গাজীপুরে প্রবাসীর বাড়ি দখলের চেষ্টা :বাড়ির মালিককে প্রাণনাশের হুমকি

0
101
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক : গাজীপুরের কাশিমপুর সারদাগঞ্জ মহল্লায় এক প্রবাসীর বাড়িতে ভাড়াটিয়া আব্দুর রহমান জোরপূর্বক বাড়ির মালিকের স্ত্রী ও শ্যালককে মারধর করে বাড়ি দখল করার অপচেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গিয়াছে। ভুক্তভোগী মো: তায়জুল ইসলাম কাজলের স্ত্রী লাবনী ইসলাম জানান, কাশিমপুর থানাধীন কাজীপাড়া ৪নং ওয়ার্ড এলাকায় বিগত ২০০৬ সালে ৬শতাংশ জমি ক্রয় করিয়া সেখানে টিনসেট বাড়ি নির্মাণ করিয়া বসবাস করে আসছি।
বিগত ২০১৭ সালে বাড়িটি পুন:নির্মাণ ৫তলা ভবনের ফাউন্ডেশন নিয়ে দুই তলা বাড়ি নির্মাণ করি। নিচতলায় একটি রুমে আব্দুর রহমানের কাছে বিগত পহেলা মে ২০১৮ইং তারিখে দোকান ভাড়া দেই। কয়েক মাস নিয়মিত ভাড়া পরিশোধ করে। এক পর্যায় গত ৭/৮ মাস পূর্বে ভাড়ার টাকা নিয়ে নানাপ্রকার তালবাহানা করিতে থাকে এবং আমি দোকান ছেড়ে দেয়ার জন্য লিখিত নোটিশ প্রদান করি। এই নিয়ে বিভিন্ন কথার কাটাকাটির এক পর্যায় মেট্রোপলিটন কাশিমপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করি। ঘটনার বিষয় তৎকালীন ওসি আকবর এর মধ্যস্ততায় ভাড়াটিয়াকে ৩ মাসের সময় স্বাপেক্ষে গত পহেলা অক্টোবর ২০২০ইং তারিখে দোকানটি ছেড়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। ধার্য্যকৃত সময় অতিবাহিত হওয়ার পর ভাড়াটিয়া আব্দুর রহমান দোকান ঘরটি ও ভাড়ার টাকা বুঝাইয়া না দিয়া পাওনাকৃত ভাড়ার টাকা ও বিদ্যুৎ বিল চাইতে গেলে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে এবং মারতে আসে। এই ঘটনার আমি বাদী হইয়া গত ২৩ অক্টোবর ২০২০ইং তারিখে থানায় একটি জিডি করি যাহার নং-৯৩। ভাড়াটিয়া আব্দুর রহমান গত ৫ অক্টোবর আমার কাছে একটি মামলার নোটিশ পাঠায় বাড়ি ও জায়গার মালিক দাবী করিয়া। এ ঘটনায় একাধিকবার থানায়ও সহকারী পুলিশ কমিশনার বরাবর লিখিত একটি অভিযোগ দেয়া হয়। আমি নানাবিদ ভয়ভীতি থাকার কারণে আব্দুর রহমানের লোকজনের দ্বারা যে কোন ধরনের হামলা হইতে পারে আশঙ্কায় বাড়িতে নিরাপত্তার স্বার্থে বিগত ১২ অক্টোবর সিসি ক্যামেরা স্থাপন করি। কিন্তু ওই সময় আব্দুর রহমান ও তার লোকজন সিসি ক্যামেরা স্থাপনে জোরপূর্বক বাধা প্রদান করে এবং খুন জখমের ভয়ভীতি প্রদান করে। গত ২১ শে নভেম্বর-২০২০ইং তারিখে আব্দুর রহমান তার নিজের নামে বিদ্যুৎ এর মিটার দোকানে স্থাপন করতে যায়। আমার বাড়িতে কেন সে মিটার লাগাইবে এই কথা জিজ্ঞাসা করতে আব্দুর রহমান ও তার সাঙ্গপাঙ্গরা আমাকে ও আমার ছোট ভাইকে বেধরক মারধর করিয়া গুরুতর আহত করে। পরবর্তীতে স্থানীয় লোকজনের সহযোগিতায় গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা গ্রহণ করি। চিকিৎসা শেষে কিছুটা সুস্থ হইয়া কাশিমপুর থানায় মারামারির