নির্বাচন হলো না গণস্বাস্থ্য ক্রেডিট কো-অপারেটিভের

0
87
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক : ঘোষিত তারিখে নির্বাচন হলো না গণস্বাস্থ্য ক্রেডিট কো-অপারেটিভ সোসাইটির, অনেকেই প্রতিষ্ঠানটিতে দুর্নীতি ও অনিয়মের গন্ধ খুঁজছেন। দু’টি জাতীয় পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিয়ে আজ শনিবার সকাল ১০টা থেকে বেলা ২টা পর্যন্ত নির্বাচন অনুষ্ঠানের ঘোষণা দেয়া হয়। পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিয়ে নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করা হলেও সব ভোটারের কাছে এ-সংক্রান্ত কোনো চিঠি গণস্বাস্থ্য ক্রেডিট কো-অপারেটিভ কর্তৃপক্ষ পাঠায়নি বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। তা সত্ত্বেও কোনো কোনো ভোটার পত্রিকার বিজ্ঞাপন দেখেই যথাসময়ে চলে আসেন গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতালের মেজর হায়দার মিলনায়তনে। কিন্তু সেখানে গিয়ে ভোটাররা ভোট গ্রহণের কোনো ব্যবস্থাই পাননি বলে অভিযোগ করেছেন। ভোট গ্রহণের বদলে গণস্বাস্থ্যের বর্তমান চেয়ারপারসন অধ্যাপক আলতাফুন্নেসাকে গণস্বাস্থ্যের স্টাফদের নিয়ে অগ্নিনির্বাপণ বিষয়ক আলোচনা করছিলেন বলে অভিযোগ রয়েছে।
গণস্বাস্থ্যের কয়েকজন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এমন কয়েকজন জানিয়েছেন, পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিয়েও যথাসময়ে গণস্বাস্থ্য ক্রেডিট কো-অপারেটিভ সোসাইটির নির্বাচন করতে গড়িমসির পেছনে কিছু দায়িত্বশীলের অসৎ উদ্দেশ্য থাকতে পারে। গণস্বাস্থ্যের প্রতিষ্ঠাতা ট্রাস্টি ডা: জাফরুল্লাহ চৌধুরী নেই এই সুযোগ নিয়ে কয়েকজন এই প্রতিষ্ঠানটিকে গলাধঃকরণের চক্রান্ত করছে বলে মনে হচ্ছে।


এ ব্যাপারে গণস্বাস্থ্যের অন্যতম জীবিত ট্রাস্টি ডা: নাজিম উদ্দিন আহমেদ বলেন, ডা: জাফরুল্লাহ ভাইয়ের মৃত্যুতে এই মহৎ প্রতিষ্ঠানটিকে ধ্বংস করার চক্রান্ত করছে কয়েকজন। তিনি বলেন, পত্রিকায় বিজ্ঞাপন অনুযায়ী আজ (শনিবার) ভোট হওয়ার কথা ছিল গণস্বাস্থ্যের সাভার কেন্দ্রে। আমরা সেখানে গিয়ে কাউকে পাইনি। ইতোমধ্যে জানতে পারি অন্য একটি পত্রিকায় নোটিশ দিয়ে নির্বাচনের ভেনু ঢাকার গণস্বাস্থ্য হাসপাতালের মেজর হায়দার মিলনায়তনে নির্ধারণ করা হয়েছে। কিন্তু সেখানে গিয়েও নির্বাচনের কোনো ব্যবস্থা দেখতে পাইনি। ডা: মো: নাজিম উদ্দিন বলেন, আমি গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের বর্তমান চেয়ারপারসন অধ্যাপক আলতাফুন্নেসাকে আজকের গণস্বাস্থ্য ক্রেডিট কো-অপারেটিভে সোসাইটি লিমিটেডের সাধারণ সভা ও নির্বাচন নিয়ে প্রশ্ন করলে উত্তরে তিনি ‘সোসাইটির সাধারণ সভা ও নির্বাচন সম্পর্কে কিছু জানেন না’ বলে জানান।
