সেই ষোল জন হতদরিদ্র শিক্ষার্থীর ফরম ফিলআপ যেন এক অনাবিল সৃষ্টি সুখের উল্লাস

0
44
728×90 Banner

এড. এম এ মজিদ : করোনা ভাইরাসকালে অফুরন্ত অবসর সময়ে অতীতের অনেক স্মৃতিকথাই মনে দোলা দেয়। কোনো কোনো স্মৃতিকথায় মনটা বিষন্নতায় ভরে উঠে, আবার কখনও কোনো স্মৃতিকথায় মনটা মহানন্দে যেন এক অনাবিল সৃষ্টি সুখের উল্লাসকেও হার মানায়।
অতীতের অনেকগুলো স্মৃতিপটের মধ্যে ১৯৯৭ সালে দিনাজপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ১৬ জন এসএসসি পরীক্ষার্থীরা তাদের ফরম ফিলআপ করতে না পারার এক করুন কাহিনি ছিল আমার জীবনের এক অসাধারণ তৃপ্তি, সাফল্য ও সৃষ্টি সুখের উল্লাস।
আমি ১৯৯৬ সালে দিনাজপুর শহরের মধ্যস্হলে অবস্হিত দিনাজপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর স্কুলটির ১৫১টি গুরুতর সমস্যাসহ দায়িত্ব গ্রহণ করেছিলাম। দুই বছরের মধ্যেই স্কুলটির সবগুলো সমস্যার সমাধান করে দুই শিফটের শিক্ষকের সরকারি অনুমোদন গ্রহন করাসহ নতুন ভবন নির্মাণ করে আরো অতিরিক্ত অনেক কিছু করে স্কুলটিকে জিরো থেকে শুধু জেলার মধ্যেই নয়, বরং দেশের মধ্যে হিরো বা সেরা স্কুলে উন্নীত করেছিলাম। বেসরকারি বিদ্যালয় হিসেবে স্কুলটির সুনাম ও খ্যাতি দেশব্যাপী ছড়িয়ে পড়লে এর সত্যতা যাচাইয়ের জন্য তৎকালীন বাংলাদেশের মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক স্কুলটিতে আকস্মিক পরিদর্শনে এসে তিনি এতটাই সন্তুষ্ট ও মুগ্ধ হয়েছিলেন যে, তিনি দিনাজপুর উচ্চ বিদ্যালয়টিকে বাংলাদেশের মধ্যে সেরা বেসরকারি মডেল স্কুল হিসেবে স্বীকৃতি প্রদান করেছিলেন এবং দিনাজপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের রীতি ও নীতিগুলো অনুসরণ করার জন্য তিনি দেশের সকল বেসরকারি বিদ্যালয়গুলোতে সার্কুলারও জারি করেছিলেন। বাংলাদেশের বেসরকারি স্কুলের ১০৫ জন প্রধান শিক্ষককে দিনাজপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে রীতি ও নীতিগুলো প্রত্যক্ষ করার জন্য দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ ও কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছিল। আজ এ বিষয়ে আর কিছু না লিখে ১৯৯৭ সালে এই স্কুলের ১৬ জন এসএসসি পরীক্ষার্থীর ফরম ফিলাআপের কথায় ফিরে আসি।
‌১৯৯৭ সালে দিনাজপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে ডিসেম্বর মাসের ৮ তারিখে এসএসসি পরীক্ষার ফরম ফিলাআপ করার শেষ তারিখ ছিল। আমি স্কুলের প্রধান শিক্ষক এম এ হামিদ স্যারকে বলে দিয়েছিলাম, তিনি যেন এসএসসি পরীক্ষার্থীদেরকে জানিয়ে দেন যে, ফরম ফিলআপের শেষ তারিখ ৬ ডিসেম্বর। তখন আমি দিনাজপুর জজ কোর্টে ওকালতি করতাম। ৭ ডিসেম্বর একবেলা কোর্ট করে চলে এলাম দিনাজপুর হাই স্কুলে। প্রধান শিক্ষককে জিজ্ঞেস করলাম, এসএসসি টেস্ট পরীক্ষায় উত্তীর্ণ কতজন শিক্ষার্থী ফরম ফিলআপ করেনি? তিনি জানালেন ১৬ জন। আমি জানতে চাইলাম ১৬ জন শিক্ষার্থী ফরম ফিলআপ না করার কারণ কি? তিনি বল্লেন, শহরের পরীক্ষার