ঘটনায় বিগত ২২ নভেম্বর ২০২০ইং তারিখে ৪জনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করি। মামলার আসামীরা স্থানীয় প্রভাবশালী হওয়ার কারণে প্রশাসনের সখ্যতায় গ্রেফতার এড়িয়ে আদালতে যথারীতি আত্মসমর্পন করে। পরে বিগত ৩ ডিসেম্বর ২০২০ইং তারিখে অস্থায়ী জামিনে এসে বেপরোয়া হয়ে উঠে। ওই দিনই আনুমানিক ৬ ঘটিকার সময় বাড়ির সামনে লোকজন নিয়ে এসে মামলা কেন করছিল এর খেশারত দিতে হবে এই মর্মে জীবনে মেরে ফেলার হুমকিসহ বাসার ভিতর ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। এতে করে আমি অসহায় অবস্থায় বাচ্চাদের নিয়ে চরম নিরাপত্তাহীনতায় আছি। এমনকি বাসার ভাড়াটিয়াদেরকে ভয়ভীতি প্রদান করে বাসা ছেড়ে দেয়ার জন্য। ভাড়াটিয়ারা রীতিমতো আতঙ্কে আছে। কিছু ভাড়াটিয়া ভয়ে বাসা ছেড়ে দিবে বলে জানান। বর্তমানে আমি ছেলে মেয়েদের নিয়ে চরম নিরাপত্তাহীনতায় আছি। এ ঘটনায় আমি বাদী হয়ে আব্দুর রহমান, সালমা রহমান, নবির হোসেন পলাশ, মো: ছাব্বির আহম্মেদসহ অজ্ঞাতনামা ৪/৫জনকে আসামী করে কাশিমপুর থানায় গত ৫ ডিসেম্বর একটি সাধারণ ডায়েরী করি, যাহার নং-১৬০। আমার স্বামী দীর্ঘদিন যাবত প্রবাসে জীবন যাপন করছে। আমরা স্বপরিবারে চাঁদপুর জেলার হাইমচর থেকে এসে এই এলাকায় জমি ক্রয় করে বসবাস করছি। এখানে আমাদের তেমন কোন পরিচিত আত্মীয়স্বজন নেই। বিগত দিনে অভিযুক্ত আব্দুর রহমান গংদের পার্শ্ববর্তী হওয়ার কারণে বিভিন্ন সময় নগদ টাকা ও খাদ্য বস্ত্র দিয়ে সহযোগিতা করেছি। কিন্তু এরা যে এতো বড় অসাধু পরধনলোভী এতটা হিংস্র বুঝতাম না। কৌশলে আমার কাছ থেকে দোকান ভাড়া নিয়ে আজ এই রকম মিথ্যা হয়রানি তালবাহানা করিতেছে। এমনকি বিভিন্ন লোক মারফত প্রস্তাব করিতেছে যে, জামেলা বাড়াইয়া কি লাভ। টাকা পয়সা তো বিভিন্ন জায়গায় খরচ করবেন। তারচেয়ে ভালো হয় তাদেরকে টাকা পয়সা দিয়ে ঝামেলা মিটাইয়া ফেলেন। আমি এমতাবস্থায় কি করবো ভেবে পারছি না। একদিকে জীবনের নিরাপত্তা, অন্যদিকে মামলা, হামলা, সন্ত্রাসীদের হুমকি। তাহলে কি জমি ক্রয় করে বাড়ি করাটা মনে হয় বড় অপরাধ করে ফেলেছি। নতুবা কেন এমনটা হবে। আমার স্বামী এ দেশের একজন রেমিটেন্স যোদ্ধা। আমি আজ বড় অসহায়। আমি ন্যায় বিচারের স্বার্থে রাষ্ট্রের সকল উর্দ্ধতন প্রশাসনিক আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতি উর্দ্ধাত আহŸান ও সুদৃষ্টি কামনা করছি। স্থানীয় সাংবাদিকদের এমনটাই জানালেন ভুক্তভোগী কাজল পেদার এর স্ত্রী লাভনী আক্তার। এই ঘটনায় আমি আমার ছেলে মেয়েদেরকে নিয়ে জীবনের নিরাপত্তাহীনতায় ভোগতেছি।
এ বিষয়ে কোনাবাড়ী কাশিমপুর জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার থুয়াই অংপ্রু মারর্মা বলেন, বিষয়টি আমি অবগত আছি। আইনগতভাবে সঠিক সহযোগিতা প্রদান করা হবে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

fifteen − fourteen =