দেশেই করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন উৎপাদনের কাজ শুরু হয়েছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক, এমপি

0
96
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক : স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী জনাব জাহিদ মালেক, এমপি জানিয়েছেন, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুসারে বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন উৎপাদনের প্রাথমিক কার্যক্রম শুরু হয়েছে। দেশেই একদিন সফলভাবে করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন উৎপাদন সম্ভব হবে বলে মাননীয় মন্ত্রী আশাবাদ ব্যক্ত করেন। মাননীয় মন্ত্রী বলেন, স্বাসন্থ্যখাতকে অবহেলা করা ঠিক না। স্বাস্থ্যখাতে অবশ্যই বিনিয়োগ বাড়াতে হবে। স্বাস্থ্যখাত ঠিক না থাকলে অর্থনীতি ভীষণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। করোনাভাইরাসের কারণে বিশ্বে ১২ ট্রিলিয়ন ডলার, বাংলাদেশে কমপক্ষে ১২ বিলিয়ন ডলার লস হয়েছে। মাননীয় মন্ত্রী করোনাভাইরাস মোকাবিলায় সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপ ও চ্যালেঞ্জসমূহ তুলে ধরে বলেন, শুরুতে করোনাভাইরাসের চিকিৎসা সম্পর্কেই জানা ছিল না। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দ্রুততার সাথে যথাযথ নির্দেশনার কারণেই করোনাভাইরাস মোকাবিলায় বাংলাদেশ সফল হয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সহায়তায় করোনাভাইরাস মোকাবিলার জন্য মাত্র ১৫ দিনের কর্মযজ্ঞের মাধ্যমে কয়েক হাজার চিকিৎসক-নার্স নিয়োগ দেয়া সম্ভব হয়েছিল। আজ সোমবার ৮ মার্চ ২০২১ইং তারিখ বিকাল ৩টায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ)’র শহীদ ডা. মিলন হলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সহায়তায় ও বাংলাদেশ হেলথ রিপোর্টার্স ফোরামের আয়োজনে অনুষ্ঠিত ‘করোনার এক বছরে বাংলাদেশ: সাফল্য ও চ্যালেঞ্জ’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মাননীয় মন্ত্রী এসব কথা বলেন।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়–য়া বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুযোগ্য নেতৃত্ব ও নির্দেশনা অনুসারে মাননীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী জনাব জাহিদ মালেক, এমপির দ্রুততার সাথে সেই কার্যক্রমক বাস্তবায়ন করায় বাংলাদেশ করোনাভাইরাস মোকাবিলায় সফল হয়েছে। তবে নটোরিয়াস ভাইরাস করোনাকে মোকাবিলায় গবেষণা বড়াতে হবে। প্রয়োজনীয় সহায়তা পেলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়েও করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন নিয়ে কার্যক্রম শুরু করা হবে। মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়–য়া তাঁর বক্তব্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে করোনাকালীন বিভিন্ন বিশেষসেবাসমূহের কথা তুলে ধরেন। মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়–য়া জানান, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে রোগীদের সুবিধার্থে মার্চ ২০২০ইং সালে মেডিসিন, সার্জারি, বক্ষব্যধিসহ বিভিন্ন বিভাগে হেল্প লাইন চালু করা হয়েছে। ২১ মার্চ ২০২০ইং তারিখে জ্বর সর্দি হাঁচি কাশির রোগীর জন্য বেতার ভবনে পৃথক স্বাস্থ্যসেবার ব্যবস্থা হিসেবে ফিভার ক্লিনিক চালু করা হয়। গতকাল ৭ই মার্চ ২০২১ইং তারিখ পর্যন্ত ফিভার ক্লিনিকে ৮০ হাজার ৭৪৩ জন রোগী সেবা নিয়েছেন। করোনা ভাইরাস পরীক্ষার ল্যাবরেটরি চালু করা হয় ১ এপ্রিল ২০২০ইং তারিখে। গতকাল ৭ই মার্চ ২০২১ইং তারিখ পর্যন্ত ১ লক্ষ ১৩ হাজার ৮৭৭ জন রোগীর টেস্ট করা হয়েছে। গত ৫ এপ্রিল ২০২০ইং তারিখে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে করোনা ও অন্যান্য সকল রোগে আক্রান্ত রোগীদের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করতে বিশেষজ্ঞ পরামর্শ সেবা কেন্দ্র “বিশেষজ্ঞ হেলথ লাইন” চালু করা হয় । গত ৪ জুলাই ২০২০ইং তারিখ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের কেবিন ব্লকে ৩৭০ শয্যার করোনা সেন্টারে চালু করা হয়। কেবিন ব্লকে শয্যা সংখ্যা ২৫০টি। আজ ৮ মার্চ ২০২১ইং পর্যন্ত ৬ হাজার ৩ শত ২৭ জন করোনা রোগী সেবা নিয়েছেন। ভর্তি হয়েছেন ৩ হাজার ৮ শত ৫৭ জন। ডিসচার্জড হয়েছেন ৩ হাজার ২শত ৩৮ জন। গত ২৯ আগস্ট ২০২০ইং সালে বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো পোস্ট কোভিড ফলোআপ ক্লিনিক চালু করা হয় । গত ২৮ জানুয়ারি ২০২১ইং সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের কনভেনশন সেন্টারে অত্র বিশ্ববিদ্যালয়ের কোভিড-১৯ টিকাদান কর্মসূচীর শুভ সূচনা হয়। গতকাল ৭ই মার্চ ২০২১ইং তারিখ পর্যন্ত ভ্যাকসিন নিয়েছেন ৩১ হাজার ৭ শত ২৫ জন। প্রতিদিন দেড় হাজার মানুষ ভ্যাকসিন নিচ্ছেন।
সেমিনারে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ও বিষয়ভিত্তিক আলোচনায় অংশ নেন প্রাক্তন স্বাস্থ্যমন্ত্রী অধ্যাপক ডা. আ ফ ম রুহুল হক, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়–য়া, স্বাচিপ এর সম্মানিত সভাপতি অধ্যাপক ডা. এম ইকবাল আর্সলান, বাংলাদেশ মেডিক্যাল এসোসিয়েশনের সম্মানিত মহাসচিব ডা. ইহতেশামুল হক চৌধুরী, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মোঃ নজরুল ইসলাম, করোনাভাইরাস মোকাবিলা সংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি উপদেষ্টা কমিটির সভাপতি অধ্যাপক মোহাম্মদ সহিদুল্লা, বাংলাদেশ মেডিক্যাল এ্যাসোসিয়েশনের সাবেক মহাসচিব ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মোঃ শারফুদ্দিন আহমেদ, পরিচালক (হাসপাতাল) ব্রিগেডিয়ার জুলফিকার আহমেদ আমিন প্রমুখ। সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক ও মিডিয়া সেলের প্রধান অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা। সেমিনারে অত্র বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মোঃ শহীদুল্লাহ সিকদার, সম্মানিত ডীন অধ্যাপক ডা. খন্দকার মানজারে শামীম, রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ডা. এবিএম আব্দুল হান্নান প্রমুখসহ গণমাধ্যমের সাংবাদিক ও কর্মীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ হেলথ রিপোর্টার্স ফোরামের সহ-সভাপতি সাংবাদিক জান্নাতুল বাকিয়া কেকা। সঞ্চালনা করেন বাংলাদেশ হেলথ রিপোর্টার্স ফোরামের সভাপতি সাংবাদিক জনাব তৌফিক মারুফ।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

twelve + nine =