শাহজালাল বিমানবন্দরে সোয়া তিন কোটি টাকার মেমোরি কার্ডসহ গ্রেফতারকৃত ৪ জন

0
21
728×90 Banner

মনির হোসেন জীবন : শাহজালালে আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে সোয়া তিন কোটি টাকার মেমোরি কার্ডসহ গ্রেফতারকৃত ৪ জনকে ২ দিনের রিমান্ডে নেয়া হয়েছে।আজ সকালে ডিএমপি’র বিমান বন্দর জোনের অতিরিক্ত উপ- পুলিশ কমিশনার (এডিসি) তাপস কুমার দাস জানান, মেমোরিকার্ড জব্দের ঘটনায় বিমান বন্দর থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। আটক ৪ আসামীকে থানায় হস্থান্তরের পর তাদেরকে বৃহস্পতিবার ৭ দিনের পুলিশ রিমান্ডের আবেদেন জানিয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে। আদালত তাদের ২ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।
গত বুধবার হযরত শাহজালাল আন্তজার্তিক বিমান বন্দরে হংকং থেকে আসা সোয়া তিন কোটি টাকার মেমোরিকার্ডসহ একটি কুরিয়ার সার্ভিসের ৪ জন কর্মচারীকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা কাস্টমস গোয়েন্দা ও তদন্ত সার্কেলের এয়ারফ্রেইট ইউনিট।
এসময় তাদের কাছ থেকে ১ লাখ ৩৪ হাজার ৪০০ পিস বিভিন্ন ধরনের মেমোরিকার্ড জব্দ করা হয়। যার আনুমানিক বাজার মূল্য ৩ কোটি ১৬ লাখ টাকা।
গ্রেফতারকৃতরা হলেন, মো.মামুন হোসেন মোল্লা, মো.তরিকুল ইসলাম, মো. রফিকুল ইসলাম ও মো. কবির মিয়া।
শুক্রবার সকালে ঢাকা কাস্টমস গোয়েন্দা ও তদন্ত সার্কেলের এয়ারফ্রেইট ইউনিটের উপ-পরিচালক সানজিদা খানম এ খবর নিশ্চিত করেছেন।
তিনি জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বুধবার ফ্রেইটই উনিট ও টহল দলের টহল টীম পণ্যাগার (কুরিয়ার খাচা ইএক্স-২) তল্লাশি চালিয়ে মেমোরিকার্ড ৮ জিবি-৪৩ হাজার পিস, ১৬ জিবি-৩৩ হাজার ৫শ’ পিস, ৩২ জিবি-৫২ হাজার ৫শ’ পিস ও ৬৪ জিবি-৫ হাজার ৪শ’ পিস (৬৬ প্যাকেট) মেমোরিকার্ড জব্দ করেন।
সানজিদা খানম আরও জানান, ফেব্রিক্স- মিথ্যা ঘোষনা দিয়ে আমদানিকৃত মালামালগুলো হংকং থেকে দেশে আনা হয়েছিল। পরে ঢাকা কাস্টমস, শুল্ক গোয়েন্দা ও জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থা এনএসআইসহ সকল সংস্থার উপস্থিতিতে এ সব মালামাল জব্দ করে কাস্টম হাউস, ঢাকার কাছে জমা দেয়া হয়।
তিনি জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে কুরিয়ার সার্ভিস প্রতিষ্ঠানের চার কর্মচারি চোরাচালান কাজে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করায় ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইন ও ১৯৬৯ সালের কাস্টম এ্যাক্ট আইনে বিমান বন্দর থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। পরে চার আসামীকে সংশ্লিষ্ট থানায় সোপর্দ করা হয়।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here