তার উত্তরে ডা. নাজিম উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রে আপনার চেয়ারপার্সন থাকার কোন যোগ্যতা নেই। সব জায়গায় অনিয়ম করে রেখেছেন। আমরা ডা. জাফরুল্লাহ ভাই সহ স্বাধীনতার আগে এবং পরে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র তৈরি করেছি সাধারণ মানুষের সেবা দেয়ার জন্য অনিয়ম আর দুর্নীতি দেখার জন্য নয়। এখন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের সকল শাখায় দুর্নীতির আখড়ায় পরিনত হয়েছে‘। তিনি আরো বলেন, ‘আজ গণস্বাস্থ্য কো-অপারেটিভ সোসাইটির নির্বাচন সারাদেশে ১০ হাজার এর উপরে ভোটার। টংগী গণস্বাস্থ্য ক্রেডিট কো-অপারেটিভে সোসাইটি লিমিটেড এর প্রধান শাখা সাতশত জনের উপর ভোটার একটা চিঠি পত্র সেখানে যায় নাই কেন? সাভার, গাইবান্ধা, বরগুনাসহ সারা দেশে ৯০% ভোটার চিঠি পায় নাই। এখন ১১ টা সংস্থার কেউ উপস্থিত নাই। এটা কোন নাটক। এরপর তিনি নয় তলা এমডির কক্ষে গিয়ে বসেন।সেখানে দেখেন কোন কর্মকর্তা উপস্থিত নাই। কিছুক্ষণ পরে নির্বাচন কমিটির সদস্য সমবায় অধিদপ্তর এর পরিদর্শক মোশাররফ হোসেন ( তায়েফ) এসে ডা: নাজিম উদ্দিনকে দেখে তড়িগড়ি করে চোরেরমত পালিয়ে যান।
উল্লেখ্য গত ৪ অক্টোবর সমবায় অধিদপ্তর আগারগাঁও এ অতিরিক্ত নিবন্ধক (অডিট ও আইন ) বরাবরে গণস্বাস্থ্য ক্রেডিট কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেড (রেজি: ৩২ ঢাকা) এর আগামী-০৭/১০/২০২৩ ইং তারিখে ৩১তম বার্ষিক সাধারন সভা ও ব্যবস্থাপনা কমিটির নির্বাচন স্থগিত বা বাতিল ঘোষনা করার আদেশ দানের জন্য আবেদন করেন টঙ্গীর শেয়ার হোল্ডার মোঃ রহমত উল্লাহ সুমন। টঙ্গি গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন এলাকায় বসবাসরত সাত শতাধিক বৈধ সদস্য/শেয়ার হোল্ডার এর পক্ষে একতরফা নির্বাচনের বিরুদ্ধে আবেদন। তাদেরকে কোন নোটিশ বা পত্র দেয় নাই।
টঙ্গীর শাখার ব্যবস্থাপক মোঃ ফেরদাউস গণস্বাস্থ্য ক্রেডিট কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেড ৩১তম বার্ষিক সাধারন সভা ও ব্যবস্থাপনা কমিটির নির্বাচন এর কোন চিঠি বা কাগজ পত্র এ শাখায় পায় নাই। অনুরুপ গাইবন্ধা ও বরগুনায় মোঃ আলাউদ্দিন লিখিতভাবে ৩ ভাগের ২ ভাগ চিঠি পায় নাই। তারা দুইজন কর্মকর্তা লিখিতভাবে গণস্বাস্থ্য ক্রেডিট কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেড চেয়ারম্যানের নিকট অভিযোগ করেন।
প্রতিনিধির অনুসন্ধানে জানা যায় ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর মৃত্যুর পর একটি মহল একশত তিহাত্তর কোটি চুয়াত্তর লক্ষ উনিশ হাজার দুইশত টাকার মূলধন ও শতশত কোটি টাকার সম্পদ লুটেপুটে খাওয়ার জন্য গোপনে ভোটার বিহীন নির্বাচনের মাধ্যমে নতুন কমিটি গঠন করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। এ দুর্নীতি ও ষড়যন্ত্রের সাথে চেয়ারপার্সন ‌অধ্যাপক আলতাফুন্নেসা সহ আরো কর্মকর্তারা জড়িত। ব্যাপক তদন্ত করলে থলের বিড়াল বেরিয়ে আসবে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here