সেন্টারগুলোতে নকলের সুযোগ কম বা নেই বল্লেই চলে, সেকারণেই হয়তো অন্য উপজেলায় গ্রামের স্কুল থেকে ফরম ফিলআপ করেছে। সেসময় নকল করে পাশ করার জন্য এধরণের ঘটনা সচারাচর ঘটতো। কিন্তু আমি এটা বিশ্বাস করলাম না। কেননা, দিনাজপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রতিটি শিক্ষার্থী এবং তাদের অভিভাবকদের আমি চিনতাম এবং তাদের প্রত্যেকের বাসায় আমি কয়েকবার গিয়ে তাদের অভিভাবকদের সাথে কথা বলে তাদেরকে উৎসাহ দিতাম এবং তাদের সন্তানদের প্রতি বিশেষ যত্ন ও নজরদারি করার জন্য পরামর্শ দিতাম। ফলে দিনাজপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষর্থী ও তাদের অভিভাবকদের সাথে আমার সখ্যতা, আন্তরিকতা ও ঘনিষ্ঠতা গড়ে উঠেছিল খুবই নিবিড়ভাবে।
আমি হেডমাস্টার স্যারকে বল্লাম, যারা ফরম ফিলআপ করে নাই তাদের নাম ও পূর্ণ ঠিকানা আমাকে দেওয়ার জন্য। আমি ১৬ জনের নাম ও ঠিকানা নিয়ে বেড়িয়ে পড়লাম। সঙ্গে নিলাম স্কুলের শিক্ষার্থীর প্রিয় শিক্ষক মিজানুর রহমানকে। প্রথমে গেলাম ঘাসিপাড়া বটতলা মোড়ে এক ছাত্রীর বাসায়। তাকে ডেকে জিজ্ঞেস করলাম ফরম ফিলআপ না করার কারণ কি? পিতৃহীন সেই ছাত্রী ও তার মা আমাদেরকে দেখে হাউমাউ করে কেঁদেকেটে বল্লো, গতকাল রাতে তাদের বাড়ির সামনে একটা মারামারি হয়েছিল। পুলিশ এসে তার শান্তশিষ্ট ও নিরীহ ভাইটিকেসহ আরো অনেককে গনহারে গ্রেফতার করে নিয়ে গেছে। তারা অনেক দৌড়াঝাপ ও কান্নাকাটি করেছে তার ভাইকে ছাড়িয়ে নেওয়ার জন্য। কিন্তু পাঁচ হাজার টাকা না দিলে তাকে বেদম মারধর করে অনেকগুলো অজামিনযোগ্য ধারায় কোর্টে চালান দিয়ে দিবে। পিতৃহীন মেয়েটি ফরম ফিলআপের জন্য সঞ্চিত এক হাজার টাকা এবং কানের একজোড়া দুল এক হাজার টাকায় বিক্রি করে থানায় দুই হাজার টাকা দিয়েছে। কিন্তু টাকা কম হওয়ায় ভাইকে ছাড়েনি এবং টাকাও ফেরত না দিয়ে অনেক গালাগালি করে তাদেরকে থানা থেকে তাড়িয়ে দিয়ে তার ভাইকে কোর্টে চালান দিয়ে দিয়েছে। ফলে টাকার অভাবে মেয়েটি ফরম ফিলআপ করতে পারেনি।
তারপর ক্ষেত্রীপাড়ার আর এক মেয়ের বাসায় গেলাম। মেয়েটি ক্লাসের ফাস্ট গার্ল। ফরম ফিলআপ না করার কারণ জিজ্ঞেস করলে সে বলে, সে ও তার মা পাড়াপ্রতিবেশী, আত্মীয়স্বজন ও ধনাঢ্য অনেকের কাছেই ফরম ফিলআপের এক হাজার টাকার জন্য অনেক কাকুতিমিনতি করে অনুরোধ করেছিল এবং উচ্চ সুূদে ঋনও নিতে চেয়েছিল, কিন্তু কেউ তাদেরকে সাহায্য বা ঋন দেয়নি। মেয়েটির মা অন্যের বাসায় গৃহকর্মীর কাজ করতেন।
তারপর হঠাৎপাড়ায় গেলাম ক্লাসের ফাস্ট বয়ের বাসায়। তাকে জিজ্ঞেস করলাম ফরম ফিলআপ না করার কারণ কি? সে বল্লো, ফরম ফিলআপের জন্য সে স্কুলে গিয়েছিল পাঁচশ টাকা নিয়ে। কিন্তু এক হাজার পঞ্চাশ টাকা ছাড়া তার ফরম ফিলআপ করা হবে না বলে তাকে ফেরত দিয়েছে। ছেলেটির বাবা নেই। সে স্কুলে পড়ে আবার টেইলরিংয়ের দোকানে কাপড় সেলাইয়ের কাজ করে এবং মাঝমধ্যেই লেবারের কাজ করে টাকা রোজগার করে সংসার চালায়।
