্পাদক সামসুল আলম ভূঁইয়া রাখিল, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ফরহাদ আলম ভূঁইয়া, কেন্দ্রীয় কৃষক লীগের সহ-সভাপতি নূর উদ্দিন মোল্লার নাম শোনা যাচ্ছে।
মনোহরদী উপজেলায় বর্তমান চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম খান বীরু, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট ফজলুল হক, সহ-সভাপতি হাবিবুর রহমান রংগু, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক প্রিয়াশিষ রায়, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আপেল, মোল্লা জহিরুল ইসলাম মুকুল, লায়ন জাহাঙ্গীর আলম, সামসুন্নাহার এমিলি রয়েছেন আলোচনায়।
বেলাব উপজেলায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান সমসের জামান ভূঁইয়া রিটন ও যুগ্ম সম্পাদক শরীফ উদ্দিন খান মোমেনের নাম শোনা যাচ্ছে।
রায়পুরায় আলোচনায় আছেন বর্তমান চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান চৌধুরী, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক ও স্থানীয় সাংসদ রাজি উদ্দিন আহম্মেদ রাজুর পুত্র রাজিব আহম্মেদ পার্থ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আফজাল হোসাইন, সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সাদেক, শ্রীনগর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান রিয়াজ মোর্শেদ খান রাসেল, রায়পুরা পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি মাহবুব আলম শাহিন, অবিভক্ত ঢাকা মহানগর তাঁতী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও ঢাকাস্থ নরসিংদী জেলা ফোরামের সভাপতি কামাল হোসেন মাহমুদ, আলহজ্ব হাসান জামিল বাদল ও মির্জানগর ইউপি চেয়ারম্যান হুমায়ূন কবির সরকার।
নরসিংদী সদর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী আফতাব উদ্দিন ভূঁইয়া বলেন, ‘যেহেতু এবারের উপজেলা নির্বাচন দলীয় প্রতীকে হবে, সেহেতু মনোনয়ন পাওয়ার ওপরই নির্ভর করছে নির্বাচন করা না করা। দল যদি তৃণমূলের মতামতকে প্রাধান্য দিয়ে মনোনয়ন দেয় তাহলে মনোনয়ন পাওয়ার ব্যাপারে আমি শতভাগ আশাবাদী।’
সদর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী আরেক নেতা স্বেচ্চাসেবক লীগের কেন্দ্রিয় কমিটি সাহিত্য বিষয়ক সম্পাদক অধ্যাপক মোতাহের হোসেন রিজভী বলেন, ছাত্র জীবন থেকে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে সম্পৃক্ত থেকে আন্দোলন সংগ্রামে অংশ নিয়েছি। দল আমার বিগত কর্মকান্ড মূল্যায়ন করে মনোনয়ন দিলে আমি নির্বাচনে অংশ।’
শিবপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সামসুল আলম ভূঁইয়া রাখিল বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে দলের নীতি আদর্শ মেনে দলের জন্য কাজ করছি। আসন্ন উপজেলা নির্বাচনে আমি একজন প্রার্থী। সেজন্য অনেক আগে থেকেই কাজ করে যাচ্ছি। তৃণমূলের নেতাকর্মীরাও চাইছেন যেন আমি নির্বাচন করি।’
মনোহরদী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক প্রিয়াশিষ রায় বলেন, ’মনোহরদীতে দলকে শক্তিশালী করতে তৃণমূলে নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে কাজ করে যাচ্ছি। আমি কোন দিন আমার নীতি ও আদর্শের বাহিরে যাইনি। দল যদি আমাকে উপযুক্ত মনে করে মনোনয়ন দেয় তবে নির্বাচনে অংশ নিব।’
বেলাব উপজেলার শরীফ উদ্দিন খান মোমেন বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে দলের একজন কর্মী হিসেবে কাজ করে যাচ্ছি। আশা করি সবদিক বিবেচনা করে দল আমাকেই মনোনয়ন দেবে।’
এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মতিন ভূঁইয়া বলেন, ‘সংসদ নির্বাচন শেষ হওয়ার পরপর অনেকেই ফেসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থী হতে চান এমন প্রচার প্রচারণা চালাচ্ছি। তবে এখন পর্যন্ত উপজেলা নির্বাচন নিয়ে কেন্দ্রীয় কোনও নির্দেশনা জেলা আওয়ামী লীগ পায়নি। সম্ভাব্য প্রার্থীদের কেউ তাদের আগ্রহও আমাদের কাছে প্রকাশ করেননি।
উল্লেখ্য, আগামী মার্চের প্রথম সপ্তাহ থেকে ৩/৪টি ধাপে দেশে পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ করতে চায় নির্বাচন কমিশন (ইসি)। নির্বাচন ভবনে ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান। তবে গতবার নির্দলীয় ভোট হলেও এবার দলীয় প্রতীকে উপজেলা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here