এর পর বালুয়াডাঙ্গায় এক বস্তিতে এক মাতৃহীন ছাত্রীর বাসায় গেলাম। তার বাবা শহরের দোকানে নাইটগার্ডের চাকুরী করেন। তিনি খুবই অসুস্থ। ফরম ফিলআপের টাকা দিয়ে মেয়েটি তার অসুস্হ বাবার ঔষধ কিনেছে। সেজন্য সে অর্থাভাবে ফরম ফিলআপ করতে পারেনি।
এভাবে এক এক করে ১৬ জন এসএসসি পরীক্ষার্থীর বাসায় গেলাম। দারিদ্র্যতার নির্মম কষাঘাতের কারণেই তারা কেউ ফরম ফিলআপ করতে পারেনি। নকল করার জন্য এরা কেউ অন্য থানার কোনো সেন্টারে ফরম ফিলআপ করেনি। আমরা তাদের প্রত্যেককেই পরম আদর ও মমতা সহকারে পরের দিন সকাল ১০ টায় পাসপোর্ট সাইজের ছবিসহ স্কুলে আসার জন্য বল্লাম। পরের দিন আমি স্কুলে বসে থেকে শুধু বোর্ডের সাড়ে পাঁচশ টাকা বাদে স্কুলের সমস্ত ফি-এর অর্থ মওকুফের ব্যবস্হা করলাম। বোর্ডের সাড়ে পাঁচশ টাকা আমি প্রদান করে ১৬ জন শিক্ষার্থীর এসএসসি পরীক্ষার ফরম ফিলআপ করে দিলাম। তাদের সকলকে সামনাসামনি বসিয়ে পরম মমতা, ভালবাসা ও আদর করে বুঝালাম যে, তোমাদেরকে ভালভাবে পাশ করতেই হবে। তাদেরকে আমি এই মর্মে সংকল্প করাতে সক্ষম হয়েছিলাম যে, “আমরা পারি এবং আমরা ভালভাবে পাশ করবোই”।
এসএসসির সকল শিক্ষার্থীদের বিশেষ করে ওই ১৬ জনের জন্য কোচিং ক্লাসে একটু বেশি যত্ন নেওয়া হয়েছিল। তাদের বেশিরভাগ কোচিং ক্লাসগুলোতে আমি স্বশরীরে উপস্থিত থাকতাম। যেদিন উপস্থিত থাকতে পারতাম না, সেদিন আকস্মিক কোচিং ক্লাস পরিদর্শনে যেতাম। স্কুলের শিক্ষকবৃন্দ ছিলেন মানবিক গুনাবলীতে ভরপুর। তারাও আন্তরিকতা ও যত্ন সহকারে শিক্ষার্থীদের পাঠদান করাতেন ও ফিডব্যাক নিতেন। শুনলে খুশি না হয়ে পারবেন না যে, ওই ১৬ জন শিক্ষার্থীর সকলেই অত্যন্ত কৃতিত্বের সাথে এসএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছিল। তাদের অনেকেই আজ প্রধান শিক্ষক, ইঞ্জিনিয়ার, এ্যাডভোকেট, সরকারি চাকুরিজীবী, পুলিশ অফিসার, আবার কেউ ব্যবসায়ী।
সেদিন যদি ওই অতি ও হতদরিদ্র ১৬ জন এসএসসি পরীক্ষার্থীরা পরীক্ষা দিতে না পারতো – তাহলে ঝড়েপড়া সেসব শিক্ষার্থীদের অবস্থা কি হতো, আজ তারা কোথায় তলিয়ে যেত – সেটি সহজেই অনুমেয়।
করোনাকালে অবসর সময়ে এসব কথা যখনই মনে পড়ে তখনই সৃষ্টি সৃুখের উল্লাসের মতো আমার দেহ, মন ও চিত্ত আনন্দ ও উল্লাসে উড়তে ও নাচতে থাকে, আর আমার মনে হয় এর চাইতে চরম সুখ ও পরম আনন্দ আমার জীবনে আর কি থাকতে পরে! তাই কবি কামিনী রায়ের “সকলের তরে সকলে আমরা” কবিতার কয়েকটি কলি আমার বার বার মনে পড়ছে;
“পরের কারণে স্বার্থ দিয়া বলি – এ জীবন মন সকলি দাও,
তার মত সুখ কোথাও কি আছে আপনার কথা ভুলিয়া যাও।
আপনার লয়ে বিব্রত রহিতে আসে নাই কেহ অবনী পরে,
সকলের তরে সকলে আমরা প্রত্যেকে মোরা পরের তরে।”


লেখকঃ বীর মুক্তিযোদ্ধা, বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের এ্যাডভোকেট এবং জাতীয় সাংবাদিক সোসাইটি ও ওয়ার্ল্ড পীস এন্ড হিউম্যান রাইটস সোসাইটির চেয়ারম্যান

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

7 − four =